বাম-আক্রান্ত রাজনৈতিক শ্বাসকষ্ট

2798

by: Aman Abduhu

বাংলাদেশে ডানপন্থীদের নির্বুদ্ধিতা দেখে কষ্ট লাগে। চোখে পড়লো একজনের উদাত্ত আহবান ‘অমুক এবং অমুক মিলে তমুক টিভি চ্যানেলে ভারতকে ফাটাচ্ছে!!’। ভাবটা এমন, হে দেশপ্রেমিক ভাইয়েরা আসুন এবার উনাদের গুরু মেনে নিয়ে কোমরে বোমা বেঁধে আবার ঝাঁপিয়ে পড়ি। এবারের সংগ্রাম, মুক্তির সংগ্রাম।

দেখে থমকে গেলাম। আমরা এতোটা বোকা কেন? নিরুপায় হতভাগা কোন বর্গাচাষীর মতো। শরীরে শক্তি আছে, তবু কোন উপায় নেই। কিছু করার নেই। হাত-পা ছেড়ে দিয়ে আকাশের দিকে তাকিয়ে থাকি। তারপর গ্রামের সুদী-ব্যাবসায়ী আবুল হোসেন এসে মাথায় একটু হাত বুলিয়ে দিলেই ডুকরে কেঁদে উঠি। ভিটে-বাড়ির দলিলপত্র কাবিননামা সব তার হাতে তুলে দিয়ে বলি, আমাকে বাঁচান। আমার আর কেউ নাই!

কেউ কোন কথা বললে বা কাজ করতে পারলেই হলো। তিনি আসলে কি বলছেন, কি উদ্দেশ্য নিয়ে বলতে পারেন অথবা এর ফলাফল কি হতে পারে, এসব চিন্তা করার ন্যুনতম ক্ষমতা আমাদের নেই। তারচেয়ে বড় বোকামী হলো, আমরা অতীত ভুলে যাই। বিন্দুমাত্র মনে রাখিনা। আবেগের স্রোতে অতীত বর্তমান ভবিষ্যত সব হাবুডুবু ভাসতে থাকে।

তাই ডানপন্থীদের নেতৃত্বের উপদেষ্টার কাজ করেন শফিক রেহমান। সরকারী দলের নির্যাতনের বিপক্ষে আসিফ নজরুল কথা বললে আমরা উদ্বেলিত হই। ভারতীয় আগ্রাসনের বিরুদ্ধে কিছু বলা মাত্র পিয়াস করিমের কোলে উঠে পড়ি। ইসলামের পক্ষে কিছু বললে হলো, শেষ করার আগে ফরহাদ মজহারকে ঘাড়ে বসিয়ে নাচতে শুরু করি। বিএনপি বা জামায়াতের পক্ষে যায় এমন একটা বাক্য লিখলে আবুল মকসুদকে চুমা দিয়ে ভিজিয়ে ফেলি। দেশের প্রধান পত্রিকাগুলোর সম্পাদক কে? মতিউর, মতিউর রহমান চৌধুরী, আবেদ খান।

দেশের বুদ্ধিবৃত্তিক কাজকর্মের বর্তমান অবস্থা খেয়াল করলে এ বিষয়টা কৌতুহল জাগায়। এমনকি আওয়ামী ফ্যাসিবাদের বিরুদ্ধে দেশের বিবেক ও কণ্ঠস্বর হিসেবে ধরে নিয়ে যাদের পেছনে আমরা দৌড়াচ্ছি, তাদের প্রায় সবাই জীবনের ফর্মেটিভ বছরগুলোতে বাম রাজনৈতিক আদর্শের কর্মী ছিলেন। সব রসুনের গোড়া এক জায়গায়।

দৃঢ়ভাবে ধারণা করি, আগামী কিছু বছরের পর বামপন্থীরাই এদেশ চালাবে। বামদের মাঝে একটা বিবর্তন ঘটেছে। তারা নিজেদের মাঝে ভিন্নমতকে একোমোডেট করেছে। প্রশস্ত হয়েছে। যখন প্রশস্ত হওয়া সম্ভব হয়নি তখন আলাদা দল করেছে। তারা যখন শত শত গ্রুপে বিভক্ত হয়ে চার পাঁচজন নিয়ে মিছিল মিটিং করেছে, আমরা বিদ্রুপের হেসেছি। কিন্তু নিজেদের মাঝে এ প্রতিযোগিতা করতে গিয়ে নিজেদের তাত্ত্বিক ও ব্যবহারিক ভিত্তি দাঁড় করানোর জন্য তাদেরকে খাটতে হয়েছে। তাদের বু্দ্ধি ও চিন্তাশক্তি শানিত হয়েছে। অন্যদিকে ডানপন্থীদের দিকে তাকালে মানুষ দেখিনা। দেখি একপাল ভেড়া ম্যা ম্যা কলরবে আকাশ বাতাস কাঁপিয়ে তুলছে।

