যে বন্ধু কষ্টে আছে…Maruf Raihan Khan

আমি এখন যে কথা বলব, সে সংক্রান্ত অভিজ্ঞতা অনেকেরই থেকে থাকবে। আমার ছোট বোনের এক ক্লাসমেট আছে, ও খালার বাড়িতে থেকে পড়াশোনা করে। পারিবারিক স্ট্যাটাস খুব একটা স্বচ্ছল না বোধহয়। ফলে অন্যান্য উচ্চ-মধ্যবিত্ত পরিবারের বন্ধুদের মায়েরা যতটা যত্ন নিয়ে, আবেগ ও মমতা নিয়ে টিফিন পিরিয়ডের জন্য টিফিন বানিয়ে দেবেন— ওর জন্য নিশ্চয়ই অতটা কখনও বরাদ্দ থাকবে না। অন্য বন্ধুরা টিফিনে যে টাকাটা চকোলেট- চিপস-চটপটি-বার্গারে ব্যয় করবে, তার পক্ষে সেটা সম্ভব হবে না।

কিন্তু ওর শখ-আহ্লাদ তো কখনই কম হবার কথা না, পেটের ক্ষুধাটাও ওর সাথে খুব বেশি কম্প্রোমাইজ করবে না বেশিক্ষণ। ঐ মেয়েটা একসময় না পেরে তার বন্ধুকে যদি ন্যুডলস খেতে দেখে বলে, “কী খাচ্ছ? তোমার ন্যুডলসটা খুব মজা হয়েছে মনেহয় আজকে!” কিংবা পার্ক/ কিটক্যাট খেতে দেখে যদি বলে “জানো, আমার না পার্ক চকোলেট খুব পছন্দের।” বন্ধুরা তখন নিজেদের খাবারটা শেয়ার করে ওর সাথে। আমার বোনের মতো করে হয়তো বলে, আমি সকালে খেয়ে এসেছি, তুমি এটা খাও। হয়তো প্রথমে একটু-আধটু না করবে, কিন্তু আরেকটু সাধলে সে খাবে।
একটা জিনিস খেয়াল করুন— কলেজে পড়ুয়া একটা মেয়ের আত্নাভিমান কিন্তু প্রকট থাকে। আমার বোন এ ঘটনা বলার পর থেকে আমার মাঝে মাঝেই ঐ মেয়েটার কথা মনে হয়, যেমন আজকে মনে হচ্ছে। ও নিশ্চয়ই একবুক কষ্ট নিয়ে ওর বন্ধুদের টিফিন খাওয়া দেখে, এক্সট্রিম পর্যায়ে লজ্জার মাথা খেয়ে বন্ধুদেরকে পরোক্ষভাবে বোঝ ও ক্ষুধার্ত। নিশ্চয়ই ওর আত্নসম্মানে বাঁধে। হয়তো ভাবে, সবাই ওরকম আর শুধু আমিই কেন এরকম!

সমস্যা হচ্ছে, এদেরকে কিন্তু সরাসরি সাহায্যও করা যায় না যে, তুমি এ টাকাটা রাখো। নিজের কাছেই লজ্জা লাগে, আর ওরাও নিশ্চয়ই কষ্ট পায়, ভীষণ লজ্জিত হয়, হীনমন্যতায় ভোগে। কারণ সে একটা ভালো প্রতিষ্ঠানে পড়ে, ভালো রেজাল্ট করে। আমার ব্যক্তিগত সাজেশান হচ্ছে, এই মানুষগুলোকে এমনভাবে ট্রিট করা যাতে ওরা বুঝতে না পারে ওদেরকে স করা হচ্ছে, খুব কাছের বন্ধুর মতো পাশে থাকা। একটু মাথা খাটালে আরও বুদ্ধি বের হওয়া সম্ভব। আর কিছু না পারলেও, ওদেরকে নিয়ে যেন আমরা কখনও হাসি-ঠাট্টা না করি, তুচ্ছ- তাচ্ছিল্যের দৃষ্টিতে না দেখি। কথার বিষাক্ত কাঁটায় অন্তর রক্তাক্ত না করে দিই।

একজন ইরাক ফেরত মার্কিন সৈনিকের গল্প…Capitalism & Dark Side Of the Moon!!!

1
প্রকৃতিতে এখন পরিবর্তনের পালা। ফুলে ফলে ভরে গেছে চারদিক। সাথে বসন্তের মৃদুমন্দ সমীরণ সবকিছুতে এনে দিয়েছে কাব্যিক পরিবর্তন। শহরের প্রান্তসীমায় রাজত্ব করা সান্দিয়া পাহাড়ের চুড়গুলো হতে অমল ধবল বরফ মালাও বিদায় নিয়েছে নীরবে নিঃশব্দে। এক কথায়, শীতের খোলস হতে বেরিয়ে আসতে শুরু করেছে বসুন্ধরা। আমেরিকার বন্য পশ্চিমে এ পরিবর্তন শুধু মনে নয়, শরীর মন দুটোই ছুঁয়ে যায়। গোটা এপ্রিল মাস ছিল আনপ্রেডিক্টেবল। সকালে হাড় কাঁপানো ঠান্ডা তো দুপুরে তীব্র গরম, বিকেল নামতেই প্রচন্ড ধূলি ঝড়। বাতাসের প্রচণ্ডতা এখানে এতটাই হিংস্র হাইওয়ে ধরে গাড়ি চালালে মনে হবে উড়ছে আমার গাড়ি। মে মাসের শুরুটাও ছিল একই রকম। গ্লোবাল ওয়ার্মিং নিয়ে বিজ্ঞজনেরা বহুমুখী তত্ত্ব ঝারলেও এসব নিয়ে নির্বিকার শহরের মুল বাসিন্দা রেড ইন্ডিয়ানরা। প্রকৃতি ও মনুষ্য সৃস্টি হিংস্রতার সাথে লড়াই করেই বেড়ে উঠে তাদের জীবন, যার ছোয়া পাওয়া যায় তাদের সবকিছুতে; চেহারায়, কথায়, কাজে ও চলাফেরায়। এপাচি, সান ফেলিপে, জিয়া, সান্দিয়া, এসব পুয়েবলোগুলোতে গেলে হঠাৎ করেই মনে হবে মধ্য আমেরিকার কোথাও আছি আমরা। দারিদ্র্য, অবহেলা আর অযত্নে বেড়ে উঠা রেড ইন্ডিয়ানদের দৈনন্দিন জীবনের সাথে মূলধারার আমেরিকানদের তুলনা করলে কষ্ট লাগবে, দুঃখ লাগবে এদের জন্যে। কারণ দেশটা তাদের, এরাই আমেরিকার আসল মালিক।

জুন মাস সামনে। কর্পোরেট দুনিয়ায় জুন মাসের গুরুত্ব অপরিসীম। কোয়ার্টার ও হাফ-ইয়ারলী প্রফিট & লসের হিসাব কষার মাস এটা। এ নিয়ে অফিসে এখন মহামারির মত ব্যস্ততা। বসের অনুরোধে শনিবারও কাজে আসতে হল আমার। মার অসুখের কারণে গৃহিণী একদিনের নোটিশে তার নিজ দেশে চলে গেছে। সুবিশাল দালানের পাঁচতলার সবটা জুড়ে আমাদের অফিস। একদল প্রকৌশলী এখানে দিনরাত পরিশ্রম করে যাচ্ছে যন্ত্রের মত। হাল্কা পায়ের আওয়াজ ছাড়া বিশেষ কোন শব্দ হয়না। শনিবারের ব্যাপারটা অবশ্য অন্যরকম। দু’একজন যারা কাজে আসে তাদের পরনে থাকে ’বিপজ্জনক’ খোলামেলা পোশাক, মুখে রাজ্যের গল্প, আর গোটা ফ্লোর জুড় গানের আওয়াজ। পরিবেশটাই অন্যরকম। জানালার বাইরে সান্দিয়া পাহাড়ের চূঁড়াগুলোকেও অন্যরকম মনে হয় এদিন। আমাকে ছাড়া কেবল অন্য একজন হাজির হল এ যাত্রায়। জন এডামস, আমার কলিগ হলেও এ লাইনে সে কাজ করছে অনেকদিন।

নিজের প্রফেশন ইলেকট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং ফেলে টেলেকমউনিকেশন লাইনের প্রথম চাকরিটা নিয়ে যেদিন এ অফিসটায় পা রাখি পুঁজি ছিল সিলিকন ভ্যালিতে নেয়া তিন সপ্তাহের একটা ট্রেনিং মাত্র। তাই ছয় ফিগার বেতনের চাকরিটা ধরে রাখতে পারবো কিনা এ নিয়ে মনে ছিল যথেষ্ট সন্দেহ। কিন্তু জন এডামসের কারণে সে সন্দেহ দূর হতে খুব একটা সময় লাগেনি। সাদা চামড়ার এমন একজন ভাল মানুষের সাথে আগে কখনো পরিচয় হয়েছিল কিনা চাইলেও মনে করতে পারিনা। বলতে গেলে নিজ হাতের নিবিড় ছোঁয়ায় গড়ে তুলেছে আমার মত বেশ কজনকে। অফিসে তাকে বলা হয় মানুষ তৈরীর কারিগর। আসলেই বোধহয় তাই। অস্বাভাবিক অমায়িক এবং কথা বলে খুব নীচু স্বরে। আমাদের লাইনে এমন কোন সমস্যা নেই যার সমাধা ওর জানা নেই। ওর একটা টেকনিক্যাল খেতাব আছে, ভার্চুয়্যাল ল্যাব! এ নিয়ে অফিসে হাসি ঠাট্টারও অভাব নেই। এক কথায়, অন্য দশটা কর্পোরেট জীবনের মত আমাদের জীবনও এখানে বেড়ে উঠে ঘাত প্রতিঘাতের মধ্য দিয়ে। প্রায় ঘন্টা দশের মত কাজ করার পর মনে হল আমি ক্লান্ত এবং এক্ষুণি ঘরে ফিরতে হবে। জনকে ফোন করে জানিয়ে দিলাম আমার সিদ্ধান্ত। উত্তরে জানাল সেও বের হচ্ছে আমার সাথে।

