হরতাল বিষয়ক উপলব্ধি

হরতালে পুড়ে মারা যাওয়া একটা বাচ্চার ছবি দেখলাম । ভয়ংকর অবস্থা । ওয়াকিং  ডেড নামে একটা জম্বি সিরিয়াল দেখে  আর জম্বি মানুষের সমাজে বসবাস করে — কোন ধরনের অনুভূতিই আর অবশিষ্ট নাই। তারপরো একটু খারাপ লাগলো।
হরতাল নিঃসন্দেহে তুলে দেয়া উচিত । এক একটা হরতালে দেশের অর্থনীতির শত কোটি টাকা ক্ষতি হয় — এটা এখন সম্ভবত
বাচ্চা ছেলেরাও জানে ।

কিন্তু প্রশ্ন থেকে যায় — বাংলাদেশের যেই রাজনৈতিক কালচার – লাশ , আহত মানুষ, জনজীবনের চরম দুর্দশা ছাড়া ক্ষমতাসীনদের দৃষ্টি আকর্ষন করা যায় না । বিএনপি দাবী করছে – তত্ত্বাবধায়ক সরকার , একটা লেভেল প্লেইং ফিল্ড, একটা নিরপেক্ষ নির্বাচন । তাদের এই নায্য দাবীকে আদায় করার অন্য কোন বিকল্প পদ্ধতি আছে ??

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ভাবছে তাদের কখনোই ক্ষমতা ছাড়তে হবে না, আগের টার্মে একই ভুল বিএনপি করেছিলো —
সে সময়ে কি আওয়ামী লীগ হরতাল দেয়া বন্ধ রেখেছে ?? মানুষ পুড়িয়ে মারে নাই ?
শেরাটনের সামনে দোতালা বাসে গান পাউডার দিয়ে ১২-১৪ মানুষ মারা ইতিমধ্যে ভুলে গেছে মানুষ ?
নাকি লগি বৈঠার তান্ডব ভুলে গেছে মানুষ ?? ১ টা লাশ পড়লে ১০ টা ফেলার হুমকি ভুলে গেছে মানুষ ??

১৯৯১-১৯৯৬ সালে ১৭৩ দিন হরতাল দিয়েছে আওয়ামী লীগ ২০০১-২০০৬ সালে দিয়ে ১৩৩ দিন। শেখ হাসিনা নিজে প্রমিস করেছিলেন – বিরোধী দলে গেলে আর হরতালের রাজনীতি করবেন না , হরতাল দিবেন না । এসব কী ভুলে গেছে মানুষ ?

=====

খুব যৌক্তিক প্রশ্ন যে — হরতালে লোকক্ষয় হচ্ছে, নিরীহ মানুষ মারা যাচ্ছে, শত কোটি টাকার ক্ষতি হচ্ছে, হরতাল দাঙ্গা ফ্যাসাদ বন্ধ করা উচিত; তো এখন যৌক্তিক দাবী আদায়ের উপায় কি ?
কোন উপায় নাই । ধ্বংসাত্মক কাজ ছাড়া কারো দৃষ্টি আকর্ষন করার কোন উপায় নাই ।

উপায় একটা ছিলো – সেটা হলো আওয়ামী ঘেষা , আওয়ামী পন্থী , আওয়ামী সহানুভূতিশীল মানুষদের উচিত ছিলো — নিরপেক্ষ নির্বাচন , ত্বত্তাবধায়ক সরকার এর দাবীতে বিএনপিকে সাপোর্ট দেয়া । এটা বিএনপির প্রতি সাপোর্ট না – এটা যেটা সঠিক , যেটা নায্য তার প্রতি সাপোর্ট । এসব নিয়ে লেখা লেখি করা । আমাদের দেশের একটা ভাইব্রেন্ট সিভিল সোসাইটি দরকার – যেটা যেকোন যৌক্তিক ইস্যুতে বিরোধী দল , সরকারী দলকে লাইনে রাখবে ।

আমি আপনাদের গ্যারান্টি দিতে পারি  আওয়ামী ঘেষা , আওয়ামীপন্থী , আওয়ামী সহানূভূতিশীল ৯৯% মানুষের ওয়ালে এই বিষয়ে কোন কথা দেখবেন না । তাদের কাছে এসব কোন ইস্যু না —
কিন্তু তাদের নিশ্চুপতার কারনে যদি একটা বাচ্চা ছেলেকে হরতালকারীরা পুড়িয়ে দেয় – তখন আবার সেটা তাদের ইস্যু হয়ে যায় ।

আশ্চর্য আমাদের দেশের মানুষ, আশ্চর্য তাদের মানসিকতা।burnt-in-hartal-1

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s