কেউ কিছু জানে না

দেশের বিরোধী দলগুলোর নানা লেভেলের পাবলিকের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ হয়। এদের সাথে কথা বলে মোটামোটি নিশ্চিত গত দু’দিনের ঘটনাবলীর পর থেকে ভবিষ্যতে কি ঘটবে তা সম্পর্কে ধারণা সম্পন্ন মানুষ আর বিরোধী শিবিরে বেশি নেই। দেশের অরাজনৈতিক সুবিধাভোগী সার্কেলের পাবলিকদের অবস্থাও একই রকম। কেউই জানে না কি হতে যাচ্ছে। যদিও অনেকের মাথাতেই নানা ধরণের থিউরি ও প্ল্যান ঘুরপাক খাচ্ছে।

নিউ এইজ পত্রিকার সম্পাদক নুরুল কবির সাহেব গতকাল বোম ফাটিয়েছেন। উনার কথা শুনে বুঝলাম, শুধু বিরোধী দল কিংবা অরাজনৈতিক সুবিধাভোগী সম্প্রদায় না, খোদ সরকারী মন্ত্রি-আমলারাও জানেন না কি হতে যাচ্ছে। নুরুল কবির সাহেব বলেছেন, যেসব মন্ত্রীকে এখনও নিয়মিত দেখা যায় টিভিতে চিৎকার দিতে, তারাই নাকি সাংবাদিক-সম্পাদক সাহেবদের কানে ফিসফিস করে জিজ্ঞেস করছেন, “ভাই, কিছু জানেন নাকি? আমাদের কি হতে যাচ্ছে?”

অতি সম্প্রতি বিএনপির যে শীর্ষ নেতারা গ্রেপ্তার হয়েছেন, তাদের মামলার সাথে সংশ্লিষ্টরা বলছেন যে নিম্ন আদালত ও পুলিশ বাহিনী নাকি সদ্য গ্রেপ্তারকৃত শীর্ষ নেতাদের নিয়ে কি করতে হবে তা জানতে মুহূর্তে মুহূর্তে কারও সাথে যোগাযোগ করছিলেন। গ্রেপ্তারের অনেক সময় পেরিয়ে গেলেও নাকি অনেক বিষয়ে স্বচ্ছ ধারণা পাওয়া যাচ্ছিলনা। যেমন, কি ধরণের অভিযোগ গঠন করা হবে, কতো ধারা, কি মামলা ইত্যাদি নানা বিষয়ে কিছুই জানা যাচ্ছিল না বেশ একটা দীর্ঘ  সময় ধরে। শীর্ষ নেতাদের কোথায় নিয়ে রাখা হবে, কোন জেলে নেয়া হবে, ইত্যাদি গুরুত্বপূর্ণ অনেক কিছুতেই নাকি অনেক বেশি ধারনাহীন মনে হয়েছে সংশ্লিষ্টদের।

এখন প্রশ্ন হল, প্রধান রাজনৈতিক শক্তিগুলোর শীর্ষ ব্যাক্তিরা থেকে শুরু করে সরকারী মন্ত্রীরাও যদি মামুলি একটু অনুমানও করতে না পারেন যে কি হচ্ছে বা হতে যাচ্ছে, তাহলে জানেনটা কে?

আমেরিকান রাষ্ট্রদূত মজেনা উড়ে গিয়েছিলেন পার্শ্ববর্তী দেশে। উনার সফর পরবর্তী প্রেক্ষাপটে ভারত ও বাংলাদেশ থেকে যে খবর বেরিয়েছে, তাতে মনে হয়েছে, মজেনা সাহেবও শিউর না কি হচ্ছে। উনি হয়তো শিউর হতেই দৌড় দিয়েছিলেন। উনি দৌড়াতে দৌড়াতে এখন গিয়েছেন নিজ ভুমিতে। হয়তো সেখানে যেয়ে ভালো মতো বুঝে ফেরত যাবেন কি হতে যাচ্ছে  বাংলাদেশে।

অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে যে দেশের সব বিষয়ে এখন শুধু জানা-শুনা একমাত্র মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও পারশ্ববর্তী দেশের মুরুব্বিদের মাঝেই সীমাবদ্ধ। একারণেই এখন ভয় হচ্ছে যে সিচুয়েশন কি এতোটাই খারাপ হতে পারে যে, প্রধানমন্ত্রী নিজেও অনেক কিছু জানেন না? এমনকি হতে পারে যে, আকাশ থেকে গায়েবী বানী আসছে, আর সে বানী অনুযায়ীই প্রধানমন্ত্রী শুধু ব্যাবস্থা নিয়ে যাচ্ছেন?

উপরের আশঙ্কার  সত্যি-মিথ্যা জানি না। তবে যদি সত্যি হয়, তাহলে এটুক অন্তত নিশ্চিত হতে পারা যাবে যে সাধারণ জ্ঞ্যানের বইয়ে নিচের প্রশ্নটি অন্তর্ভুক্ত করার সময় এসে গেছেঃ

প্রশ্নঃ “স্বাধীন ও সার্বভৌম বাংলাদেশের সর্বশেষ প্রধান মন্ত্রীর নাম ও শাসনকাল কি ছিল?”
উত্তরঃ বেগম খালেদা জিয়া। শাসনকালঃ ২০০১-২০০৬।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s