সেমি-নগ্নতা + কোয়ার্টার নগ্নতা = পুরুষের মনোরঞ্জন

images (1)

By Tarannum

আমার মনে হলো আমি কোন ইংলিশ/হিন্দি মুভির ট্রেলার দেখছি!যেমন মেয়েটির পোশাক,তেমনি ছেলেটিরও।তবে ইংলিশ মুভিতে নায়িকা থেকে নায়ক আলাদা করা যায়,এখানে দেখলাম আলাদা করাটা একটু না,ভালোই টাফ।পিছন থেকে কনফিউজিং বেশ,হু ইজ হোয়াট!কারণ নায়কের চুল নায়িকার চুলের প্রায় সমান লম্বা,হাতে চুড়ির মতো কি তা ঠিক বুঝলামনা।হবে হাল ফ্যাশানের কিছু একটা,ভেবে আমি গবেষণা থেকে ক্ষান্ত দিলাম।তবে যে গবেষণা থেকে ক্ষান্ত দেয়া গেলনা তা হলো এদের ঘনিষ্ট হয়ে বসার ভঙ্গি এবং মেয়েটির অতীব ‘আধুনিক’ পোশাক।পোশাকের বিবরণে আমি যাবনা।তবে তা বাঙালী কেন,গোটা উপমহাদেশীয় ট্র্যাডিশনাল পোশাকের ধারেকাছেও নাই।

বলছি,আমি একটি নামী প্রাইভেট ইউনিভার্সিটিতে বছর পাঁচেক আগে এমবিএ-তে ভর্তি হতে গিয়েছিলাম।সেখানকারই ঘটনা।আমি হিজাবী মানুষ,ওখানে গিয়ে যথেষ্ট হকচকিয়ে গিয়েছিলাম,কুন্ঠিতও হয়েছিলাম।মনে হচ্ছিল আমাকে ওখানে মানাচ্ছেনা,২-৩ ঘন্টায় যেসব মেয়েদের দেখলাম তাদের কারোর পোশাকই আমার মতো ‘ক্ষ্যাত’ নয়,বড়ই ‘আধুনিক’!তা সে ৫ বছর আগের কথা এবংপরবর্তীতে কিছুদিন পর্যন্ত এই ঘটনা মনে পড়লে এই ভেবে সান্ত্বনা দিতাম নিজেকে যে যাদের দেখেছিলাম তারা সবাই বড়লোক বাপের “বড়মানুষ” বাচ্চাকাচ্চা,তারা কি আর আমার দেশের ৮০% মানুষকে রিপ্রেজেন্ট করে?

তবে এই ভেবে শান্তিতে কিন্তু বেশীদিন থাকা গেলনা।এমবিএ-তে ভর্তি না হয়ে চলে গেলাম মৌলভীবাজারে চাকরী করতে।সিলেট নাকি ওলি-ওয়ালাদের এলাকা,সেখানে উপরের ঘটনার মতো কিছু ঘটতে দেখার চিন্তাও করিনি কখনো।কিন্তু সেখানেই ‘লন্ডনী’ কন্যাদেরকে রাস্তায়-রেস্টুরেন্টে আমি লন্ডনের পরিবেশের অভাব পূরণ করে নিতে দেখলাম,এ্যামেজিং!খোদ সিলেট শহরে যখন পোস্টিং হলো তখনতো লন্ডনী,সেমি-লন্ডনী (লন্ডনীদের আত্মীয়) মেয়েদের দৌরাত্ম্যে অবাক লাগা বিরক্তিতে পরিণত হলো।ইউনিভার্সিটি এলাকা যেখানে লন্ডনী,সেমি-লন্ডনী নাই,সেখানে?শাহজালাল ইউনিভার্সিটিতে আমরা যখন পড়তাম তখনও কিছু মেয়ের পোশাক কখনোই অতটা শালীন পর্যায়ের ছিলোনা,সেটা তখন এ্যাবনরমাল কিছুও মনে হতোনা।কারণ কিছু মানুষ কখনোই গোটা এলাকার রিপ্রেজেন্টেটিভ হয়না এবং হাতের পাঁচ আঙ্গুল সমানও হয়না।তাই সেগুলো এ্যালার্মিং কিছু ভাবিনি।কিন্তু চাকরী করতে আবার সিলেট গিয়ে দেখলাম ২-৩ বছরে সাস্টের চেহারা পুরাই পাল্টে গেছে আর সেখানকার মেয়েরাও এ্যাবনরমাল রেটে পোশাকের শালীনতা/পরিমিতিবোধ হারাচ্ছে।ফ্যাশন বদলাতে পারে,কিন্তু শালীনতা/পরিমিতিবোধ এতো দ্রুত পাল্টায়?তাও ধনাত্মক নয়,ঋণাত্মক দিকে!

এরপর লক্ষ্য করলাম সমাজের সবখানেই এই অবস্হা শুরু হয়ে গেছে।হয়তো আরও আগেই শুরু হয়েছে,আমিই লক্ষ্য করেছি দেরীতে।উদাহরণ দেই,’প্রথম আলো’ ছাড়া আর কোন পত্রিকা পড়া হতোনা তখন (মনে হতো এরা কম নির্লজ্জ পক্ষপাতিত্বের দিক থেকে,তাই মন্দের ভাল বলে পড়তাম),তাই অন্যদের কথা বলতে পারবোনা।কিন্তু এই পত্রিকাটি আমাকে বড়ই অবাক করে ‘নকশা’ নামের প্রতি মঙ্গলবারের ফিচার পাতায় মেয়েদের এমন সব ছবি দিতে লাগলো যে আমি হতভম্ব শুধু না,মর্মাহত হতে লাগলাম।কারণ এইসব ছবি দেখার জন্যে আমার এক্স ছেলে কলিগরা প্রায় প্রতি মঙ্গলবার ম্যানেজারের রুমে ‘নকশা’ পাঠানো বাদ দিয়ে দিলো এবং এসব ছবি নিয়ে ‘রসালো’ আলাপের মাঝে তারা মেয়েদের আগমণ পছন্দ করতোনা,আমাদের বলতো-পরে আসো,’অনলি বয়েজ’ আলোচনা চলছে!মেয়েরা কিছু বললে তাদের উত্তর হতো,’তোমরা আমাদের ‘দেখাচ্ছো’,আমরা দেখবোনা?!’এ ছিলো তাদের বিনোদন,বিবাহিত-অবিবাহিত,নামাজী-বেনামাজী নির্বিশেষে।ওদের দেখে আমার মনে হতো বলি,তোমাদের মাঝে তো ৯৫%-ই মুসলমান!ইসলাম কেবল কি মেয়েদের পর্দা করতে বলেছে?প্রথম আদেশ/নির্দেশ তো মেয়েদের না,ছেলেদের উদ্দেশ্যে!তাদের চোখের পর্দা নিয়ে!একটি মেয়ের নাহয় নৈতিক অবক্ষয় হয়েছে,কিন্তু সেটা কেন ছেলেটির নৈতিক অবক্ষয়ের কারণ হবে?