এলিভেটরে দেখা হল তার সাথে। প্রস্তাবটা আমিই দিলাম। ফোর্থ স্ট্রিটের কোনায় চমৎকার একটা পাব আছে, স্বল্প বসনা রমণীদের সার্ভিসে বিয়ার পান ওখানটায় সবসময়ই উপাদেয় অভিজ্ঞতা। এর আগেও দু’একবার কাজের শেষে দলবেঁধে আড্ডা দিয়েছি পাবটায়। জন রাজি হয়ে গেল। দুজনের জন্যে দু পাইন্ট ড্রাফট বিয়ার সাথে মেক্সিকান চিলি ও গোটা বিশেক ঝাল চিকেন উইং অর্ডার দিয়ে ভুলে যেতে চাইলাম কাজের ক্লান্তি। ব্যাক্তিগত ব্যাপার নিয়ে আলোচনা সাধারণত এড়িয়ে চলার চেষ্টা করি অফিসে। জনকে অনেকদিন ধরে জানলেও তার নিজের সম্পর্কে বলতে গেলে কিছুই জানা ছিলনা। ভাবছিলাম এ নিয়ে কথা বলি তার সাথে। আমাকে তা করতে হল না, জন নিজেই তার সূত্রপাত করলো। ’তুমি কি জান চাকরি ছেড়ে চলে যাচ্ছি আমি? এবং আগস্টই হবে আমার শেষ মাস।’ ভূমিকম্প হলেও এতটা চমকে উঠতাম না। প্রশ্ন না করে তাকেই বলতে দিলাম নিজের কাহিনি। অদ্ভুত সব কাহিনি বলে গেল সে। আমি শুধু হা হয়ে গিলে গেলাম। ডাক্তারের নির্দেশে চাকরী ছাড়ছে সে। ডাক্তারী ভাষায় ’পোস্ট ওয়্যার ট্রমাটিক সিনড্রোম’ রোগে আক্রান্ত সে, এবং কাজের লোড না কমালে নার্ভাস ব্রেকডাউনে চলে যেতে পারে যে কোন সময়। আমি জানতাম জন ইরাক যুদ্ধে অংশ নিয়েছিল। কিন্তু এ যুদ্ধের কোন স্থায়ী এফেক্ট তার মধ্যে বাসা বেধে আছে বলে কখনো মনে হয়নি। কথা প্রসংগে জানা গেল অফিসের লিওনার্ড, জেফ্রি, এরিক ও ডোনাল্ড‌ ওরা সবাই তার সাথে একই প্লাটুনে যুদ্ধ করেছে ইরাকে।

কম্যুনিকেশন ইঞ্জিনিয়ার হিসাবে লজিস্টিক সাপোর্ট দেয়াই ছিল তাদের মুল কাজ। কিন্তু সব বদলে দেয় ইরাকের মসুল নগরীতে এক রাতের ঘটনা। আই ই ডির (ইম্প্রোভাইজড এক্সপ্লোসিভ ডিভাইস) শিকার হয়ে প্রাণ হারায় তাদের ঘনিষ্ঠ দুই বন্ধু। ঘটনার পর হতেই শুরু হয় মানসিক বিপর্যয়। যদিও এগুলো তাদের দায়িত্বের ভেতর ছিলনা তবু তারা জড়িয়ে পরে হত্যা, গুম আর নির্যাতনের মত পশুসুলভ কাজে। এমন কি শিশু কিশোরদেরও নাকি রেহাই দেওয়া হয়নি ঐ রাতে। এক কথায় প্রতিশোধের পশুত্ব স্থায়ী আসন করে নেয় তাদের রক্তে। এর প্রতিফলন ঘটতে থাকে দৈনন্দিন কাজে। তাদের পাঁচ জনকেই অসময়ে দেশে ফেরৎ পাঠনো হয় এবং বলা হয় পশ্চিমের এ অঞ্চলের বড় একটা কোম্পানীর সাথে যোগাযোগ করতে। সে সূত্রেই পাঁচ জনের সবাই চাকরী পায় এ কোম্পানিতে। এত সূযোগ থাকতে আর্মি কোরে কেন যোগ দিল এর উত্তরে জন জানাল আরও হূদয়বিদারক কাহিনি। ছোট হতেই মা-বাবা বহু বিয়ের নদীতে ভেসে কোন বন্দরে ঠাঁই নিয়েছে তা কেউ জানতো না। মানুষ হয় দাদা-দাদীর কাছে। ড্রাগ, অ্যালকোহল আর নারীর সহচর্যে আর দশটা বখে যাওয়া আমেরিকান যুবকের মতই বেড়ে উঠে টেক্সাস অঙ্গরাজ্যের অষ্টিন শহরে। দাদা-দাদি আর কিছু না পারুক জোর করে কলেজে পাঠিয়েছিল তাকে। লেখাপড়া শেষে বিরাট অংকের দেনা কাধে নিয়ে ফিরে যায় দাদাবাড়িতে। কিন্তু তাদের অবস্থা ছিল আরও শোচনীয়, বিশেষ করে আর্থিক ভাবে। এমন প্রেক্ষাপটে সেনাবাহিনীতে যোগদান ছিল সময়ের ব্যাপার মাত্র। স্টুডেন্ট লোনের অনেকটাই বহন করে নেয় সেনাবাহিনীর ইঞ্জিনিয়ারিং কোর এবং ইরাক ডেপ্লয়মেন্ট সুযোগ এনে দেয় বেশ কিছু অতিরিক্ত পয়সা আয়ের। এ জন্যেই নাকি তার যুদ্ধে যাত্রা। দেশপ্রেমের প্রসঙ্গ টানতে তুবড়ি মেরে উড়িয়ে দিল এবং জানাল এসব নাকি তৃতীয় বিশ্বের গরিবী বাগাড়ম্বরতা। যুদ্ধের ভাল-মন্দ নিয়ে একটা শব্দও উচ্চারণ করলাম না আমি। যা বলার সেই বলে গেল। কর্পোরেট ইহুদী স্বার্থের সাথে রিপাবলিকানদের হানিমুন হতেই নাকি এ যুদ্ধের শুরু। এবং তার ভাষায়, এ যুদ্ধ চলতে থাকবে অনন্তকাল। জন জানালো, তাদের ৫ জনকে প্রায়ই কাউন্সিলিং’এ হাজির হতে হয় এবং শুনতে হয় যুদ্ধ ফেরৎ অনেক আমেরিকানের না বলা কাহিনি। গল্পের কোন ফাঁকে অর্ধ নগ্না ওয়েট্রেস বিয়ার আর খাবার দিয়ে গেল তার হুস ছিলনা। জন হঠাৎ করেই থেমে গেল এবং বেশ কিছুক্ষণ চুপচাপ রইলো। ‘ফুড ইজ গেটিং কোল্ড‌, লেটস স্টার্ট’। ’চিয়ার্স’ বলেই শুরু হল আলোচনার দ্বিতীয় পর্ব। এ পর্বে যুদ্ধের কোন ছায়া ছিলনা, ছিল বন্য আমেরিকার বন্যতায় ভরা পুরুষালী গল্প। বেলা পরে আসছিল। উঠতে হলে আমাদের। আমি দিতে চাইলেও সে মানল না। বিল দুজনে শেয়ার করে বড় ধরনের টিপস দিয়ে বেরিয়ে এলাম পাব হতে। ধন্যবাদ দিয়ে বিদায় নেয়ার আগে জন জানাল, যুদ্ধের আগে সে বিয়ে করেছিল এবং স্ত্রীকে ভীষন ভালবাসত। কিন্তু ইরাক হতে ফিরে আসার আগেই অন্য একজনের হাত ধরে তার নিজের মা-বাবার মতই ভালবাসার নদীতে নাও ভাসিয়ে নিখোঁজ হয়ে যায় তার স্ত্রী।

ফোর্থ ষ্ট্রীটের পাব হতে আমার বাসা পাঁচ ব্লক হেটে যাওয়ার রাস্তা। আমাদের অফিসটা ফিফথ ষ্ট্রীটে। প্রতিদিন চার পাঁচ ব্লক হেটে অফিসে আসা যাওয়ার ভেতর অন্যরকম একটা মাধুর্য আছে। দারুন উপভোগ করি সকালের ডাউনটাউন। ফিকে হয়ে আসা সূর্যটার তেজও নেতিয়ে গেছে ততক্ষণে। পাশের ক্যাথলিক চার্চ হতে ভেসে আসা সন্ধ্যা ছয়টার ঘন্টা জানিয়ে দিল এবার ঘরে ফেরার পালা। হাতের ব্যাগটা কাঁধে ঝুলিয়ে প্রতিদিনের মত রওয়ানা দিলাম বাসার উদ্দেশ্যে।

ফোর্থ স্ট্রীট আর সেন্ট্রালের কোণাই ওদের বাড়িঘর। অফিশিয়ালি ওরা হোমলেস। আন-অফিশিয়ালি রেড ইন্ডিয়ান, এবং মার্কিন মুলুকের আসল মালিক। প্রতিদিন একই রাস্তা মাড়ানোর কারণে একজন আরেক জনকে ভাল করেই চিনি। দেখলেই লম্বা একটা সালাম দেয় এবং হাত বাড়িয়ে দেয় কিছু সাহায্যের আশায়। অফুরন্ত সুযোগের দেশ আমেরিকায় এ ধরনের ভিক্ষাবৃত্তি আমার কাছে এক ধরণের বিলাসিতা মনে হয়। তাই কোনোদিনই কাউকে এক পয়সা দিয়েও সাহায্য করি না। আজ কি মনে করে দুটা ডলার এগিয়ে দিলাম। কোথায় যেন দায় শোধের একটা মিহি তাগাদা অনুভব করলাম। হতে পারে বিয়ারের কারণে।