এ অবস্থার জন্য দায়ী আমরা নিজেরাই, আমাদের পূর্বসূরীর দল। ডানপন্থীদের মাঝে ভিন্নমত কিংবা সমালোচনার পরিণতি হলো সমাজচ্যুত হওয়া। তারা বেশিরভাগ সময় ধান্দাবাজি আর পাওয়ার পলিটিক্স নিয়ে ব্যস্ত থেকেছে। ফলশ্রুতিতে সত্তর আশির দশকের যে তরুণ প্রজন্ম আজকে বাংলাদেশের হাল ধরেছে, তাদের মাঝে বামপন্থীরা হয়ে উঠেছে বুদ্ধিমান, ধারালো এবং যোগ্য। ডানপন্থীরা ঐসবের ধারেকাছেও যেতে পারেনি। তারা হয় ধনী হয়েছে। অথবা নির্বোধ হয়েছে। এক দঙ্গল ছাগল অনুসারীর সামনে থাকা মিথ্যাবাদী রাখাল হয়েছে।

আধুনিক রাজনীতি-শাস্ত্র অনুযায়ী, বাম রাজনীতি মানুষের অধিকার ও সম্পদ বন্টনের ইস্যুগুলো নিয়ে কথা বলে। পৃথিবীর অনেক দেশে তারা দেশের স্বাধীনতা ও অস্তিত্বেরও প্রবক্তা। অন্যদিকে ডান রাজনীতি সরকারের গঠন, ধর্ম, অথবা দেশের স্বাধীনতা ও অর্থনৈতিক উন্নতি এসব নিয়ে কথা বলে। বাংলাদেশের অবস্থা ভিন্নরকম হয়ে দাড়িয়েছে। বাংলাদেশে ডান বাম সব ধরণের ইস্যু নিয়ে ভোকাল কর্ড হওয়ার যোগ্যতা অর্জন করে নিয়েছে বামপন্থীরা। আমরা বুদ্ধিবৃত্তিক দিকে জাত-বামপন্থীদেরকেই নেতা বানিয়ে নিয়েছি, এ বাস্তবতা স্বীকার করি অথবা না করি। তারা ছড়িয়ে পড়েছে প্রয়োজনীয় প্রতিটি সেক্টরে। এমনকি তারা দেশের প্রধান দুই রাজনৈতিক দলের নেতা-মন্ত্রী-পলিসি মেকারও হয়ে গিয়েছে।

বামপন্থীদের একটা বৈশিষ্ট্য হলো তারা উদ্দেশ্যসাধনে যে কোন উপায় অবলম্বন করতে দ্বিধা করেনা। সারা পৃথিবীতে এটা দেখা গেছে। রাশিয়া চীন দক্ষিণ এশিয়া ল্যাটিন আমেরিকা, সব জায়গাতেই। বাংলাদেশের বামরা তাদের মূল যে চিন্তা, সম্পদের বন্টন বিষয়ে তাদের যে আশা, সে আশা বাস্তব করার জন্য যে কোন দল করতে পারে। র বা সিআইএ, যে কোন অর্গানাইজেশনের হয়ে কাজ করতে পারে। ঐসব দিকে তাদের নৈতিক কোন সমস্যা নাই।

বর্তমানে বাংলাদেশ ধ্বংস করছে বামেরা। হাসিনাকে ইনষ্ট্রাকশন দেয় ইনু। দেশ ধ্বংসের প্রতিবাদও করে বামেরা। র এর বিরুদ্ধে সবচেয়ে সাহসী কথা বলেছেন ফরহাদ মজহার।