কিন্তু সমস্যা অন্য জায়গায় ছিল।কারণ যে মেয়ে স্বেচ্ছায় নিজেকে ছেলেদের বিনোদনের বস্তু বানিয়ে রেখেছে তার হয়ে আমি ওদের কিছু বলেই বা কি করবো? যে মেয়ে নিজেকে পণ্য বানিয়ে মহান ‘আধুনিকা’ হয়ে পত্রিকায় মডেল হয়েছে,তার এমন পোশাক পড়ার কারণ কি?সে কাকে এমনআবেদনময়ী স্বরুপ দেখাতে চেয়েছে?আরেকটি মেয়েকে??নাকি ছেলেদেরকেই যারা তাকে দেখবে?আচ্ছা,তার মনে কি কখনো প্রশ্ন আসে,’আমার সাথে মাঝে-মাঝে যে ছেলেটি মডেল হয়,তার পোশাক তো আমার মতো হয়না!সে কেন পুরো কাপড় পরে মডেল হবে আর আমি কেন স্লিভলেস পরে,পাতলা শাড়ী পরে,কোমড় দেখিয়ে তবেই মডেল হবো?তবে কি তার অভিনয়-শৈলী,অভিব্যাক্তি ফুটিয়ে তোলার যোগ্যতা আমার চেয়ে বেশী বলেই আমাকে অতিরিক্ত কিছু করে(পোশাক খুলে) ছবি তুলতে হচ্ছে যাতে লোকেরা তার পাশে আমাকেও কিছুটা দেখে?’না,এই প্রশ্ন তার ‘নারী স্বাধীনতা’-র ধোঁয়া তুলে ওয়াশকৃত ব্রেইনে আসেনা।তাই প্রকৃত নারীবাদী হয়ে পুরুষ কলিগদেরকে জোর গলায় কিছু বলার মতো উপায় আমার ছিলোনা।

ঢাকায় এলাম এরপর,একটি নামী প্রাইভেট ইউনিভার্সিটি–তে আবারো ভর্তি হলাম…অনুমান করে নেয়ার জন্যে ধন্যবাদ এখানে আমাকে গত দুই বছরে কত কিছু দেখতে হয়েছে।শুধু মেয়েদের নৈতিক অবক্ষয় না,তার সাথে পাল্লা দিয়ে ছেলেদের শালীনতা,রুচি,বিনোদন জ্ঞান পাতালের নিকষ অন্ধকারে নেমেছে।একটা প্রবাদ আছে,‘একে তো নাচুনী বুড়ি,তার উপর যদি পায় ঢোলের বাড়ি!’ছেলেরা হলো সেই বুড়ি,আর মেয়েরা ঢোলে বাড়ি দিচ্ছেন ঢুলী হয়ে।এখন প্রশ্ন হলো,কেন এমন হচ্ছে?সমস্যা কোথায়?

সমস্যা মেয়েদেরকে দেখার,বোঝার দৃষ্টিভঙ্গিতে।

সেই আদ্যিকাল থেকে পুরুষ শাসিত সমাজ মেয়েদেরকে বারবার নিজের পায়ের তলায় ঠেলে দিয়েছে।তাই মেয়েরা যোগ্যতায়, মেধায়-মননে,উৎকর্ষতায় কখনোই তাদের ছাপিয়ে উপরে উঠে আসতে পারেনি।
ইসলাম এলো,নারী এবং পুরুষ নির্বিশেষে শান্তির এই ধর্মটি জানালো তাদের পারষ্পরিক সম্পর্ক কেমন হবে;কেউ কারো প্রতিদন্ধী নয় বলল,দুজনকেই পরষ্পরের জায়গা দেখিয়ে দিলো।বললোঃ
“And one of the signs of His existence and power is this: He has created for you helpmates in order to make you feel comfortable with one another, and He ordained between you love and mercy. There are lessons in this sign for those who reflect” (Al-Qur’an 30:21).

দুঃখজনক এবং দুভার্গ্যজনকভাবে এই শান্তির ধর্মকে অশান্তির বানানোর যারা হোতা তারা মেয়েদের ইসলামীক অধিকারকেও সমানভাবে অশান্তির করে তুললেন।যুগে-যুগে মেয়েরা ইসলামে নিজেদের সম্মানিত স্হানতো পায়ইনি,বরং অসম্মানের আস্তাকুঁড়ে নিক্ষিপ্ত হতে লাগলো।ইসলামের ব্যাখ্যা-বিশ্লেষণ সবই হতে লাগলো ভুলভাবে এবং মেয়েদের সেই পুরনো পুরুষ শাসিত সমাজের পায়ের তলাতেই জায়গা হতে লাগলো।পর্দার ভুল ব্যাখ্যা এবং তার দোহাই দিয়ে মেয়েদের আবারও বন্দী করা হলো চার-দেয়ালের কারাগারে।বলা হলো তোমার জায়গা রান্নাঘরে,বাচ্চা মানুষ করায়,আর কোথাও তোমার লম্বা নাক ভুলেও গলাতে যেওনা।যে ইসলাম মেয়েদের মুক্তির দূত হয়ে এসেছিলো,সেই ইসলামকে বুমেরাং বানিয়ে মেয়েদের দাসত্ব যুগ ফিরিয়ে আনা হলো।

এ তো গেলো ভয়াবহতার একদিক,পশ্চিমা পুরুষ শাসিত সমাজ/দেশগুলো এরমাঝে নারীর মুক্তির নামে,তাকে ন্যায় বিচার দেবার নামে,ভয়াবহ আরেক শাসনব্যবস্হা কায়েম করে ফেললো।’ঘর আর তোমার জায়গা নয়,ঘর ছেড়ে বেরিয়ে এসো,আমাদের হাতে হাত মিলাও,আমাদের কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করবে তোমরা’-এই মন্ত্রনা দিয়ে তারা মেয়েদের ঘরের খাঁচা খেকেতো বের করে আনলো,তবে তা আবারও মেয়েদের জন্য প্রহসনের রুপে ধরা দিলো ভিন্ন আঙ্গিকে,ভিন্ন মাত্রায়।মেয়েরা আসলে খাঁচা ছেড়ে বেরোলো না,নতুন করে খাঁচার জন্তুতে পরিণত হলো,নতুন খাঁচার নতুন জন্তু।এবং নির্বোধ নারী ভাবলো,‘আহ্!অবশেষে আমি মুক্তি পেলাম!’কিন্তু কি সেই মুক্তি?

মুক্তির নামে নগ্নতার/যৌনতার প্রদর্শনের শৃঙ্খল-বেড়ী সেচ্ছায় নিজ গলায়/পায়ে জড়িয়ে নিলো তারা।পুরুষের শিখিয়ে দেয়া পথে চলে তারা পুরুষ শাসনের অর্গলেই নিজেদের আষ্টেপৃষ্ঠে জড়িয়ে নিলো।আর তারই ফল দাঁড়ালো মিস ওয়ার্ল্ড/মিস ইউনিভার্স প্রতিযোগীতার নামে নারীদের পণ্য বানানো,পত্রিকায়-ম্যাগাজিনে-টিভি-ইন্টারনেটে-বিজ্ঞাপণে নারীকে পণ্য বানানো…সর্বত্র নারী হয়ে দাঁড়ালো পণ্য,পণ্য আর পণ্য।পুরুষেরা ধন্য!আসলেই তারা সৃষ্টির রাজা বটে!কি চালে দাসী নারীকে তারা কুপোকাত করেছে বেকুব নারী টেরও পায়নি।ঘরের খাঁচার জন্তু বাইরে এসেও তাকে এখন বিনোদন দিচ্ছে,আগের চেয়ে অনেক বেশী আকর্ষণীয় রূপে/অনেক বেশী রোমান্চকরভাবে!জয়তু পুরুষ!

আর আমার দেশেও পালে তার-ই হাওয়া লেগেছে…সে অনেকদিন হল।আমার দেশের আজকের ‘নকশা’-র মেয়েরা,বিজ্ঞাপণের ‘আরসি-র মজা কত,তোমার মতো যখন যেমন চাই’ মেয়েরা,বিলবোর্ডের অর্ধনগ্ন,কোয়ার্টার-নগ্ন ‘আবেদনময়ী’ মেয়েরা,প্রাইভেট/পাবলিক ইউনিভার্সিটির তথাকথিত ‘আধুনিক শিক্ষিত’ মেয়েরা,মধ্যবিত্ত মেয়েরা..সবাই পশ্চিমা পুরুষদের দাসীদের অনুকরণশীল বান্দরী হয়ে দাঁড়িয়েছে।মারহাবা!মারহাবা!!