সর্বহারাদের একনায়কতন্ত্র – dark side of the moon। পর্ব-

By Watchdog BD

সাল ফাল মনে রাখার ধৈর্য্য কোন কালেই ছিলনা। জীবনের কোন পর্যায়ে এ নিয়ে লেখালেখি করব তার কোন প্ল্যান না থাকায় লিখে রাখার কথাও মনে আসেনি। যে ঘটনার কথা লিখতে যাচ্ছি তার সালটাও মনে নেই। সময়টা তখন ভাঙ্গা গড়ার সময়। ঘটনার ধারাবাহিকতায় প্রতিদিন কিছু না কিছু ঘটছে। উপর হতে নির্দেশের বাণ বইছে, আর নীচে তা বাস্তবায়ন করতে হিমসিম খাচ্ছে স্থানীয় নেত্রীবৃন্দ। খবরের জোয়ারে হঠাৎ করেই মস্কো হতে খবর এলো খোদ গর্ভাচেভ আসছেন আমাদের ইউনিভার্সিটিতে। পার্টি প্রধান হওয়ার পর মস্কোর বাইরে এটাই তার প্রথম ভ্রমণ। রবোট টেকনোলজির উপর নতুন একটা ফ্যাকালটি খোলা হবে এবং তা উদ্বোধন করবেন শক্তিশালী সোভিয়েত দেশের প্রেসিডেন্ট ও পার্টির সাধারণ সম্পাদক মিখাইল সের্গেইভিচ গর্ভাচেভ। লিওনিদ ইলিচ ব্রেজেনেভের মৃত্যুর পর সোভিয়েত সাম্রাজ্যে কি ঘটতে যাচ্ছে এ নিয়ে বাইরে যতটা জল্পনা কল্পনা ছিল ভেতরের মানুষ ছিল ততটাই নির্বিকার। দিন শেষে ৩ রুবেল ১৫ কোপেকের একটা ভদকা বোতলের সহজলভ্যতা নিয়ে উদ্বিগ্ন থাকত কোটি কোটি মানুষ। সাধারণ জনগণের জন্যে রাজনীতি শব্দটা ছিল অনেকটা কালো রাতের, কালো শব্দের, কালো বন্যার মত। দেশটার ইহুদি সম্প্রদায় এ নিয়ে কিছুটা মাথা ঘামাত নিজেদের প্রয়োজনে। শেষ ঠিকানা স্বপ্নের ইসরাইলে পালানোর কায়দা কানুন আবিস্কার করতে গিয়ে রাজনীতির প্রয়োজনীয়তা দেখা দিত অনেকটা বাধ্যবাধকতা হিসাবে। বাকি কোটি কোটি মানুষের জন্যে রাজনীতি ছিল ওয়ান ম্যান শো; যথাক্রমে ব্রেজনেভ হয়ে চেরনেঙ্কো, চেরনেঙ্কো হয়ে আন্দ্রোপভ এবং আন্দ্রোপভ হয়ে গর্ভাচেভ। জোযেফ স্টালিনের আমল হতেই চলে আসছিল এ ঐতিহ্য, যা স্বগৌরবে সমুন্নত রেখে গেছেন নিকিতা ক্রুশ্চেভ। ভদ্‌কা স্টকের ওঠানামাকেই ধরা হত দেশটার রাজনৈতিক ব্যারোমিটার হিসাবে। এ ক্ষেত্রে লিওনিদ ইলিচ ব্রেজনেভ ছিলেন সর্বকালের সেরা চ্যাম্পিয়ান। তার আমলে ৪ ঘন্টা লাইন দিয়ে এক কিলো মাংস পাওয়া ছিল অনেকটা এভারেস্ট জয়ের মত। অথচ ভদকার প্রবাহ ছিল নদীর মত। খেটে খাওয়া সোভিয়েত জনগণকে কি করে খুশি রাখা যায় তা ভাল করেই জানা ছিল সর্বহারা একনায়কতন্ত্রের নায়কদের। ভদকা ছিল তার অন্যতম কার্যকরী উপাদান। দশকের পর দশক ধরে চলে আসা এই ধারায় প্রথম ধাক্কাটা আসে গর্ভাচেভের আগমনের সাথে। পেরেস্ত্রইকা আর গ্লাসনস্তের মাধ্যমে মধ্য বয়সী এই নেতা নতুন কিছু বানী পৌছানো শুরু করেন জনগণের দুয়ারে। কলকারখানা, কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়, অফিস-আদালত, হাসপাতাল জেলখানা সহ গোটা সোভিয়েত জনগণকে বলা হল পার্টি পূজায় বিরতি দিয়ে সমস্যা নিয়ে কথা বলতে। ঘুণে ধরা সোভিয়েত সমাজকে ঢেলে সাজাতে জনগণের অংশগ্রহনের প্রয়োজনীয়তার কথা এই প্রথম উচ্চারিত হয়ে সোভিয়েত দেশে। কথা বলার স্বাধীনতা নামের জিনিসটা কি সোভিয়েত জনগণ প্রায় ভুলে গিয়েছিল, তাই কোত্থেকে এর শুরু হবে তা নিয়ে শুরু হয় ব্যাপক জল্পনা কল্পনা। এমন একটা প্রেক্ষাপটে খোদ গর্বাচেভের আগমন ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করে আমাদের ক্যাম্পাসে।

সেকশন অফিসার আবুল হোসেনের হাতে নারায়ণ ধরিয়ে অথবা বিভিন্ন কমরেডদের পৃষ্ঠপোষকতায় সোভিয়েত দেশের স্কলারশীপ বাগানোর ট্রাডিশন চালু হতে তখনও বেশ কবছর বাকি। সেরা ছাত্রদের অনেকেই সাড়া দিয়েছিল মুক্তিযুদ্ধের সহযোগী সোভিয়েত দেশের আমন্ত্রণে এবং ছড়িয়ে পরেছিল রাশিয়া, ইউক্রেন, মোলদাভিয়া,বেলারুশ সহ দেশটার বিভিন্ন রাজ্যে। সদ্য স্বাধীন হওয়া বাংলাদেশি ছাত্রদের জ্ঞান ও মেধার দাপট অনুভব করতে সময় নেয়নি সোভিয়েত দেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলো। আজকের দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য ও বিনায়ক সেন ছিল সেই সোনালী সময়ের প্রতিনিধি। একাডেমিক ফলাফল ও সদ্য স্বাধীন হওয়া বন্ধু প্রতীম দেশের প্রতিনিধি হিসাবে মনে মনে আশা ছিল হয়ত দেখা হবে গর্বাচেভের সাথে। আমার নিজস্ব কিছু কথা ছিল সোভিয়েত সমাজ নিয়ে, অভিযোগ ছিল তিক্ত কিছু অভিজ্ঞতার। হেমন্তের এ সময়টা পাতা ঝরার সময় ইউরোপে। রাতারাতি রং বদলায় প্রকৃতি। আমাদের ক্যাম্পাসের ব্যাপ্তি ছিল তিন তিনটা সাবওয়ে ষ্টেশন জুড়ে। বিশাল আয়তনের এই ক্যাম্পাসকে পাতামুক্ত করার দায়িত্ব ছিল আমাদেরই। বছরের এ সময়টায় কাজটা করতে হত অনেকটা বার্ষিক রুটিন হিসাবে। এ নিয়ে কারও কোন ক্ষোভ ছিলনা। প্রেসিডেন্টের আগমন উপলক্ষে নতুন মাত্রা যোগ হয় বাৎসরিক পরিচ্ছন্নতা অভিযানে। চারদিকে উৎসবের আমেজ। হাজারও জল্পনা কল্পনা। আগমনের দিন প্রথম তুষারপাত হয় শহরে। পরিচ্ছন্নতার সব প্রচেষ্টা এক লহমায় তলিয়ে যায় বরফের নীচে। গোসল সেরে পরিচ্ছন্ন কাপড় পরে প্রয়োজনের চাইতে বেশকিছুটা আগে হাজির হই পরিচিত ক্যাম্পাসে। কিন্তু শুরুতেই বিপত্তি। আমরা যারা বিদেশি তাদের সবাইকে বলা হল কেমেস্ট্রি বিল্ডিংয়ে জমা হতে। ৭০টা দেশের প্রায় ২৫০ জন ছাত্র ছাত্রীর অধ্যয়ন আমাদের ইউনিতে। কেমেস্ট্রি বিল্ডিংয়ে জমা হয়ে ভাবলাম হয়ত গর্বাচেভ আলাদাভাবে দেখা করবেন আমাদের সাথে। সবাই আশান্বিত, উদগ্রীব। দশটার ভেতর খবর পাওয়া গেল নির্ধারিত সময়ের এক ঘন্টা আগেই এসে গেছেন তিনি। তখনই ঘটল ঘটনাটা। দালানের মূল ফটক আটকে দেয়া হল। আমরা যে রুমটায় জমা হয়েছিলাম তার দরজায় ঝুলানো হল বিশাল এক তালা। আমাদের বন্দী করা হয়েছে। একজন এসে বলে গেল যতক্ষণ গর্বাচেভ ক্যাম্পাসে আছেন কেউ বের হওয়ার চেষ্টা করলে এক কাপড়ে ফেরৎ পাঠানো হবে স্বদেশে। থ হয়ে গেল সবাই। সোভিয়েত সমাজ ব্যবস্থার আসল চেহারা নেংটা হওয়ায় অনেকের মত আমি যে খুব একটা অবাক হয়েছি বলা যাবেনা।

লিওনিদ ইলিচ ব্রেজনেভকে যেদিন দাফন করার কথা মস্কো হতে এক বড় ভাই এসেছিলেন আমাদের ডরমিটরিতে। হলের বাংলাদেশিরা মিলে আমার রুমে আড্ডা দিচ্ছি। সাথে খাওয়া দাওয়ার বাংলাদেশি আয়োজন। হঠাৎ করে দরজায় অপরিচিত নক। ইউনির যুব কম্যুনিস্ট পার্টির একটা দল ছাত্র রুমে রুমে ঘুরছে। কেন ঘুরছে কেউ জানেনা। আমার রুমে এত ছাত্র দেখে বন্য শুয়োরের মত চীৎকার করে উঠল। এন্টি সোভিয়েত একটিভিটির অভিযোগ আনল। মুখ খুলতে যাব এমন সময় এক লাথিতে ভাতের হাড়িটা উড়িয়ে দিল শূন্যে। বোবা হয়ে শুধু তাকিয়ে দেখা ছাড়া কিছুই করার ছিলনা আমাদের। মস্কো হতে বেড়াতে আসা বড় ভাইকে ধরে নিয়ে গেল খাবার টেবিল হতে । একদিন একরাত ষ্টেশনে কাটিয়ে প্রায় বিধ্বস্ত অবস্থায় তাকে ফিরতে হয় মস্কোতে। কাহিনীর কিছু অংশ শেয়ার করার ইচ্ছা ছিল গর্বাচেভের সাথে। তিনি নিজ হতে এসব জানতে আগ্রহী ছিলেন। নেতার প্রস্থান নিশ্চিত হওয়ার পর মুক্তি দেওয়া হয় সবাইকে। ততক্ষণে নেতা জেনে গেছেন একটা সুখী সমৃদ্ধ আধুনিক সোভিয়েত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সাফল্যের কাহিনী।