বামদের এ সফলতার কারণ হিসেবে তাদের যোগ্যতার পাশাপাশি অন্যদের অযোগ্যতাও কম না। এদেশের রাজনীতিতে উল্লেখযোগ্য কোন আদর্শিক বা স্থায়ী কোন নৈতিক অবস্থান নেই। একমাত্র জিয়াউর রহমান দেশের অর্থনৈতিক উন্নতিকে ভিত্তি করে ডানপন্থী একটা বাংলাদেশী আইডিওলজি দাঁড় করানোর চেষ্টা শুরু করেছিলেন। তার মৃত্যুতে ঐটা ভেস্তে যায়। জামায়াতের নিজস্ব আদর্শ থাকলেও তারা অন্ধ। নেতৃত্ব সিদ্ধান্ত নিতে ভুল করতেই পারে, কিন্তু সে প্রমাণিত ভুলকে আজীবন অস্বীকার করে যাওয়ার মতো অন্ধত্ব দুনিয়াতে বিরল। পঙ্গু একজন মানুষের হাতে ডুকাটি সুপার-বাইক তুলে দেওয়ার একটা ঐতিহাসিক উদাহরণ।

বাংলাদেশের রাজনীতিতে আদর্শের দিক থেকে সবচেয়ে দেউলিয়া দল হলো আওয়ামী লীগ। স্বাধীনতার পর থেকে লুটপাট দুর্নীতি আর ধর্ষণ ছাড়া আওয়ামী লীগের অন্য কোন আদর্শ নেই। বামরা ক্ষমতাকেন্দ্রের কাছে গিয়েছে আওয়ামী লীগকে অবলম্বন করেই বেশি। আর বাকীরা আওয়ামী বিরোধীতা করেই অবস্থান তৈরী করেছে। আমি খাড়ায়া যামু তুমি বসায়া দিবা’র ক্লাসিক নমুনা।

সুতরাং জ্ঞান-বুদ্ধির দিক থেকে এগিয়ে থাকা এই বামপন্থীরা, এককালের আদর্শবাদী যুবকের দল আর আজকের সমাজে পথিকৃৎ, এরা বাংলাদেশকে যেদিকে নিয়ে যাবে, আগামী দশ বিশ বছর পর বাংলাদেশ ঐ জায়গাতেই গিয়ে দাঁড়াবে। চল্লিশ পঞ্চাশ বছরের সাধনার ফল তারা এক দেড়শ বছর ভোগ করলেও অবাক হওয়ার কিছু নেই। এই স্বপ্নপূরণে সহায়তার প্রতিদানও ভারত নেবে।

তবে ভারতের মতো বড় একটা দেশের নাগরিক হওয়া নিয়ে সিলেট খুলনার মানুষদের খুব একটা আশাবাদী হওয়ার কিছু নেই। ওখানে কিছু মারামারি হলেও হতে পারে। কিন্তু আলটিমেটলি হাতে পায়ে ধরলেও ভারত সরাসরি বাংলাদেশের বোঝা নিজের কাঁধে কখনো তুলে নেবে না। আমরা ওখানে জমি রক্ষায় লাফাতে থাকবো। ফাকতালে হয়তো পার্বত্য চট্টগ্রামে স্বাধীন একটা দেশ জুম্মল্যান্ড প্রতিষ্ঠা হয়ে যাবে। অথবা বৈদ্যবাবুদের স্বপ্নের বঙ্গভূমি কায়েম হবে দক্ষিণ-পশ্চিম বাংলাদেশের বিশ-একুশটা জেলা নিয়ে। আর বাংলাদেশের হতভাগা নির্বোধ জনগণ ভিটামাটি থেকে উচ্ছেদ হওয়া বেকুবের মতো হা করে বসে থাকবে। এর কোন বিকল্প সম্ভবত এই জাতির কপালে নাই। সার্ভাইভাল ফর দ্য ফিটেষ্ট।

আবারও বলি, এরজন্য দায়ী ডানদের অযোগ্যতা। মেধাহীনতা। ব্যাক্তিগত ক্ষমতার লালসা। আদর্শহীনতা। আর কোথাও আদর্শ থাকলেও বন্ধ্যাত্ব এবং অন্ধত্ব।

সুতরাং যখন বারবার দেখি ডানপন্থী মানুষ নামের পোকামাকড়ের দল আকাশের দিকে তাকিয়ে এই জাতির বিবেকদের মুখ থেকে নেমে আসা দিকনির্দেশনায় আপ্লুত হচ্ছে, আসিফ নজরুল শফিক রেহমান নুরুল কবির মাহমুদুর মান্নাদের হাতে ভিটে-বাড়ির দলিলপত্র, বিশ্বাসের ঘরের চাবি তুলে দিচ্ছে, তখন মাকসুদের মতো করে গাইতে ইচ্ছা করে- কোন পথে এই বলদের দল চলছে/ হায় পরোয়ারদিগার!!

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s