কোথায় স্বাধীন মেয়েরা!কোথায়?এ লজ্জা আর অপমান কোথায় রাখি যখন আমার দেশের মোল্লারা প্রেম করার অপরাধে ছেলেটিকে বাদ দিয়ে কেবল মেয়েটিকে দোররা মারেন,পাশের দেশে বাসে মেয়ে গণধর্ষণের স্বীকার হয়ে মারা যায়,যখন অভিশপ্ত দেশ পাকিস্তানে তালেবানরা মেয়েদের পড়তে চাওয়ার দোষে গুলি করে,আবার যখন সেই মেয়েকে নিজ দেশে স্হান দেয়া ইংল্যান্ডে শোবিজে কাজ করতে আসা মেয়েরা দিনের পর দিন যৌন নির্যাতনের স্বীকার হয় এবং সেসব উন্নত দেশের উন্নত মেয়েরা কাউকে বলার মতো,অভিযোগ করার মতো অবস্হায়ও থাকেনা,যখন সেসব দেশের পত্রিকায় রিপোর্ট আসেঃ Three decades ago one out of three rape attacks reported to the police ended in conviction; today it is just one in 20 (দি গার্ডিয়ান),যখন দেখি সেসব দেশে বিখ্যাত বাবা নিজের মেয়েকে দিনের পর দিন যৌন নির্যাতন করে বেড়ান,টেনিসে মেয়েদের পোশাক আরো ছোটো না করলে থেলা আকর্ষণীয় হচ্ছেনা বলা হয়?..কোথায় আমি স্বাধীন??ব্যাসিক্যালি,কোথাও না!এ সব দেশের মেয়েদের অবস্হা দেখুনঃ

(http://www.theguardian.com/media/2012/oct/14/savile-tv-culture-of-female-harassment

http://www.theguardian.com/media/2012/oct/12/jimmy-savile-broadmoor-volunteer-role

http://www.theguardian.com/uk/2013/jan/11/jimmy-savile-police-report

http://www.theguardian.com/media/2013/jan/12/jimmy-savile-deborah-orr

http://www.theguardian.com/commentisfree/2006/mar/31/politics.ukcrime?INTCMP=SRCH

http://www.theguardian.com/world/2013/jan/10/klaus-kinski-rape-claims-daughter?INTCMP=SRCH)
কিন্তু তবু কিছু বেল্লিক(বুদ্ধিজীবী??)আছেন আমাদের দেশে যারা ওইসব দেশকে স্ট্যান্ডার্ড ধরে নিয়ে ওদের প্রশংসায় পঞ্চমুখ হন,বলেন:ওদের দেশের মেয়েদের মতো হতে হবে আমাদের মেয়েদের,তবেই মহিলা মুক্তি সম্ভব!আর গন্ডমূর্খ মেয়েরাও তালিয়া বাজায়,’চলো,চলো,আমরাও ওদের মতো হবো।পাশের দেশ পশ্চিমাদের অনুকরণে যেমন গায়িকা-নায়িকা-‘নাচ-বালিয়ে’ বানিয়ে বিশাল নারী দেহ নির্ভর ইন্ডাস্ট্রি গড়ে তুলেছে,আমরাও সেভাবেই ‘উন্নত’ হবো!মাথা খাটানোর দরকার নেই;অরুন্ধতী রায় হবার দরকার নেই,কে চেনে ওঁর মতোদের?চেনেতো প্রিয়াংকা চোপড়াকে,চেনেতো সিরিয়ালের ‘খুশী’কে যারা ফেয়ার এন্ড লাভলীর এড করে ফর্সা চামড়া-শরীর দেখিয়ে বেড়ায় তাদের।দ্যান,হোয়াট আর উই ওয়েটিং ফর!আমরাও লাক্স সুন্দরী হবো!মাথা খাটানোর যত ক্ষেত্র তার সব ছেলেদের দখলে ছেড়ে আমরা কাপড়ের কোথায় কোন ছাটটা অমুক হলিউডি/বলিউডি নায়িকার মতো হলো সেই প্রতিযোগীতায় নামবো’।

আশ্চর্য লাগে যখন নামী প্রতিষ্ঠানে কর্মরত এইসব ‘হাই-ফাই ফ্যাশন্যাবল’ মেয়েদের দেখি হিন্দি সিরিয়ালের কাহিনী নিয়ে ঘন্টা দুয়েক আলাপ করতে,অফিসের কোন কাজ করতে গেলে চৌদ্দটা গন্ডগোল করতে,আর ইংলিশে দুই কলম লিখতে তিন কলম ভুল বানান লিখতে।আবার এরাই থার্টি-ফার্স্ট নাইটে নামী হোটেলে স্বামীর সাথে মদ খেতে যান।এরাই আমাদের ‘আধুনিক নারী’!! হলিউডি/বলিউডি অনুকরনে অন্ধ,শরীর সর্বস্ব,মাথা খালি।না,কেউ যদি বলেন,এ শুধু উচ্চবিত্তের কাহিনী,তবে তিনি ভুল করছেন।বাসার কাজের মেয়েটাও এখন ঈদে হিন্দি সিরিয়ালের নায়িকার মতো ড্রেস বানায়।গ্রামের মেয়েদের আমি কাঁধ থেকে নেটের ট্রান্সপারেন্ট হাতওয়ালা জামা পড়তে দেখেছি,গ্রামের মেয়েরাও এখন ‘আনারকলি’ পরে,ওড়না বুক থেকে গলায় তুলে নিয়েছে ওরাও কয় বছর আগেই!নিম্নবিত্ত-মধ্যবিত্ত নাকি জাতির আধার,এরাই দেশকে রিপ্রেজেন্ট করে।তো আমাদের রিপ্রেজেন্টিটিভদের এই হলো দশা!

এর শেষ কোথায়?কবে মেয়েরা জানবে তালেবান আর এ দেশীয় মোল্লা যেমন তার শত্রু,দিপিকা পাড়ুকোনে কিংবা শাকিরা-ও তার সমান শত্রু তাকে পুরুষের বগলদাবা হতে চাওয়া শোপিস বানানোর জন্যে?কবে আমরা জানবো যে বেগম রোকেয়ার বলা ২০০ রকমের আচার,৪০০/৫০০ রকমের চাটনী-মোরব্বা বানানোর সময় আমরা পুরুষের পেটের ক্ষুধা মেটাতাম আর এখন সেখান থেকে বেড়িয়ে ফুটন্ত কড়াই থেকে জ্বলন্ত আগুনে ঝাঁপ দিয়ে আমরা তাদের শারীরিক আনন্দ/চোখের আনন্দ মেটাচ্ছি?কবে আমরা প্রশ্ন করতে শিখবো-
১.স্কুলে কেন ছেলেরা ফুল স্লিভ/হাফ স্লিভের সাথে ফুল প্যান্ট পরবে আর মেয়েরা স্কার্ট পরে পা বের করে ঘুরবে?ছোটবেলা থেকেই প্রভুর মনোরঞ্জন করা শুরু হতে হবে?
২.অফিসে ড্রেস কোডে ছেলেদের জন্যে ফুল স্লিভ,ফুল প্যান্ট আর মেয়েদের জন্যে ফ্ল্যাশি(?) ছাড়া বাকি সব জায়েজ কেন?যাতে মেয়েরা বাহু-কোমড় অবমুক্ত রেখে,আঁটোসাটো কাপড়ে খাঁজভাজ দেখিয়ে প্রভুর মনোরঞ্জন করতে পারে?
৩.বিয়েতে ছেলেরা পায়জামা-পাঞ্জাবী-শেরওয়ানী পড়বে,পাঁচ মিনিটে তৈরি হয়ে যাবে আর মেয়েরা শাড়ী-লেহেঙ্গা-ঘাগড়া পরে হাজার হাজার টাকা খরচ করে বিউটি পার্লার গিয়ে তিন-চার ঘণ্টা খরচ করে ‘মোহিনী-রমণী’ কেন সাজবে?কাদের দেখার জন্য?নাহলে বিয়ে হবেনা?
৪.পুরুষ সোনার চামুচ,সে বাঁকা হলেই কি!তাই তাদের পোশাক রংবিহীন হয়,আর নারীর জন্য দুনিয়ার রং নিয়ে কাপড়-চোপড়ের বাহার সাজিয়ে রেখেছে বস্তুবাদী দুনিয়ার বস্তুবাদী সব মার্কেট।কেন??আমরা কি ইমিটেশানের চামুচ??