গর্বাচেভের সাথে দেখা হয়েছিল শেষ পর্যন্ত। তবে তা ছিল ভিন্ন প্রেক্ষাপটে। নিউ ইয়র্ক শহরের ল্যা গুয়ারডিয়া এয়ারপোর্টে। বস্টন যাচ্ছেন একাকী। ততদিনে ঢাল তলোয়ার ছাড়া নিধিরাম সর্দার বনে গেছেন তিনি। মার্কিন বিভিন্ন ইউনিভার্সিটিতে লেকচার দিয়ে জীবিকা নির্বাহ করেন। না বলা কথার অনেক গুলোই বলে ফেলেছিলাম সেদিন। পালটা মন্তব্য না করে কেবল রুশ ভাষা জ্ঞানের প্রশংসা করে বস্টন গামী প্লেনের যাত্রী হয়েছিলেন এক কালের পরাক্রমশালী এই নেতা।

উম্মতে মোহাম্মদীর একাল সেকাল by Atahar Hossayen

প্রকৃত উম্মতে মোহাম্মদী এবং পরবর্তীদের অবস্থার মধ্যে কি বিরাট একটি তফাত এসে যায়। দুটি ঘটনার মাধ্যমে আমি সেটা তুলে ধরার চেষ্টা করছি। একটি খলিফা ওমরের (রাঃ) সময়ে অন্যটা একজন উমাইয়া খলিফার সময়ে। ওমরের (রাঃ) সময়ে মিশরের শাসনকর্তা হাইয়ান ইবনে শারিহ খলিফাকে লিখলেন- আমীরুল মোমেনীন! অমুসলিমরা স্বেচ্ছায় এত সংখ্যায় ইসলাম গ্রহণ করছে যে, জিজিয়া আদায় অনেক কমে গেছে। এখন কি করা? ওমর (রাঃ) রাগান্বিত হয়ে জবাব দিলেন- জিজিয়া আদায় কমে যাচ্ছে বোলে অভিযোগ কোরতে তোমার একজন মুসলিম হিসাবে লজ্জা করলো না? তোমার মনে রাখা উচিৎ যে, রসুলুল্লাহ (দঃ) কর আদায় করার জন্য প্রেরিত হননি (সয়ুতি, ইদ্রীস আহমদ এবং decisive moments in the History of Islam- Inan)। ঠিক এমনি অভিযোগ এসেছিল একজন গভর্নরের কাছ থেকে এক উমাইয়া খলিফার কাছে। অমুসলিমরা মুসলিম হয়ে যাচ্ছে, জিজিয়া দেয়া বন্ধ হয়ে যাচ্ছে বোলে রাজকোষে সম্পদ কমে গেছে। ঐ খলিফা আদেশ দিলেন অমুসলিমদের ইসলাম গ্রহণ বন্ধ করে দাও। একই অভিযোগের দু’টি বিপরীতমুখী উত্তর। অভিযোগ শুনে ওমর (রাঃ) খুশী হয়ে ছিলেন, যদি জিজিয়া আদায় একেবারে বন্ধ হয়ে যেতো তাহলে তিনি সবচেয়ে বেশী খুশী হোতেন, কারণ তার মানে ঐ অঞ্চলের সমস্ত অমুসলিম মুসলিম হয়ে গেছে, মুসলিম উম্মাহ উদ্দেশ্য পূরণে তাদের প্রিয় নবীর (দঃ) আরদ্ধ কাজে আরও একটু অগ্রসর হয়েছে। আর ঐ উমাইয়া খলিফার সম্মুখে তখন আর সে উদ্দেশ্য নেই। তার জাতিরও সে উদ্দেশ্য নেই। উদ্দেশ্য বদলে গিয়ে হয়ে গেছে রাজত্ব ও আনুসঙ্গিক শান-শওকত। কাজেই তখন আর ঐ জাতি উম্মতে মোহাম্মদী নেই। কারণ উম্মতে মোহাম্মদীর উদ্দেশ্য ও তার পরের ঐ জাতির উদ্দেশ্য সম্পূর্ণ ভিন্ন।
ইতিহাস দেখুন, পরিষ্কার দেখতে পাবেন যে, ঐ উদ্দেশ্যচ্যুতি বা পরিবর্তন ঘটেছে ভবিষ্যতদ্রষ্টা বিশ্বনবীর (দঃ) ৬০ থেকে ৭০ বছর পর। লক্ষ্য করলে আরও একটি ব্যাপার দেখতে পাবেন। সেটা হলো রসুলাল্লাহর (দঃ) কাছ থেকে যারা সরাসরি ইসলাম শিক্ষা করেছিলেন অর্থাৎ আসহাব তারা কখনই ঐ লক্ষ্য থেকে বিচ্যুত হননি। বিচ্যুতি এলো তারা সবাই পৃথিবী থেকে চলে যাবার পর। যেহেতু উদ্দেশ্যের পরিবর্তন বা চ্যুতি হলো কাজেই ঐ জাতি আর উম্মতে মোহাম্মদী রোইলনা এবং আজ পর্য্যন্তও উম্মতে মোহাম্মদী নয়। তবে একথা মনের রাখতে হবে যে, আমি জাতি হিসাবে উম্মতে মোহাম্মদী বলছি। ৬০/৭০ বছর পর থেকে এই উম্মাহ জাতি হিসাবে উম্মতে মোহাম্মদী রইলো না কিন্তু ব্যক্তি ও দলগতভাবে অনেক লোকই রইলেন যারা ইসলামের সর্বপ্রধান লক্ষ্য ও রসুলাল্লাহর (দঃ) সুন্নাহ ভুলে গেলেন না। সাধারণ মুজাহিদ ও কিছু কিছু সেনাপতির আকীদা ঠিকই ছিলো যারা উর্দ্ধতন নেতৃত্বের আকীদা বিকৃতি সত্ত্বেও নিজেদের আকীদা ঠিক রেখে জেহাদ চালিয়ে গেলেন, যার ফলে ঐ বিকৃত আকীদার খলিফাদের সময়েও ইসলাম আরো বিস্তৃত হয়েছ। সিন্ধু বিজয়, স্পেন বিজয় ইত্যাদি অনেক বিজয়ের ঘটনা অনেক পরেও ঘটেছে। কিন্তু তা আর জাতিগতভাবে নয়। সেটা ব্যাক্তি উদ্যোগে কিংবা বড় জোর কোন নিষ্ঠাবান গভর্নরের মাধ্যমে। জাতিগতভাবে বাদশাহী শুরু হওয়ার পর থেকেই জাতিগত জেহাদ বর্জন করা হয়েছিল।

টেলিভিশনের সাম্প্রতিক টক শো গুলোতে উপস্থাপিত বিভিন্ন চিন্তাধারা বা ডিসকোর্স

মনোয়ার শামসী সাখাওয়াত

images

গত প্রায় এক বছর ধরে বাংলাদেশের বিভিন্ন টেলিভিশন চ্যানেলের টক শো গুলো বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। বিশেষ করে গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে শাহবাগে ‘গণজাগরণ মঞ্চে’র উত্থানের সময় থেকে এর শুরু। আর গত ৫ জানুয়ারীর সংসদ নির্বাচনের পটভূমিতে বাংলাদেশে যে রাজনৈতিক আন্দোলন চলেছে তার বিভিন্ন রকমের বয়ানের মধ্য দিয়ে এই টক শো গুলো দারুণ জনপ্রিয় হয়ে ওঠে। প্রিন্ট মিডিয়ার পাশাপাশি বাংলাদেশে সম্প্রতি ইলেকট্রনিক ও ডিজিটাল সামাজিক মিডিয়ার ব্যাপক বিস্তারের ফলে এটা সম্ভব হয়েছে।

সমাজের রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক ডিসকোর্স বা চিন্তাধারাগুলো এই টক শো গুলোতে নানা ভাবে উঠে এসেছে। সংবিধান এবং রাষ্ট্রীয়

আইন-কানুনের বিভিন্নমুখী ব্যাখ্যা-বিশ্লেষণ ও ভাষ্যে এই টক শো গুলো মুখর হয়ে উঠেছে। সমাজে বিদ্যমান বিভিন্ন চিন্তা-প্রণালী বা ডিসকোর্সের প্রতিফলন ঘটিয়ে নানান তর্ক-বিতর্কের জন্ম দিয়েছে এই টক শো গুলো।

টক অব দ্য টাউন এই টক শো গুলো এভাবে আমাদের জনমানসের চেতন ও অবচেতনে ব্যাপক প্রভাব ফেলছে। কাজেই আমরা এই টক শো গুলোকে নিছক বিনোদন হিসেবে দেখতে পারি না। এগুলো কীভাবে আমাদের সামষ্টিক মনঃস্তত্ত্বে এর নানাবিধ ছায়া-প্রচ্ছায়া ফেলছে তার একটি অনুসন্ধান আমাদের জন্য প্রয়োজন হয়ে পড়েছে।

প্রথম পর্যায়ে আমরা এই টক শো গুলোতে উপস্থাপিত ডিসকোর্স বা চিন্তাধারা গুলোকে আমাদের বোঝার সুবিধার্থে বিভিন্ন শাখা প্রশাখায় শ্রেণীবিন্যাস করতে পারি। দ্বিতীয় পর্যায়ে প্রত্যেকটি শাখা প্রশাখার অনুপুঙ্খ বিশ্লেষণের মাধ্যমে অনন্য বৈশিষ্ট্যসমূহ উন্মোচন করতে পারি। তৃতীয় পর্যায়ে শাখা প্রশাখা গুলোর পারস্পরিক মিল ও অমিল গুলো তুলনা করতে পারি। চতুর্থ পর্যায়ে শাখা প্রশাখা গুলোকে বিভিন্ন মানদন্ডে মূল্যায়ন ও বিচার করে কোনগুলো বেশি যৌক্তিক, সঙ্গতিপূর্ন এবং কল্যাণকর তা নির্ধারণ করতে পারি।