এইসব প্রশ্নের উত্তর খোঁজা শুরু করো নারী,এই একুশ শতকেও না খুঁজলে আর কবে খুঁজবে?আর কতো খেলনা হবে সখার?নাকি তুমি এই-ই চাও?তোমাকে আপত্তিকর শব্দ রমণী (রমণ থেকে যার পত্তি!) ডেকে কবিতা লিখবে ওরা,আর তুমি আহলাদে গদগদ হয়ে ভাববে,‘ওয়াও!আমার পূজা-অর্চনা হচ্ছে,আমি শ্রেষ্ঠ!’ ধিক তোমার বুদ্ধিবৃত্তির!চিন্তা করতে শিখো মেয়ে,বিধাতা মাথা দিয়েছেন চিন্তা করার জন্যে,শুধু বালিশে রেখে ঘুমাবার জন্যে নয়।

79 thoughts on “সেমি-নগ্নতা + কোয়ার্টার নগ্নতা = পুরুষের মনোরঞ্জন

    • Well, I agree. But I have not tagged it, Nuraldeen did. As a new writer I can’t tag my blogs, they do it on my behalf. May be after I get regular here, I will get an author right to do that.

  1. Hats off to u… I never write or give any comment on any post but your writing actually deserve appreciation.I wish all women could think like you and truly get themselves real freedom that they truly deserve. However, I do disagree with some of your points like women doing household work (The achar/cooking part), cause true meaning of education is just not to use it only for outside world. From my point of view the true meaning is to be creative in any work, thinking out of the box. It can be used for any where…. The choice how you will use it is upto you.. You can be a housewife but still be creative on not only your cooking but also in many respect. Let me give you an example: say a BBA & MBA Passed student working (Male/Female) for a renowned Bank as a Branch Manager and uses his/her skill on people management, operation running, business innovation etc. In the other hand a BBA & MBA Passed housewife who have chosen her family over her career. Does it means that she has wasted her education? I don’t think so, cause she also has to manage her family (People Management), Run her family (Smooth operational activity) and do things in her own way (Business innovation). Apart from that I really loved your writing and really appreciate your thoughts.

  2. Thank you for your heart-felt appreciation. Thank you very much for reading my blog. And the point that you made..I do not at all disagree with it! Rather I 100% agree here. You see, you got my point a bit wrong. Cause what I tried to say is, women were once being forced to do these cooking and achar stuffs without any choice. That was one form of oppression. And now they are being oppressed in different way. They are ‘free’ to think and go outside now, but that freedom is also attributed by men in another dangerous oppressive form. That freedom is to chain themselves once again in the form of sex slavery. Which, in my humble opinion, is called being brain-washed by men. However, if a woman choose to stay at home and take care of her kids and family without being forced by anyone..I believe, that is the highest challenging job ever! As a woman I know how hard it is to look after household. Ask me! Its an ocean full of problems and you have to be an efficient sailor and captain to solve those peculiar problems 🙂 And if you have an MBA degree..it can really help you to manage the ‘home-world’ properly. So, no issue of thinking that its an wastage of education if you do not work for a company or organization and maintain your sweet home. That will be really blind and foolish judgment.

    • আপু বা ভাই লেখটা তো বাংলায়, কমেন্ট গুলা বাংলায় হইলে কি সমস্যা হইত, প্রদর্শনের কি আছে এখানে? বা সরাসরি বললে এটা অপ্রয়োজনীয়।

  3. এত শক্তিশালী লিখা অনেক দিন পর পড়লাম। ঠিক মনের কথাটাই লিখেছেন! অনেক ভাল লাগল! 😀

  4. এত সুক্ষ বিষয়, এত সহজ বাংলায় উপস্থাপন……… বলার কিছুই নেই……… যাজাকাল্লাহ খাইর

  5. Nice composition……….But i think that, it is our so called culture that admits to do that and for that our think tanks have no headache…….they appreciate it………

    • You see, our basic culture was never like this. We have changed it and we have deviated from it since 1990’s mostly..and our think tanks have always prompted that deviation. Thank you.

    • You see, our basic culture was never like this. We have changed it and we have deviated from it since 1990’s mostly..and our think tanks have always promoted that deviation. Thank you.

    • Something is going wrong technically when I am answering you..Anyway, you see, our basic culture was never like this. We have changed it and we have deviated from it since 1990’s mostly..and our think tanks have always prompted that deviation. Thank you.

    • Something is going wrong technically when I am answering you..Anyway, you see, our basic culture was never like this. We have changed it and we have deviated from it since 1990’s mostly..and our think tanks have always promoted that deviation. Thank you.

    • You see, our basic culture was never like this. We have changed it and we have deviated from it since 1990′s mostly..and our think tanks have always promoted that deviation. Thank you.

  6. আল্হামদুলিল্লাহ অনেক ভাল লিখছেন।কিন্তু আপনার লেখার কিছু অংশ কিন্তু সেই পশ্চিমা পখ্খপাতদুষ্ট সংবাদ মাধ্যমের অন্ধ অনুকরন মনে হয়। যেমন আপনি বলেছেন তালিবানরা মালালাকে লেখাপড়া করতে চেয়েছে বলে গুলি করেছে।এটা পশ্চিমা সংবাদমাধ্যম এর বানানো। মনগড়া কথা।বরং এখানে গুলির গঠনাটা অন্যকারনে অথবা সাজানো। আর আপনি তালিবানদের কথা বলেছেন,তারা কখনো নিজ ইচ্ছা বা খেয়াল খুশির অনুসরন করে নি।তারা শুধু অন্ধ অনুসরন করে আল্লাহর আইনকে। আর পশ্চিমারা তাদের বিরুদ্ধে প্রচলিত মারনাস্ত্রর সাথে সাথে অপপ্রচার কেও অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করছে তাদের সেই সংবাদমাধ্যমের সাহায্যে। আল্লাহ আমাদের সকল ভূলত্রুটি খমা করে আমাদের সরল সঠিক পথে পরিচালিত করুক। এবং আপনার কাজের উওম প্রতিদান দিক।।।

    • অনেক ধন্যবাদ লেখা পড়ার জন্যে। আর যে পয়েন্ট আপনি তুলছেন, সেটার ব্যাপারে বলবো, আমি ঠিক একমত হতে পারছিনা আপনার সাথে। দেখুন, আমরা মুসলিম বলে আমরাই ভালো, আর সবাই খারাপ এবং conspiracy করছে আমাদের বিরুদ্ধে এটা ঠিক নয়। তালেবানরা যে ১০০% মুসলিম হয়ে চলছে এবং চলতো সবসময়-এই মতবাদও ঠিক নয়।মা-আসসালাম।

      • সালাম। আমার মনে হয় সুজন ভাই যথার্থ বলেছেন। আপনি যদি একমত না হন তা হলে আপনাকে যুক্তি দিয়ে উপস্থাপন করতে হবে আপনি কেন একমত না। আর মালালা বা তালিবান সম্পরকে আপনার খবরের সোর্স কি সেটা দয়া করে উল্লেখ করবেন।
        আর আপনি যদি শুধুমাত্র তর্কের খাতিরে আপনার বক্তব্য কে সমর্থন দিয়ে যেতে চান, তাহলে শুধু একটা প্রশ্নের উত্তর দিলেই চলবে। তা হল, গুলি শুধু মাত্র মালালাকেই কেন করা হল? তার পাশের অথবা বাসের অন্যান্য মেয়েরাও তো শিক্ষা গ্রহন করছিলো???