টক শো গুলোর এই চিন্তাধারা গুলোকে প্রথমে আমরা মোটা দাগে দু’টি শাখায় ভাগ করতে পারি। এটা আমরা করতে পারি কেবলমাত্র এগুলোকে বোঝার সুবিধার জন্য। মনে রাখতে হবে যে এই শ্রেণীবিভাগ যেন কোনোভাবে অতিসরলীকরণ হয়ে না যায়। কারণ অতিসরলীকরণ বিষয়ের বহুত্ব ও জটিলতাকে অনেক ক্ষেত্রে তরল করে পানসে করে ফেলে। তো সেই ঝুঁকি সম্পর্কে সচেতন থেকে টক শো গুলোর চিন্তাধারা গুলোকে আমরা মোটা দাগে আওয়ামী-লীগ-সরকার-সমর্থক ও আওয়ামী-লীগ-সরকার-বিরোধী – এই দু’ভাগে ভাগ করে দেখতে পারি।

আওয়ামী লীগ সরকার সমর্থক ডিসকোর্স বা চিন্তাধারা – এই শাখা ডিসকোর্সটির দু’টি প্রশাখা নিয়ে এখানে আলোচনা করছি।

  • প্রথম প্রশাখা ডিসকোর্সটি অনেকটা এরকম – বাংলাদেশকে ‘মুক্তিযুদ্ধের চেতনা’র আলোকে বিনির্মাণ করতে হবে। এজন্য ১৯৭২ এর সংবিধানে প্রত্যাবর্তন করতে হবে। ১৯৭১ সালে জামায়াত যেহেতু বাংলাদেশের স্বাধীনতার বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছিল; গণহত্যা, মানবতা বিরোধী যুদ্ধাপরাধে সহযোগিতা করেছিল; সেহেতু এদের বিচার এই মুহূর্তে সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ। এই মুহূর্তে এটাই প্রথম ও প্রধান অগ্রাধিকার। তাই অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন এই পর্যায়ে গৌণ হয়ে গেছে।

হাসানুল হক ইনু, মুনতাসীর মামুন, শাহরিয়ার কবির, মোহাম্মদ আরাফাত থেকে শুরু করে আবেদ খান, শ্যামল দত্ত, মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল প্রমুখ এই ডিসকোর্সের ধারক ও বাহক। ‘মুক্তিযুদ্ধের চেতনা’র এই বয়ানকারীরা বর্তমান রাজনৈতিক দ্বন্দ্বকে ‘মুক্তিযুদ্ধের পক্ষ ও বিপক্ষ’ শক্তির দ্বন্দ্ব হিসেবে দেখান। এমনকি পরিস্থিতি গৃহযুদ্ধে পরিণত হতে পারে বলে প্রায়ই তাঁরা আশঙ্কা প্রকাশ করেন। আসলে একথা বলে তাঁরা রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে বিশেষ করে জামায়াতকে ‘নির্মূল’ করতে চান। জামায়াতের সঙ্গে জোটবদ্ধ বিএনপির সঙ্গে সংলাপ ও সমঝোতায় এঁরা বিশ্বাসী নন। সংলাপের পূর্বশর্ত হিসেবে এঁরা বিএনপিকে জামায়াত ছাড়ার পরামর্শ দিয়ে থাকেন। প্রতিবেশী রাষ্ট্রের সহযোগিতায় এঁরা আসলে ক্ষমতাকে আঁকড়ে থাকতে চান। তাই এঁরা আসলে চরমপন্থী ‘গণতান্ত্রিক স্বৈরাচারী’ বা ফ্যাসিবাদী।

  • আওয়ামী লীগ সরকার সমর্থক ডিসকোর্সের দ্বিতীয় প্রশাখাটি হল এরকম – ‘মুক্তিযুদ্ধের চেতনা’য় বাংলাদেশ বিনির্মাণ করতে হবে। এ কারণে ১৯৭২ এর সংবিধানে ফেরত যেতে হবে। যুদ্ধাপরাধ ইস্যুতে কোনো আপোষ হবে না। জামায়াতের বিচার, শাস্তি ও নিষিদ্ধকরণে সোচ্চার ও আপোষহীন থাকতে হবে। তবে গণতন্ত্রের স্বার্থে সুষ্ঠ, গ্রহণযোগ্য ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের প্রশ্নে কোনোরকম পূর্বশর্ত ছাড়াই সংলাপ ও সমঝোতা করা যেতে পারে। আর এখানেই এই নরমপন্থী বা মধ্যপন্থী ডিসকোর্সটি প্রথম চরমপন্থী ডিসকোর্স থেকে আলাদা। ড. আকবর আলী খান, সুলতানা কামাল, সৈয়দ আবুল মকসুদ, ড. সলিমুল্লাহ খান প্রমুখ এই চিন্তা প্রশাখার প্রবল প্রবক্তা হিসেবে আবির্ভূত হয়েছেন।

যারা বাংলাদেশের ‘সুশীল সমাজে’র নেতৃস্থানীয় মুখপাত্র – যেমন ড. দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য, মাহফুজ আনাম প্রমুখেরাও মূলত এই দ্বিতীয় নরমপন্থী বা মধ্যপন্থী চিন্তা প্রশাখার অনুসারী। যদিও তাঁরা নিজেদেরকে একধরণের উন্নাসিক ‘নিরপেক্ষতা’র আবরণে আবৃত রাখতে পছন্দ করেন।

আওয়ামী লীগ সরকার বিরোধী ডিসকোর্স বা চিন্তাধারা – এই শাখা ডিসকোর্সটির তিনটি প্রশাখা নিয়ে এখানে আলোচনা করা হল।

  • আওয়ামী লীগ সরকার বিরোধী ডিসকোর্স বা চিন্তাধারার দ্বিতীয় প্রশাখাটি লক্ষ করা যায় ড. পিয়াস করিম, ড. আসিফ নজরুল, সাদেক খান, মাহফুজউল্লাহ প্রপ্রথম প্রশাখা ডিসকোর্সটি ‘মুক্তিযুদ্ধের চেতনা’র প্রচলিত বয়ানকে অসম্পূর্ণ ও বিভ্রান্তিকর বলে বিবেচনা করে থাকে। যেমন ‘বাঙালি জাতীয়তাবাদ’ ও ‘ধর্মনিরপেক্ষতা’ – এই দু’টি জাতীয় মূলনীতি সম্পর্কে এই ডিসকোর্সের রয়েছে দার্শনিক ও আদর্শিক মতভেদ। এই জাতীয় মূলনীতি দুটিকে প্রতিস্থাপন করার জন্য এঁদের রয়েছে নিজস্ব উচ্চায়ত ও শ্রেয়তর চেতনা।

এঁরা বলে থাকেন বাংলা ভাষা ও সংস্কৃতি ভিত্তিক জাতীয়তাবাদ মধ্যযুগের ধর্মান্তরের ইতিহাস, সেইসঙ্গে এদেশের ভৌগোলিক সীমানা ও বিভিন্ন ক্ষুদ্র জাতিসত্ত্বাকে নগণ্য করে যে অসম্পূর্ণ ও একপাক্ষিক বাঙালি জাতীয়তার চেতনা উপস্থাপন করেছে তা সর্বজনগ্রাহ্য ‘জাতীয়’ চেতনা হতে পারেনি। এঁরা মনে করেন যে শুধুমাত্র বাংলা ভাষা ও সংস্কৃতি ভিত্তিক জাতীয় চেতনা বর্ণবাদী ও সাম্প্রদায়িক হয়ে উঠতে পারে। অন্যদিকে এঁরা মনে করেন যে দীর্ঘ ধর্মান্তরকরণের প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে ইসলাম এই জনপদে এসেছে ও এখানে এর মূল প্রোথিত করেছে। সেই ইসলামের জাতি ও রাষ্ট্র গঠনমূলক চেতনা ধারণ করলে তা সর্বগ্রাহী হয়ে অসাম্প্রদায়িক ও পূর্ণাঙ্গ জাতীয় চেতনায় পরিণতি পেতে পারে।

এছাড়া সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলমান অধ্যুষিত রাষ্ট্রে ‘ধর্মনিরপেক্ষতা’র ধারণা একটি ফিরিঙ্গি ধারণা বলে এঁরা মনে করেন। জাতীয় মনঃস্তত্ত্বে উপনিবেশ যুগের যেসব অবশেষ চেতন ও অবচেতনে রয়ে গেছে তার একটি হল এই ‘ধর্মনিরপেক্ষতা’।

মুসলিম ঐতিহ্যে গড়ে ওঠা এই জনপদে জাতি ও রাষ্ট্র গঠনে ধর্মের নৈতিক ও আদর্শিক ভূমিকা অত্যন্ত ইতিবাচক হওয়ায় এখানে ‘ধর্মনিরপেক্ষতা’ একটি বৈরী মতাদর্শ।

আধুনিক ইউরোপে চার্চ ও রাষ্ট্রকে আলাদা করতে হয়েছিল চার্চের নিপীড়ন থেকে মুক্তি পাবার জন্যে। এছাড়া খ্রিস্টান ধর্মে সিজারের জগত ও ক্ষমতাকে ঈশ্বরের জগত ও ক্ষমতা থেকে যিশু নিজেই আলাদা করে দিয়েছিলেন। ফলে খ্রিষ্টধর্ম প্রধান ইউরোপে ‘ধর্মনিরপেক্ষতা’র জন্য একটি সহায়ক ও উপযোগী পরিবেশ বিরাজমান ছিল। অন্যদিকে মুসলিম ঐতিহ্যে ইসলামের ভূমিকা প্রথম থেকেই সর্বব্যাপী ও অখন্ডনীয়। এই কারণে ইসলামকে ইউরোপের আদলে শুধু ব্যক্তি পর্যায়ে সীমাবদ্ধ রেখে রাষ্ট্র থেকে আলাদা করা হলে তা জাতীয় চেতনায় সর্বনাশা শূন্যতার সৃষ্টি করে। জাতি ও রাষ্ট্রের নৈতিক পতন ও স্খলন ডেকে আনে। ব্যক্তি ও রাষ্ট্রের নৈতিক উৎকর্ষের উৎস ও প্রেরণা হিসেবে ইসলাম ধর্মের সর্বোচ্চ অবস্থান ও ভূমিকা মুসলিম ঐতিহ্যে স্বর্ণালী অর্জনের মধ্য দিয়ে একটি অনন্য সভ্যতার জন্ম দিয়েছিল। বাংলাদেশের জাতীয় ও রাষ্ট্রীয় চেতনায় ইসলামের সেই একই গৌরবজনক ভূমিকা আবারো সম্ভব ও অতীব কাম্য। এছাড়া ইসলাম অন্তর্নিহিতভাবে অসাম্প্রদায়িক হওয়ায় অন্যান্য ধর্ম ও জাতিসত্ত্বার অনুসারীদের অধিকার এখানে সমমর্যাদায় স্বীকৃত।