      • ধন্যবাদ আপনাকে comment এর reply দেয়ার জন্য। আমি কিন্তু একবার ও বলিনি যে আমরা মুসলিম বলে আমরা ভাল আর অন্যরা খারাপ। বরং আমরা মুসলিম বলে আমাদের আদর্শ ইসলাম হওয়া উচিত এবং আমাদের ভাল হওয়া উচিত যা আমাদের অন্যদের থেকে পৃথক করবে। পশ্চিমারা যে আমাদের বিরুদ্ধে ইসলামের বিরুদ্ধে conspiracy করছে তা যে কেউ বুঝিতে পারবে যারা চোখ কান খোলা রাখে এবং যারা তাদের বুদ্ধি বিবেককে পশ্চিমাদের কাছে বন্ধক দিয়ে দেয় না যারা পশ্চিমাদের চোখে সবকিছু দেখে না। আল্লাহ আপনাকে অনেক জ্ঞান ও বুদ্ধি দিয়েছে আলহামদুলিল্লাহ তাই পশ্চিমারা যে ইসলামের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে তা আপনাকে বুঝিয়ে বলতে হবে না। এই রকম শত উদাহরন আমারর মত নগন্য ব্যাক্তি ও দিতে পারবে আর এই ষড়যন্ত্রের বাস্তবায়ন করছে নামধারী কিছু মুসলিম দালাল। আর পৃথীবির কোন দলই এখন শতভাগ ইসলামিক না কিন্ত তাই বলে যারা জান মাল দিয়ে তাদের বিরুদ্ধে জিহাদ করছে তাদের অপবাদ দিতে হবে তাও আবার কুফ্ফারদের সহযোগী পখ্খপাদদুষ্ট ইহুদী নিয়ন্ত্রিত BBC,CNN, THE GUARDIAN ·র reference দিয়ে?সংবাদমাধ্যম যে সাদাকে কালো আর কালোকে সাদা করতে পারে তা আমাদের দেশের সংবাদমাধ্যমের দিকে তাকিয়ে আপনার মত জ্ঞানী ব্যাক্তির অজানা থাকার কথা নয়,আর তাহলে কিভাবে আমরা ইহুদী নিয়ন্ত্রিত সংবাদমাধ্যমের সংবাদ গুলোকে ঐশীবানী তূল্য জ্ঞান করে আমাদের মুজাহিদ ভাইদের অপবাদ দিব??? তাই আমাদের উচিত সংবাদ জানার পর তা সত্য মিথ্যা যাচাই করার চেষ্টা করা এবং এর পর বিশ্বাস ও প্রচার করা। আল্লাহ আপনাকে আমাকে সঠিক জানার ও বুঝার তৌফিক দান করুক। যাযাকাল্লা খাইরান।

      • ধন্যবাদ আপনাকে comment এর reply দেয়ার জন্য। আমি কিন্তু একবার ও বলিনি যে আমরা মুসলিম বলে আমরা ভাল আর অন্যরা খারাপ। বরং আমরা মুসলিম বলে আমাদের আদর্শ ইসলাম হওয়া উচিত এবং আমাদের ভাল হওয়া উচিত যা আমাদের অন্যদের থেকে পৃথক করবে। পশ্চিমারা যে আমাদের বিরুদ্ধে ইসলামের বিরুদ্ধে conspiracy করছে তা যে কেউ বুঝিতে পারবে যারা চোখ কান খোলা রাখে এবং যারা তাদের বুদ্ধি বিবেককে পশ্চিমাদের কাছে বন্ধক দিয়ে দেয় না যারা পশ্চিমাদের চোখে সবকিছু দেখে না। আল্লাহ আপনাকে অনেক জ্ঞান ও বুদ্ধি দিয়েছে আলহামদুলিল্লাহ তাই পশ্চিমারা যে ইসলামের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে তা আপনাকে বুঝিয়ে বলতে হবে না। এই রকম শত উদাহরন আমারর মত নগন্য ব্যাক্তি ও দিতে পারবে আর এই ষড়যন্ত্রের বাস্তবায়ন করছে নামধারী কিছু মুসলিম দালাল। আর পৃথীবির কোন দলই এখন শতভাগ ইসলামিক না কিন্ত তাই বলে যারা জান মাল দিয়ে তাদের বিরুদ্ধে জিহাদ করছে তাদের অপবাদ দিতে হবে তাও আবার কুফ্ফারদের সহযোগী পখ্খপাদদুষ্ট ইহুদী নিয়ন্ত্রিত BBC,CNN, THE GUARDIAN ·র reference দিয়ে?সংবাদমাধ্যম যে সাদাকে কালো আর কালোকে সাদা করতে পারে তা আমাদের দেশের সংবাদমাধ্যমের দিকে তাকিয়ে আপনার মত জ্ঞানী ব্যাক্তির অজানা থাকার কথা নয়,আর তাহলে কিভাবে আমরা ইহুদী নিয়ন্ত্রিত সংবাদমাধ্যমের সংবাদ গুলোকে ঐশীবানী তূল্য জ্ঞান করে আমাদের মুজাহিদ ভাইদের অপবাদ দিব??? তাই আমাদের উচিত সংবাদ জানার পর তা সত্য মিথ্যা যাচাই করার চেষ্টা করা এবং এর পর বিশ্বাস ও প্রচার করা। আল্লাহ আপনাকে আমাকে সঠিক জানার ও বুঝার তৌফিক দান করুক। যাযাকাল্লা খাইরান।
        @ Ammena

    • লেখা পড়ার জন্যে অনেক ধন্যবাদ। আপনার এবং আপনার মতো অনেকের ভাবনা তুলে ধরতে পেরে ভালো লাগছে।

      • কে কি পোশাক পরবে সেটা আপনি ঠিক করে দেবেন? এই মাপকাঠি কোথায় পেলেন আপনি? আপনার লেখা পড়ে মৌলবাদের বাপ-ভাইদের মনে পড়ছে।

  7. মেয়েরা কি পরবে তা আমাদের মেয়েদেরকেই ঠিক করতে দিন, কথা বলতে দিন, ভাবতে দিন। আপনারা বহুদিন ঠিক করে এসেছেন, এবার ক্ষান্ত দিন।আর যুক্তি দিয়ে না বলে লেবেল লাগানোতেও ক্ষান্ত দিন।

  8. দেখতে অনেক ভালো লাগছে যে আপুরাও এখন এই বিষয়ে লিখতে শুরু করেছেন। এতদিন যখন ভাইদেরই শুধু লেখতে দেখতাম, তখন সেখানেও একই কথা বলার সুযোগ ছিলো, মেয়েরা কি করবে না করবে সেটা তাদের ব্যাপার। পরিস্থিতি বদলাচ্ছে, আপনাকে অনেক ধন্যবাদ আপু

    • হ্যাঁ, পরিস্থিতি বদলাচ্ছে। নিজেদেরকে পুতুল হিসাবে দেখতে আর কাঁহাতক ভালো লাগে! আপনার ভালো লাগার জন্যে ধন্যবাদ।

  9. অসাধারন লিখেছেন আপু , আসলে পৃথিবীতে দুই ধরণের শিক্ষা আছে । স্বশিক্ষিত হওয়া আর সুশিক্ষিত হওয়ার মধ্যে পার্থক্য আছে । আমাদের দেশের মেয়েরা সুশিক্ষার পিছনে ছুটে শেষ পর্যন্ত কুশিক্ষাই গ্রহণ করে ফেলছে । চাকচিক্যতার ভেতরেই তারা জীবন খুজে বেরায় । সব চাইতে বড় কথা হল যার জ্ঞান অর্জনের ক্ষুদা নেই এবং যে জ্ঞান অর্জন করে পরনির্ভরশীল হওয়ার জন্যে সে সারা জীবন একজন ফেয়ার এন্ড লাভলীর যোগ্য ভোক্তা হয়েই থাকবে ।

  10. I agree to your write up partially …I respect women who put on hijab though I dress up in a western way,..I dont think they are ‘khet’ as you mentioned….., I also like to have short hair -which is not appreciated in bangladesh since most of the Brown men dont like it..so FYI– i dont do it for men/to entertain men– I do it cuz ‘I Like that’, ‘I love it on myself’ ….and it is discouraged in Islam to keep your hair short cuz it resembles men…Only if your husband allows you to keep it like that you may keep that….. now why is that then? Cuz-
    Men are Visual creatures. No matter how funny you are, how good you are with people, if you are not pretty according to them? BAM! you are just NOT compatible with them… huh! MOST Men will always choose pretty women over intelligent ones.. and women,unfortunately, are just the opposite— will choose smart men over handsome ones.. haha! both are treated like products in some way.. LOL..

    • Thanks as you agree partially at least! You have a bit misconception about Islam. Islam does not allow you to resemble man, true. But it does not allow man to resemble woman as well as it has particular and distinct feature for both men and women. Now, it is not allowed for a woman to have short hair like man even if the husband wants it. Look here, I have colored and short hair, though they are not like boy-cut which is disallowed by my Lord. But it has nothing to do with my husband’s choice, I do it on my own accord. And trust me, Islam does not empower man to dominate woman, never! He is the maintainer/look after guy of woman, not her dictator. And you don’t need to be compatible with men. Why should you be? You should be proud to be yourself, a woman! So, lets not think about man’s choice anymore, let us be ourselves. Let them think of our choice now. For example, let them give us dowry for marriage, as Islam tells them to do (Did you know this anyway?). Not the other way round! Salam.

      • And about women treating men like products.. well, that is a bad side too. But that is not in general case. However, I don’t say you have to wear hijab to free yourself from man’s slavery. It is the mentality that I wanted to talk about. I can be a non-muslim too who wont wear hijab. But I still can be a self-respecting not slave to man’s desire human being.

      • well , yes, I know about the ‘den-mohor’ thing u r referring to. by the way- Just to let you know- I did not say I hate Islam. I actually love Allah …. but there are certain things I dont understand which I dont follow…. I just want to say one thing- its not tht only Hijabi women love Allah more… i have met some women who are terrible human beings though they wear hijab…so that doesnt rule it out… but again, that doesnt mean all the women who cover are bad…. the same goes for us- who dont wear hijab/wear western.

        In REAL world— Most men are like tht…. someday i was hideous too… i saw how men’s behavior changed with my increasing beauty… and i dont see a choice there…. cuz no men liked me back when i was not pretty or fashionable..and i needed someone as my partner…everyone does! there is a reason why women do that..its not always women’s fault but the society’s…. Human beings love Flashy stuffs after all!

  11. prottek ghore na holeo prottec paray mohollay akta meye amon chinta vabna korle shomajer chehara bodle jeto.. amra shudhu degree nichhi , nijeke unnoto mone korchhi.. kintu nijeder onnanno kormo kando dara nijeder kei niche namachhi.. sheta purushra ter pachhe, shudhu amrai pachhi na..

  12. I think this is a great article. It will help women/girls those who don’t want to be product, if they read it. More such articles are required for improving our society. If you get time, you should translate it in english for outside world.

  13. thanks for realizing the real freedom of honorable women . Yes you are our mother, we think about as mother or sister, but some of them are trying to show them how sexy they are!!!(Publicly) , we want to respect you , we don’t want to see with a sexual intention what you are trying now a days ……….

  14. haha! nachte na janle uthan baka…. commercialization of females as products rather than as persons is regretful, but ei article ta te onek kisui emotion er jaega theke likha , ja fantasy rather than reality…
    pura article ta critic korar time nai amar but, ami last er question gular ans dei…
    ১.স্কুলে কেন ছেলেরা ফুল স্লিভ/হাফ স্লিভের সাথে ফুল প্যান্ট পরবে আর মেয়েরা স্কার্ট পরে পা বের করে ঘুরবে?ছোটবেলা থেকেই প্রভুর মনোরঞ্জন করা শুরু হতে হবে?
    ans. kono school/college e ki dekhsen adolescent/teenage hobar por meye ra payjama na pore just khali pa ar skirt pore ghure?? BD te emon nai….but, japan e ase…kintu bangladesh er kotha hocche…choto meye ra frok ar skirt pore jodi seita choto chele der half-pant ar shirt er motoi ete kono jounotar bapar nai…..
    ২.অফিসে ড্রেস কোডে ছেলেদের জন্যে ফুল স্লিভ,ফুল প্যান্ট আর মেয়েদের জন্যে ফ্ল্যাশি(?) ছাড়া বাকি সব জায়েজ কেন?যাতে মেয়েরা বাহু-কোমড় অবমুক্ত রেখে,আঁটোসাটো কাপড়ে খাঁজভাজ দেখিয়ে প্রভুর মনোরঞ্জন করতে পারে?
    ans: ke bolse ei kotha?? BD te meye der 99.9% office er dress salwar-kamiz; & presentation er time e dress sari….western outfit(mane pant-shirt, NOT shikt-jeans) shudhu multinational gula te…
    ৩.বিয়েতে ছেলেরা পায়জামা-পাঞ্জাবী-শেরওয়ানী পড়বে,পাঁচ মিনিটে তৈরি হয়ে যাবে আর মেয়েরা শাড়ী-লেহেঙ্গা-ঘাগড়া পরে হাজার হাজার টাকা খরচ করে বিউটি পার্লার গিয়ে তিন-চার ঘণ্টা খরচ করে ‘মোহিনী-রমণী’ কেন সাজবে?কাদের দেখার জন্য?নাহলে বিয়ে হবেনা?
    Ans. ei point ta te ami agree kori, meye der taka khoroch kore sari/goyna porar dorkar nei…chele der moto payjama-sherwani or just salwar-kamiz pore biye te jawa uchit…..but, mojar bapar 80% garment/fashion-house er customer kintu meye ra….karon ekjon avarage meye je amount e dress kine ta ekjon average cheler che koek times besi….
    ৪.পুরুষ সোনার চামুচ,সে বাঁকা হলেই কি!তাই তাদের পোশাক রংবিহীন হয়,আর নারীর জন্য দুনিয়ার রং নিয়ে কাপড়-চোপড়ের বাহার সাজিয়ে রেখেছে বস্তুবাদী দুনিয়ার বস্তুবাদী সব মার্কেট।কেন??আমরা কি ইমিটেশানের চামুচ??
    Ans. ager point er kotha ta abar bolte chai… 80% garment/fashion-house er customer kintu meye ra….karon ekjon avarage meye je amount e dress kine ta ekjon average cheler che koek times besi….
    but, kokhono ki vebe dekhechen meye ra chul boro rakhe keno ?? tara chul ekdom choto or just nera kore rakhe na keno chul ?? …karon tader dekhte sundor lage….ei sundor laga max time nijer kasei, kisu time chele der interest dhore rakhar jonno….

    anyway, eigula bole luv nai….karon ‘noksa’ te emon kono chobi dey na…oi gula dekhe je chele ra moja ney tara choto kal thekei jouno-obodomon e boro hoise….. ami choto kaal thekei meye der sobsomoy respect korsi ar mojar bapar amar dekha 90% bangali meye soti-type…. mukhe or vaab e tara jotoi dhong koruk na keno, sobai vitore vitore chorom conservative…anyway nachte na janle uthan baka……

    • Have you read those links I shared in the blog? Do please. You will know that MEN are universally same; those who are brought up in a conservative family and those who are brought up in secular or liberal family..all are same. Otherwise, there would not be any sexual abuse in offices of USA or UK, right? So, conservatism has nothing to do with NOKSHA type addiction of men in our country, dear sir. Think, you will know. By the way, women love to beautify themselves, I don’t disagree. But, beautifying yourself in dresses that make you appealing to men..addiction to such beautification is wrong – That is what I tried to say. And about office dresses of girls/women..I am sorry to disagree with you, cause you don’t seem to know many offices of our country. Take a look around, you will see. And about kids in schools…they must be treated equally, whether its a boy or girl. So, why don’t you give them at least same dresses for school?? Lastly, NACHTE NA JANLE UTHAN BAKA…why did you mention this line, dear sir? Behave yourself and grow up. Do not present yourself as an immature human being. Salam!