এসব বিবেচনায় ১৯৭২ এর সংবিধান মূল্যায়নে এই চিন্তাধারা একে গণ-আকাঙ্খা পরিপন্থী বলে মনে করে থাকে। চিন্তাবিদ ফরহাদ মজহার এই চিন্তাধারা বা ডিসকোর্সের প্রধান প্রবক্তা হয়ে উঠেছেন। টেলিভিশন টক শো গুলোতে এই ডিসকোর্সটিই প্রধান প্রতিষ্ঠান বিরোধী ও বিপ্লবী ডিসকোর্স। বাংলাদেশ রাষ্ট্রের বর্তমান ক্ষমতা ও চেতনা কাঠামোকে আমূল রূপান্তরে বিশ্বাসী এই বিপ্লবী ডিসকোর্সটিকে টেলিভিশন টক শো প্রথম পর্যায়ে কিছুটা সহ্য করলেও বর্তমানে তা প্রায় সম্পূর্ণভাবে অবরুদ্ধ। কেননা এই চিন্তাধারায় জামায়াতের যুদ্ধবিরোধীতার সুষ্ঠ ও স্বচ্ছ বিচার যেমন প্রত্যাশিত, তেমনি বাংলাদেশ বিনির্মাণে ইসলামপন্থী রাজনীতি ও সংস্কৃতির একটি ইতিবাচক ভূমিকা ও গুরুত্ব-ও যথাযথভাবে স্বীকৃত।

বর্তমান দক্ষিণ এশিয়ায় আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক শক্তি সমাবেশের পটভূমিতে এই ডিসকোর্স বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব সংরক্ষণে অনেক বেশী কার্যকর ও ফলপ্রসু হতে পারে বলে উপস্থাপিত হয়। ড. শাহীদুজ্জামান-ও ইদানীং এই ডিসকোর্সের একজন শক্তিমান মুখপাত্র হয়ে উঠেছেন। তিনিও ইসলামপন্থী দল ও মত নিয়ে কোনো শুচিবাই পোষন করেন না। বাস্তবতার নিরিখে ইসলামপন্থীদের অবস্থান ও ভূমিকাকে বিবেচনা ও মূল্যায়নে তিনি মুক্তমনা ও উদার।

  • আওয়ামী লীগ সরকার বিরোধী ডিসকোর্স বা চিন্তাধারার দ্বিতীয় প্রশাখাটি লক্ষ করা যায় ড. পিয়াস করিম, ড. আসিফ নজরুল, সাদেক খান, মাহফুজউল্লাহ প্রমুখের বিশ্লেষণ ও বয়ানে। ফরহাদ মজহারের চিন্তাধারার অনেক উপাদান এঁদের মধ্যে দেখা গেলেও, এঁরা উদার গণতন্ত্রের সম্ভাবনা ও ভূমিকায় অনেক বেশী আস্থাবান। নিয়মতান্ত্রিক, সাংবিধানিক আইনী কাঠামোর মধ্যেই এঁরা ভবিষ্যত বাংলাদেশকে প্রধানত দেখতে চান। তাই এঁদেরকে শেষ বিচারে সংস্কারপন্থী বা মধ্যপন্থী বলা যায়। বিপ্লবী বা আমূল পরিবর্তনপন্থী এঁরা নন। সেই বিচারে এঁরা হয়তোবা মূলধারার মুখপাত্র। তাই এঁরা বৃহত্তর সমাজে অনেক বেশী গ্রহণযোগ্য ও সহনীয়। এবং এই কারণে উপরোক্ত বিপ্লবী ডিসকোর্সের চাইতে এঁদের নরমপন্থী বা মধ্যপন্থী ডিসকোর্স টেলিভিশন টক শো গুলোতে তুলনামূলকভাবে অনেক বেশী স্থান পায়।

  • এবার আলোচনা করবো এই ধারার তৃতীয় প্রশাখাটি নিয়ে। এই প্রশাখার ধারক ও বাহক নূরুল কবির টেলিভিশন টক শো-র একজন অনন্য তারকা হয়ে উঠেছেন। তাঁকে উপরে উল্লেখিত কোনো শাখা প্রশাখাতেই সম্পূর্ণভাবে বিরাজ করতে দেখা যায় না। তিনি এবং আনু মুহাম্মদ হয়তোবা এখনো ক্লাসিকাল কমিউনিস্ট। তবে এঁরা সিপিবি বা বাসদ মার্কা বামপন্থী, যেমন মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম বা খালেকুজ্জামান ভূইয়া-দের চেয়ে অনেকাংশে ভিন্ন প্রকৃতির। সেলিম বা ভূইয়া-রা শেষ পর্যন্ত জামায়াত বিরোধীতার জোশে ফ্যাসিবাদী আওয়ামী লীগে বিলীন হয়ে যান। জামায়াত বিরোধীতায় নূরুল কবির ও আনু মুহাম্মদ-ও সোচ্চার ও আপোষহীন। তবে এটা করতে গিয়ে তাঁরা ফ্যাসিবাদের সঙ্গে মিশে যান না। এখানেই তাঁরা অন্য সবার চাইতে আলাদা। এছাড়া নূরুল কবির ‘সুশীল সমাজ’ ও সেনা-সমর্থিত এক এগারো সরকারের-ও ঘোর সমালোচক ছিলেন। আর আনু মুহাম্মদ জাতীয় সম্পদ রক্ষার আন্দোলনে নেতৃত্ব দিয়ে তাঁর চিন্তা ও মতাদর্শের প্রয়োগ করে যাচ্ছেন। এই দিক দিয়ে তাঁর চিন্তা ও কাজের মধ্যে সম্পূর্ণ মিল রয়েছে। তবে নূরুল কবিরের সর্বব্যাপী সমালোচনা শেষ পর্যন্ত কোথায় গিয়ে দাঁড়ায় তা সর্বদা স্পষ্ট নয়। তাঁর সর্বব্যাপী প্রতিষ্ঠান বিরোধী সমালোচনার পাশাপাশি তিনি যদি তাঁর ইতিবাচক চিন্তার রূপরেখাটি উপস্থাপন করেন তাহলে তাঁর ভক্তেরা আরও ভালো করে তাঁকে বুঝতে ও অনুসরণ করতে পারবে।

টেলিভিশনের টক শো গুলোতে যেসব ডিসকোর্স সম্প্রতি আমরা লক্ষ করছি সেগুলোর শ্রেণীবিন্যাস ও অনুধাবনে এই প্রাথমিক প্রচেষ্টাটি নিবেদিত হল। এটি সম্পূর্ণভাবে করা গেছে, বা সকল চিন্তাধারা বা ডিসকোর্স গুলোকে এখানে চিহ্নিত করা গেছে – সেই দাবী নিশ্চয়ই করা ঠিক হবে না। তবে এই পদ্ধতিগত শ্রেণীকরণ ও মূল্যায়নের ধারাটি অব্যাহত থাকবে বলে আশা করা যায়। আরো অনেকে এক্ষেত্রে এগিয়ে আসবেন বলে আমরা প্রত্যাশা করি। কারণ আমাদের জনমানস ও সামষ্টিক মনঃস্তত্ত্ব গঠনে ইলেকট্রনিক ও ডিজিটাল সামাজিক মিডিয়ার এই ডিসকোর্স গুলোর রয়েছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব ও অপরিসীম ভূমিকা।


লেখক পরিচিতিঃ মনোয়ার শামসী সাখাওয়াত। ঢাকার ইংরেজী মাধ্যম স্কুল স্কলাসটিকায় কারিকুলাম বিশেষজ্ঞ হিসেবে কর্মরত। তাঁর ইংরেজী ভাষায় রচিত ‘ডিসকভারিং বাংলাদেশ’ নামক একটি বাংলাদেশ স্টাডিজ বিষয়ক গ্রন্থমালা বিভিন্ন ইংরেজী মাধ্যম স্কুলে পাঠ্যবই হিসেবে প্রচলিত। তিনি সমকালীন জাতীয় ও আন্তর্জাতিক রাজনীতি ও শিল্প-সংস্কৃতির একজন নিবিড় পর্যবেক্ষক ও বিশ্লেষক।

ই-মেইলঃ manwar.shamsi@gmail.com

সত্যের অনুসন্ধান by মুহাম্মদ আব্দুল খালিক

বর্তমানকালে কোন কোন দার্শনিক মত পোষণ করেন যে, Absolute truth বা প্রকৃত সত্য বলে কিছু নেই। এখন যা সত্য বলে অনুভূত হচ্ছে কালের বিবর্তনে তা আর সত্য নাও থাকতে পারে। এখন প্রশ্নমানুষ কি এতই সীমিত জ্ঞানের অধিকারী? সৃষ্টি লগ্ন থেকে মানুষ কি প্রতিনিয়ত অনিশ্চিতভাবে জীবনযাপন করছে? প্রাকৃতিক বিধিবিধান (Natural law) কি মানুষকে কোন নির্দেশনাই দেয় না? সভ্যতার বাহ্যিক চাকচিক্য, মানুষের উন্নতি সভ্যতার শীর্ষে আরোহণের সব লম্ফঝম্ফ কি সবই মেকি? মানুষের দ্বারা জ্ঞানের এত শাখাপ্রশাখার বিকাশ কি মানুষকে নিশ্চিত কোন জ্ঞান দিতে সক্ষম নয়?