    • I really agree to whatever you said, Imran…. 100% true….
      There is a reason why Allah made women more beautiful than men cuz men get attracted to that…. and nijer kache nijeke shundor laga–onek important ekta jinish…. which i do: I love short hair…

      Ameena Tarannum Apu is right about the fact she said all men are same regardless of their races…

      • Read the article, you will know where are girls going these days..Its not anything natural, its being instilled in them..everywhere..with a sick purpose.
        “One mother told us: “My seven-year-old daughter told me ‘Barbie is fat’ when she compared it to her Monster High doll.” Another said her five-year-old daughter had asked to be turned into a boy so she could go into space. A 15-year-old girl wrote to us to say that “I always feel like if I don’t look a certain way, if boys don’t think I’m ‘sexy’ or ‘hot’ then I’ve failed and it doesn’t even matter if I am a doctor or writer, I’ll still feel like nothing …”

        http://www.theguardian.com/lifeandstyle/womens-blog/2014/jan/10/little-girls-deserve-better-toys-sexism

    • Read the article, you will know where are girls going these days..Its not anything natural, its being instilled in them..everywhere..with a sick purpose.
      “One mother told us: “My seven-year-old daughter told me ‘Barbie is fat’ when she compared it to her Monster High doll.” Another said her five-year-old daughter had asked to be turned into a boy so she could go into space. A 15-year-old girl wrote to us to say that “I always feel like if I don’t look a certain way, if boys don’t think I’m ‘sexy’ or ‘hot’ then I’ve failed and it doesn’t even matter if I am a doctor or writer, I’ll still feel like nothing …”

      http://www.theguardian.com/lifeandstyle/womens-blog/2014/jan/10/little-girls-deserve-better-toys-sexism

    • Imran vai…..
      Apnar pura reply ta critic korar time nai amar….sudhu duita quote ar critic korlam tao shongkhipto akare….

      1st: “ei sundor laga max time nijer kasei, kisu time chele der interest dhore rakhar jonno….” bortomane 1ta cheleo onek kichu meyeder interest dhore rakhar jonno…..ei vabe chinta korar scope nai….
      according to religion and also civilized nastic, jibon shongi bachar belai ruper chaite tar character and virtue er gurutto dea uchit……i am sure apnio tai korben
      tahole amader meyera kon cheleder interest dhore rakhar jonno nijeke sundor lagate basto…?

      2nd: “ami choto kaal thekei meye der sobsomoy respect korsi ar mojar bapar amar dekha 90% bangali meye soti-type…. mukhe or vaab e tara jotoi dhong koruk na keno, sobai vitore vitore chorom conservative” …………i just want to mention the below story….
      Ekdin amar ek friend bolchilo…..”SUNNY LEON naki tar notun ek film e nude scene korar age dress khulte lojja pachhilo..”….I hope amar ar venge bolar proyojon nai…..

      there is no intention to hurt anyone’s view….

      By the way nice article…..Ammena

  15. আপনার লেখা পড়ে খুব ভালো লাগলো।কিনতু এই নারী জাতির হুস কবে হবে!! আললাহ আপনার মঙগল করুন।

  16. তালেবান মেয়েদের শত্রু? দয়া করে সঠিক তথ্য না জেনে এমন মন্তব্য করবেন না।

    • আপনি সঠিক তথ্য জানার চেষ্টা করেছেন নাকি তারা মুসলিম বলেই তাদের ভালো বলছেন? এরা আফিম বিক্রির টাকায় “জিহাদ” করতে চায়, এদের পক্ষে কিভাবে কথা বলেন? এরা ইসলামের কলঙ্ক।

      • আপনি তালেবানদের বিরুধিতা করছেন কেন?
        মতলব কি?

      • আসসালামুয়ালাইকুম আপু, তালিবান সম্পর্কে কতটুকু জানেন জানিনা তবে তাঁরা আফিম বিক্রির টাকায় জিহাদ করে এটা পুরোপুরি একটা মিত্থ্যা কথা।আপনি তালিবানের সাথে সোভিয়েতবিরোধী আফগান যোদ্ধাদের মিলিয়ে ফেলছেন হয়ত।আফগান অনেক নেতা বা ল্যান্ডলর্ড ওয়ারলর্ড ছিল যারা আফিম বেচে হয়ত অস্ত্রের যোগান দিত।কিন্তু তালিবানের উত্থানই হয়েছে সোভিয়েতরা আফগানিস্তান ছেড়ে যাবার পর ! যখন মক্তবের “তলিব” বা ছাত্ররা যুদ্ধবাজ নেতাদের উতখাতে অস্ত্র হাতে তুলে নেয় যাদের নেতৃত্ব দেয় মুল্লাহ মুহাম্মদ উমার।

        আর তালিবানরা যখন দেশ শাসনের শুরু করে তখন তাঁরা পপি চাষিদের বলে যে, পপি চাষের রাষ্ট্রীয় জমি সরকার তাদের নামে লিখে দেবে- যদি তাঁরা পপি চাষ ছেড়ে খাদ্য শস্য ফলায় নতুবা ওই জমিতেই তাদের কবর হবে।পৃথিবীর ৮৫% আফিমের যোগান দেয়া দেশে পপি চাষ নেমে আসে শূন্যের কোঠায় ! এখন অবশ্য তাঁরা আবার ৯০% আফিমের যোগান দিচ্ছে কারণ শরিয়াহ কায়েমের কেউ নেই।

        And Allah Knows Best

  17. অসাধারন লিখা । সবার যদি আপনার মতো সু বুদ্দির উদয় হত তাহলে অনেক অরাজগতা কমে যেত । শিক্ষিত ,আধুনিক , স্বাধীন হতে গিয়ে ভুল নির্দেশনায় নিজেরা নিজেদের পতন ডেকে আনে। কেও তখন ভাল বল্লেও তাকে শত্রু ভাবে। ভাবে তার উন্নতি তে বাধা দিচ্ছে । অন্ধ হয়ে যায়।

  18. khub shundor likhlen apu…but ekhonkar juge eshob bolle amra hoye jai backdated..r ora hoye jay updated…kijani er shesh kothay…btw,awesome writing!..:)

  19. From my point of view,overall this was a good article, except some extreme feminist view, it could me more based on religious scriptures.
    anyway, this article clearly showed that man & women are two different sole. and their characteristics are also distinct. and the perception was clear that now-a-days most women are following the man as the “standard” as they want to be like them. as a result they are representing themselves as a toy for entertainment of man.
    May Allah give our sisters proper understanding of their own & Deen.
    Barakallah to the writer…

    • Brother, Islam does not disapprove of what I have said above and if anything is feminist here, so be it as long as it is within the boundary of the religion. What matters to me is, if I have written anything that is unislamic or not..and to the best of my knowledge I have not. Allah knows best..However, writing anything in religious context is not a necessity specially in countries like ours which is not an Islamic one. Rather it is important, to my humble opinion, to present/explain the logic and beauty behind Islamic rulings/teachings which will be acceptable to anyone who is logical/rational/moderate in his/her thinking. And by the way, I have written the blog for non-muslims as well! JazakAllah.

  20. একজন নারী হয়ে লেখাটা সাহসিকতার লেখার জন্য ধন্যবাদ।
    ঠিক এই রকম করে ইসলামের দৃষ্টিকোণে আধুনিক প্রেক্ষাপটে একজন নারীর করনীয় নিয়ে পরামর্শমূলক লেখাও আশা করি লিখবেন।

    আর প্রতিটি লেখায় পর্যাপ্ত রিসোর্চ সরবরাহ করবেন আশা করি।

  21. u should have known more about talibaan. everything else apart from that taaliban context has been done greatly. well said sister. may Allah give u reward in return for ur endeavor. 🙂

  22. কিছু বিষয়ের সাথে দ্বিমত আছে। অনেকটা ফ্যামেনিস্ট ভিউ থেকে লেখা। আশা করি এই ভিউটা থাকবে না পরে। তবে অনেক ভালো লিখেছেন। এটা আমারও চিন্তার ভেতর ছিল, যে নারীদের মুক্তির নামে ভালভাবেই বন্দী করা হয়েছে। আর এটা ‘বোকা’ নারীরা বুঝতে পারছেন না। চিন্তাও করছেন না। শেষের প্রশ্ন গুলো আশা করি তাদের চিন্তা খুলতে সাহায্য করবে।

    সবচেয়ে বড় কথা, যদি স্বাধীন আর সমতার কথাই হয় সত্য, তাহলে পুরুষদের কেন ফুল শার্ট আর ফুল প্যান্ট পরতে হয়? এবং এ সবকিছু থেকেই মূলত লাভবান হচ্ছে পুরুষরা। অত্যন্ত ধূর্ততার সাথে তারা এটা সম্পন্ন করেছে।

  23. দ্বিমত থাকতেই পারে। যেহেতু আমি মনে করিনা ইসলাম আমাকে Feminist হতে কোথাও মানা করেছে! এই ভিউ বদলাবে কিনা…আপাতত বদলানোর আশা নাই। ধন্যবাদ পড়ার জন্যে।

  24. লেখাটা অসাধারন। আমি নিজেকে ফ্রি থিংকারস হিসেবেই পরিচয় দিতে পছন্দ করি। আমার মতে কোনকিছুই স্থায়ী নয়। সবকিছুই পরিবর্তনশীল। তার পরেও আপনার যুক্তিগুলা বাস্তব সম্মত। সাধীনতা মানে এই নয় যে আপনি যা খুশি তাই করবেন। আমি বেগম রোকেয়া কে একজন প্রগতিশীল নারী হিসেবেই চিনি। তিনি সবার আদর্শ। তার মত মানুষিকতার মেয়েদের বেশি দরকার। যারা পরিশিলিত, মার্জিত,কিন্তু আধুনিক চিন্তাভাবনার অধিকারী। যারা হেফাজতী ইস্লামের ভাবধারাকে ঘৃনা করবে আবার নিজেকে ব্যাবসায়িক পন্য হিসেবে দেখবে না।প্রেম করবে কিন্তু মাত্রা অতিক্রম করবে না।আর সাজগোজের ব্যাপারে আমার প্রচন্ড অনীহা। কেন মানুষ নিজের চেহারাকে কৃ্ত্রিম বানাবে? ন্যাচারাল চেহারাটাই সবচেয়ে সুন্দর নয় কি?

  25. Dear sister, Excellent write-up, especially “মুক্তির নামে নগ্নতার/যৌনতার প্রদর্শনের শৃঙ্খল-বেড়ী সেচ্ছায় নিজ গলায়/পায়ে জড়িয়ে নিলো তারা।পুরুষের শিখিয়ে দেয়া পথে চলে তারা পুরুষ শাসনের অর্গলেই নিজেদের আষ্টেপৃষ্ঠে জড়িয়ে নিলো।আর তারই ফল দাঁড়ালো মিস ওয়ার্ল্ড/মিস ইউনিভার্স প্রতিযোগীতার নামে নারীদের পণ্য বানানো,পত্রিকায়-ম্যাগাজিনে-টিভি-ইন্টারনেটে-বিজ্ঞাপণে নারীকে পণ্য বানানো…সর্বত্র নারী হয়ে দাঁড়ালো পণ্য”

    আলহামদুলিল্লাহ্ May ALLAH strengthen your pen and grant you the capability to continue writing for the enlighten way. Expecting at least one article from you on Humayun Azad and Jafor Iqbal regarding their noble (!?!?!) attitude towards girls.

  26. লেখাটা অনেক ভাল হয়েছে। সমাজের বাস্তব জিনিসটাই তুলে ধরেছেন। আমাদের সবাই কে নিয়ম মানা মুসলিম হতে হবে। মডারেট মুসলিম বলে ইসলামে কিছু নেই।

  27. অনেক দিন পর অসম্ভব ভাল একটা লিখা পড়লাম । আসলে নারী অথবা পুরুষকে দোষ দেওয়ার আগে আমাদের সমাজকে দোষ দেওয়া উচিত । আমাদের সমাজ, আমাদের পরিবার, আমাদের প্রতিবেশিরা আমাদের শিখায় না একটা মেয়ের সাথে একটা ছেলের কি সম্পর্ক হওয়া উচিত, বন্ধুত্ত থাকলেও তার মধ্যে কতটুকু শ্রদ্ধা থাকা উচিত । নারী ও পুরুষ অবশ্যই একসাথে কাজ করতে পারবে কিন্তু কাধে কাধ কিংবা হাতে হাত দিয়ে নয় । প্রত্যেকটা নারীর যেমন প্রতিটা পুরুষের উপর শ্রদ্ধাশীল হতে হবে ঠিক তেমনি প্রতিটি পুরুষেরও প্রতিটি নারীকে সর্বচ্চ শ্রদ্ধা দেওয়া উচিত ।

    একটা মুসলিম দেশে একটা মেয়ে যে হিজাব অথবা নিকাব পরে তার দিকে আঙ্গুল বেশি তলা হয় । আমি নিজেই নিকাব করি আমি জানি প্রতিদিন রাস্তায় হেঁটে যাওয়া আমার জন্য কতটা কষ্টের । সবার দৃষ্টি সেলয়ার কামিজ পরা মেয়ের দিকে থাকে না । সবাই অবাক চোখে আমাকে দেখে । নিকাব পরে মনে হয় আমি তাদের অনেক ক্ষতি করে ফেলেছি । অনেকে বলে দেখ হেফাজতি ইসলাম এর মানুষ, অথবা কোন এক্তি রাজনৈতিক দলের নাম ধরে হাসাহাসি করে, যাদের সাথে হয়ত আমার কোন সম্পর্ক নেই ।

    ঠিক কয়েক মাস আগেও আমি নিকাবি ছিলাম না । আমি ঠিক উল্টোটা ছিলাম । তখন আমার এত ভোগান্তি হতো না রাস্তায় যতটা এখন নিকাব পরার পর সহ্য করতে হয় 😦 একটা মেয়ের ড্রেস কিছুনা এখন ছেলেরা জাস্ট হাসাহাসি করতে পারলেই হল রাস্তায় । কিন্তু সে কোন দিন ভাবে না মেয়েটির উপর এর প্রভাব কতটা পরে । যদি পোশাকই আসল হতো তাহলে অসংখ্য নিকাব পরা মেয়ের রেপ হতো না । যারা রেপ আর ইভ টিজিং করে তারা মানুষ রুপি পশু । তাদের কাছে মেয়েদের পোশাক, বয়স, চেহারা, বডি সব কিছুর উপরে তাদের পশুত্ব মনভাব কাজ করে ।

    শুধু একটা লিঙ্গকে দোষারোপ করে লাভ নেই । আমাদের সবাইকে একসাথে পরিবর্তন আনতে হবে । ছোট থেকেই ছেলে মেয়েদের একটা বেসিক কনসেপ্ট বুঝাতে হবে । ছেলেদেরকে নারীর মর্যাদা আর মেয়েদেরকে ছেলেদের মর্যাদা সম্পর্কে একটা স্পষ্ট জ্ঞান মাথায় গেঁথে দিতে হবে ।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s