বিজ্ঞানীরা বলছেন, বর্তমান সময়ে মানুষ তার মস্তিষ্কের সর্বোচ্চ ক্ষমতা ব্যবহার করছে এবং এর বেশি ব্যবহার করতে গেলে মানুষের মানসিক অবসাদ বাড়বে, বেড়ে যাবে মানসিক রোগাক্রান্ত মানুষের সংখ্যাও। প্রশ্ন হচ্ছে, মানুষ তার মস্তিষ্কের সর্বোচ্চ ক্ষমতা ব্যবহার করার পরও কি কোন প্রকৃত সত্য খোঁজে পেল না? এসব প্রশ্নের উত্তর খোঁজলে তাদের দেয়া Principle-এর দূর্বলতা পরিলক্ষিত হবে।

প্রকৃত সত্য অবশ্যই আছে। সৃষ্টি লগ্ন থেকে প্রাকৃতিক আইন (Natural law) একটাই আছে। আর তাই মানুষের পক্ষেও খোঁজে পাওয়া সম্ভব প্রকৃত সত্যের। তবে এজন্য প্রয়োজননিরপেক্ষ পর্যবেক্ষণ, সত্যানুসন্ধানের সদিচ্ছা, প্রত্যয়, আর সর্বোপরি ভোগবাদী মানসিকতা পরিহার।

একজন মানুষের চিন্তা বুদ্ধির পরিপক্বতা আসার পর প্রথম এবং তার জীবনের সবচাইতে বড় যে দায়িত্ব তার কাঁধে চাপে তা হলোসত্যের অনুসন্ধান। বিশ্বজগ কিভাবে সৃষ্টি হলো? কে এটা সৃষ্টি করেছে? নাকি আদৌ কেউ করেনি? মানুষের জীবন চলার পাথেয় কী হওয়া উচিত? কোন আদর্শ অনুসারে মানুষের জীবন পরিচালিত হবে? মানুষ কি নিছক প্রাণসর্বস্ব জীব? নাকি নৈতিক মানসম্পন্ন উন্নত জীব? মানুষের বাহিরের সত্ত্বার গুরুত্ব বেশি নাকি ভেতরের সত্ত্বার? পৃথিবীতে মানুষ কি “survival for the fittest” নীতিতে চলবে? নাকি পারস্পরিক সহযোগিতা, ভ্রাতৃত্ব সাম্যের নীতি অনুসরণ করবে? মানুষ কি পশুদের মত অবাধে যৌনাচার করবে? নাকি নৈতিক সীমাবদ্ধতার নীতি মেনে চলবে? মানুষ কি শুধু নিজের স্বার্থ উদ্ধারেই ব্রত থেকে বৈধঅবৈধ পথে টাকাপয়সা সম্পদ উপার্জন করবে? নাকি সুষম বন্টনের নীতি অনুসরণ করবে? এসব প্রশ্নের উত্তর খোঁজা খোঁজে পাওয়া প্রত্যেক মানুষের জন্য আবশ্যক।

দু:খের বিষয় হলোবিশ্বের বেশির ভাগ মানুষই এসব সম্পর্কে নিস্পৃহ। তারা গড্ডলিকা প্রবাহে গা ভাসিয়ে দিয়েছে। সারা বিশ্বে হাতে গোনা কিছু মানুষের ইচ্ছা, চিন্তা মতবাদের কাছে তারা নিজেদের সত্ত্বাকে সপেঁ দিয়েছে। নেতাদের বক্তৃতা আলোচনা, অন্যের লেখনী এবং মিডিয়ার প্রচারণার মাধ্যমে তারা উদ্বুদ্ধ হয়ে জীবন চালনা করে থাকে।

বেশির ভাগ মানুষই প্রকৃত সদিচ্ছা নিয়ে জীবন চালনার মূলমন্ত্র খোঁজার জন্য সত্যানুসন্ধানী হওয়ার তাগিদ অনুভব করে না। নিজেদের ঘৃণ্য স্বার্থ চিন্তায় তারা এতই মত্ত থাকে যে, হিতাহিত জ্ঞান শূন্য হয়ে পড়ে। নিজেদের স্বার্থদ্ধোরে অন্যের অনিষ্ট সাধন করতেও পিছপা হয় না।

সত্যানুসন্ধানে এই অবহেলা নিস্পৃহতা মানুষের জন্য কোন কল্যাণ বয়ে নিয়ে আসেনি। মানুষ নিজেকে জড়িয়ে ফেলেছে প্রত্যক্ষ পরোক্ষ পরাধীনতার বন্ধনে, দাসত্বের নিগড়ে। মানুষের অসচেতনতার সুযোগে রাষ্ট্রযন্ত্র আজ এমন এক ভয়ানক অক্টোপাসে পরিণত হয়েছে, যা গুটিকয়েক অস স্বেচ্ছাচারী সম্পদশালী এবং ভ্রান্ত লোকদের দ্বারা পরিচালিত হচ্ছে।

বর্তমানকালে রাষ্ট্র এমন এক দানবীয় শক্তি যা মানুষের কন্ঠ রোধ করে থাকে নির্যাতনের স্টিমরোলার চালিয়ে। কিন্তু সকল মানুষ যদি সত্য অন্বেষণে নিজেকে নিয়োজিত রাখত তাহলে রাষ্ট্রযন্ত্র ব্যবহৃত হতে পারত মানুষের প্রকৃত মঙ্গলের কাজে, কল্যাণ রাষ্ট্র (Welfare state) হিসেবে।

আমাদের জীবনকে সত্যিকারার্থে সুন্দর সফল করতে; আমাদের সমাজকে শান্তি, প্রগতি, আর ভ্রাতৃত্ব ভালোবাসার বন্ধনে আরো সুদৃঢ় করতে; মানবতার কাঙ্খিত বিজয়কে ত্বরান্বিত করতে সত্যের সত্যিকার অনুসন্ধানই হোক সকলের ব্রতী।

 

লেখক: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে এলএলএম অধ্যয়নরত

শেখ মুজিবের প্রেতাত্মারা ঘুরে বেড়ায়…

by  WatchDog Bd

বোধহয় ১৯৭৩ সালেই বুঝতে পেরেছিলেন। যে বিশাল জনসমর্থন আর ভালবাসা নিয়ে দেশের মাটিতে পা রেখেছিলেন তা ফিকে হয়ে আসছে। রাজনীতির মাঠ এবং সংসদ কোন ফ্রন্টেই স্বস্তিতে ছিলেন না। একদিকে মাওলানা, অন্যদিকে ইনু, মিনু, রব, মতিয়াদের রণহুংকার, পাশাপাশি গাজী গোলাম মোস্তফার ঔরসে জন্ম নেয়া চাটা আর লুটেরার দল, কোনটারই সুরাহা করতে পারেননি তিনি। হয়ত খুব তাড়াতাড়ি বুঝে গিয়েছিলেন অঙ্গুলি হেলনে জাতিকে নাচানো আর ক্ষমতার মসনদে বসে দেশ চালানো এক জিনিস নয়। ৭৪ সালের শুরুর দিকে বুঝাই যেত না দেশে কোন প্রশাসন আছে। পরাধীন জাতি হিসাবে এ দেশের মানুষ যা দেখেনি তাই দেখতে শুরু করল স্বাধীনতার উষালগ্নে। হত্যা, গুম, খুন আর লাশের মিছিল। শতকার ৯৯ ভাগ জনসমর্থন হয়ত ৮০-৮৫ ভাগে নেমে এসেছিল। তিনি সহজ ভাবে নিতে পারেননি নিম্নমুখী এই যাত্রা। আজকের জাদরেল মন্ত্রী তোফায়েল আহমদের হাতে ধরেই রচিত হয় কলঙ্কিত অধ্যায়ের সূচনার পর্ব। অভ্যুদয় হয় নতুন এক বাহিনী…রক্ষীবাহিনী। কন্যা হাসিনার মত বাবা শেখ মুজিবও রাতের অন্ধকারে পাঠাতেন তাদের। মধ্যরাত অথবা শেষরাতের দিকে দরজায় কড়া নাড়ত। খুলতে দেরি হলে হায়েনার উন্মত্ততায় ঝাঁপিয়ে পরত। পরের ইতিহাস জানতে খুব গভীরে যেতে হবেনা আমাদের। আজকের শেখ হাসিনা উনার বাবারই কার্বন কপি। বুক হতে সন্তানকে নামিয়ে ওরা চোখ বেধে গাড়িতে উঠাত। তারপর মিলিয়ে যেত রাতের অন্ধকারে। পরদিন বেওয়ারিশ লাশের তালিকায় যুক্ত হত নতুন একটা লাশ। উচ্ছিষ্ট খোর বুদ্ধিপ্রতিবন্ধীর দল বলতো, ওহ! উনি তো সবার পিতা, তাই একটু শাসন করছেন মাত্র। কিন্তু হায়, এ শাসন বুক খালি করে দিত হাজারো মায়ের। স্ত্রীকে করতো স্বামীহারা, পিতাকে করতো সন্তানহারা। আজকের মত সেদিনও কাউকে কাঁদতে দেয়া হতোনা। পিতার থানা-পুলিশ সন্তানদের জন্য ছিল নিষিদ্ধ। ৭৫’এর শুরুর দিকে জাতি হঠাৎ করেই বোবা বনে যায়। অনিশ্চিত স্তব্ধতায় থেমে যায় জনজীবন। ততদিনে দল হিসাবে আওয়ামী লীগকে ইস্যু করা হয়ে গেছে জাতি ধর্ষনের স্থায়ী লাইসেন্স । তাও সেই পিতার হাত ধরেই। কন্যা শেখ হাসিনার মতই সমালোচনা হজম করার উদর নিয়ে জন্ম নেননি পিতা শেখ মুজিব। কলমের এক খোঁচায় গোটা দেশ হজম করার আইন করেছিলেন। বুদ্ধিপ্রতিবন্ধীদের মুখে এবার বেজে উঠে নতুন সুর, আহ! এ যে সমাজতন্ত্রের লাল সূর্য!

পচাত্তরের হত্যাকারীরা অন্তত একটা উপকার করে দিয়ে গেছে শেখ পরিবারের জন্য। একজন ব্যর্থ সরকার ও রাষ্ট্রপ্রধানকে অমর করে দিয়ে গেছে চিরদিনের জন্য। বাকশাল নিয়ে পিতা শেখ মুজিব যে পথে হাঁটা শুরু করেছিলেন তার শেষ গন্তব্য ছিল ভাগার। যারা বিস্তারিত জানতে আগ্রহী তাদের জিম্বাবুয়ের এক কালের পিতা ও বর্তমান প্রেসিডেন্ট রবার্ট মুগাবের জীবন কাহিনী পরে দেখার অনুরোধ করবো।
http://www.amibangladeshi.org/blog/01-22-2014/1440.html

ফাঁসি,পাকিস্তানফোবিয়া ও বাংলাদেশের সঙ্কট

2

রেজাউল করিম রনি

It is crucial to address the issue on these three distinctive levels, which are the exploitation, politicization and institutionalization of Islamophobia at various levels. In the present globalized world, peaceful and harmonious coexistence among diverse religions and cultures is not an option but the only means to enduring human cohabitation. The objective of the protagonists of Islamophobia is none other than to create division between the West and theMuslim World.

[SIXTH OIC OBSERVATORY REPORT ON ISLAMOPHOBIA October 2012 – September 2013]

noose

আমার ঘরের চাবি পরের হাতে

সাম্প্রতিক সময়ের কূটনৈতিক ঝগড়া এমনভাবে উদাম হয়েছে যে, রাজনীতির ব্যাপারে একদম উদাসীন গৃহবধূরাও জানেন, আমাদের কোনো সংকটের সমাধান দেশের রাজনীতিবিদদের মর্জির ওপর নির্ভর করে না। মার্কিন ও ভারতের পররাষ্ট্র-লড়াই এমন পর্যায়ে পৌছেছে যে, একে কেন্দ্র করে বাংলাদেশ প্রশ্নে এক দিকে ভারত অন্যদিকে গোটা পশ্চিমা বিশ্ব। আর এর মধ্যে সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য বা লক্ষ্য করবার বিষয় হল, এই প্রথম পাকিস্তান সরব ভূমিকায় হাজির হয়েছে। পাকিস্তান দক্ষিণ এশিয়ায় এখন পর্যন্ত মার্কিন নীতির সবচেয়ে অনুগত বন্ধু। এই আনুগত্যই ধর্মযুদ্ধের সম্ভাবনাকে পাঁকিয়ে তুলতে সাহায্য করবে। কিভাবে সেটা ঘটবে আমরা জানি না। আমরা কেবল কয়েকটি লক্ষণ পর্যালোচনা করতে পারি।

ফাঁসির ব্যাপারটা বাংলাদেশের মানুষের মধ্যে একটা চাপা অস্বস্তির জন্ম দিয়েছে। অপরাধীর বিচার হবে-এটা নিয়ে বাংলাদেশের মানুষ কোনো আপত্তি কখনও করেনি। আপত্তিটা উঠেছে মূলত গণআকাঙ্খার সাথে সরকারের কৌশলী আচরণকে কেন্দ্র করে। বিচারের প্রক্রিয়ার মধ্যে শুরু থেকে একটা রাজনৈতিক উদ্দেশ্য আন্দাজ করা যাচ্ছিল। নির্বাচনের সব রকম প্রতিবন্ধকতা পেরিয়ে তথাকথিত সাংবিধানিক নিয়মে আওয়ামী লীগ যেভাবে ক্ষমতালিপ্সার নজিরবিহীন রাজনীতি শুরু করেছে, তাতে বিচারপ্রক্রিয়া রাজনৈতিক উদ্দেশ্যের কালিমা এড়াতে পারেনি।

জামায়াত স্বাভাবিকভাবেই এটাকে জুডিশিয়াল কিলিং আখ্যায়িত করে ব্যাপক সহিংসতার পথ ধরে। ফাঁসির পরে সারা দেশে যেন লাশের উৎসব শুরু হয়। সরকারী বাহিনী দেশের বিভিন্ন অংশে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সাথে নির্মূলের রাজনীতি বাস্তবায়ন করতে নেমে পড়েছে তা দেশবাসীকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার প্রতি ভীত-সন্ত্রস্ত করে তুলেছে। পাল্টা আক্রমণের কৌশল দেখে স্পষ্টতই মানুষ বুঝে গেছে দেশে শুরু হয়েছে গৃহযুদ্ধ। এই অবস্থায় কোনোকিছু নির্বিকারভাবে পর্যালোচনার স্থিতিশীলতাও আমরা হারিয়ে ফেলেছি। যথারীতি শাহবাগ আগের ভূমিকায় আবার ফিরে এসেছে। কিন্তু এবারের ফিরে আসাটা আরও ভয়ানক পরিস্থিতির দিকে আমাদের নিয়ে যাবে। এই দিকটি নিয়ে আমরা কিছু কথা বলব আজকে।

বাংলাদেশ কিম্বা বর্তমান বিশ্বের কেউ আর ‘৭১ সালের বাস্তবতায় নেই। কিন্তু তাই বলে ‘৭১-এর মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচার করা যাবে না তা কোনোমতেই গ্রহণযোগ্য হতে পারে না। বিচার আমরা চাই। বিচার হতে হবে। কিন্তু সেটা বিচারই হতে হবে। কোনো প্রেশার গ্রুপকে সংযুক্ত করে বিচার নিয়ে রাজনীতি হলে সেটা হয় মুক্তিযুদ্ধের চেতনার সাথে বেইমানি। এতে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার সীমাহীন সম্ভাবনা চিরতরে বিনষ্ট হয়। জাতি বিভক্ত হয়ে পড়ে চলমান রাজনৈতিক ক্ষমতার হিংসার আলোকে। ফলে জাতীয় চেতনার নামে একতরফা জবরদস্তি বা যেটাকে আমরা ফ্যাসিবাদ বলে জানি তা হাজির হয়। এর মধ্যে কোনো ইসলামী দলের নেতাকে ফাঁসি দিয়ে চেতনার জোয়ার তুলে ক্ষমতার রাজনীতি যে বিভাজন তৈরি করে তা ধর্মযুদ্ধের পরিবেশ প্রস্তুত করে দেয়। তখন মুখোমুখি দাঁড়ায় ইসলাম ও জাতীয় চেতনা।

কিন্তু এটা এত সরলভাবে ঘটলে আতংকিত হওয়ার মহান কোনো কারণ ছিল না! ব্যাপারটা আমদের নিজেদের দেশের মধ্যে সীমাবদ্ধ নাই। মার্কিন রাজনীতির ছক অনুযায়ী আমরা যদি ব্যাপারটা খেয়াল করি তাইলে পরস্থিতি যা ইঙ্গিত করে তাতে আঁতকে না উঠে উপায় নাই।

আমরা দেখেছি, ওয়ার অন টেররের প্রজেক্টে দক্ষিণ এশিয়ায় মার্কিন ইন্টারভেনশন হয় ইসলামপন্থি জাতীয়তাবাদীদের কাজে লাগিয়ে। সরকারের ফ্যাসিবাদি আচরণের কারণে সাংবিধানিকভাবে ক্ষমতার রাজনীতি করা একটি দলকে নির্মূল করবার কারণে সমাজে একটা বদ্ধ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। বিরোধী দলকে তুরুপের তাসের মত উড়িয়ে দিচ্ছে লীগ সরকার। এই জবরদস্তিতে কৌশলে সেনাবাহিনীকেও যুক্ত করা হয়েছে। সেনাবাহিনীর সৈনিক মর্যাদার ব্যাপারে বাংলাদেশের মানুষ বরাবরই সতর্ক। কিন্তু এখকার সেনাবাহিনীর পুলিশি ভুমিকা সেনার ইজ্জতের দিক থেকে যেমন হুমকি, তেমনি জনমানুষ এই সেনাকে সরকারের খেয়ালখুশির পুতুল বলে মনে করবে। দেশের মানুষ সেনাবাহিনীর এই ভূমিকায় আহত বোধ করবে সন্দেহ নাই।

এই অবস্থায় পাল্টা প্রতিরোধ যেটা গড়ে উঠবে বা যারা নিজেদের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখতে লড়াইয়ে শামিল হবে সেটা কোনো না কোনো ভাবে ইসলামী শক্তি। তার নাম যাই হোক তার সাথে ইসলামের কোনো না কোনো যোগ আছে। এই ধারার ইসলামী আন্দোলন যেন মার্কিন আধিপত্যকে কোনোভাবেই হাল্কা করতে না পারে তার জন্য ৯/১১-এর পরে আমেরিকা একটা প্রকল্প চালু করে এর নাম ‘র‍্যান্ড’ প্রজেক্ট। এতে সালাফিস্ট ধারাকে উৎসাহিত করা হলেও মূলত প্রাধান্য দেয়া হয় পশ্চিমা ধাচের গণতন্ত্র মেনে যেন মুসলিম দেশগুলো একটা আধুনিকতাবাদি পুঁজিবাদের অনুকূলে রাষ্ট্রকাঠামো দাঁড় করাতে পারে।

সেই লক্ষ্যে বিভিন্ন এনজিওগুলোকে ব্যাপক তহবিল সবারহ করা হয়। এর টেস্ট কেইস আকারে ঘটানো হয় আরব স্প্রিং। বলাই বাহুল্য এই  ‘র‍্যান্ড’ প্রকল্প ধূলিস্যাৎ হয়ে গেছে। আরব স্প্রিং আধুনিকতাবাদি পথ ধরে মুসলিম দেশগুলোকে পরিচালনার কাজে হাত না নিয়ে সেখানে বরং বিভিন্ন জেহাদি গ্রুপ শক্তিশালী ভিত গড়ে তুলতে সক্ষম হয়েছে। এটা উল্টা ফল ফলেছে।

শুরুতে অনেকে শাহবাগকে ‘র‍্যান্ড’ প্রজেক্টের সাথে যুক্ত বলে অনুমান করেছিলেন। কিন্তু কিছুদিন যেতেই পরিষ্কার হল, এই অনুমানের কোন ভিত্তি নাই। বরং গেইমটা উল্টা দিক থেকে দেখা যেতে পারে। শাহবাগ না এখন বিবেচনায় চলে আসবে শাপলা। অবশ্যই অগ্রভাগে থাকবে জামায়াত। যদিও আমরা জানি, জামায়াত আর হেফাজত এক না। কিন্তু আদর্শের দ্বন্দ্ব আর লড়াইয়ের মাঠ এক না -এটাও আমরা জানি। কিন্তু কোনো মার্কিন ছক হুবহু কাজে আসবে না তা আমরা নিশ্চিত করে বলতে পারি। কারণ অলরেডি জিহাদি সংগঠন তালেবান গণজাগরণকে থ্রেট করে বসেছে। সাম্প্রতিক এক ভিডিও ভাষণে আলকায়েদা প্রধান আইমান আল জাওয়াহিরী বাংলাদেশ নিয়ে বক্তব্য দিয়েছেন। এই ঘটনা অবশ্যই অতি গুরুত্বের সাথে আমাদের আমলে নিতে হবে। তিনি সেখানে বলছেন, “বাংলাদেশের মাটিতে ইসলামের বিরুদ্ধে সরাসরি যুদ্ধ শুরু হয়েছে, সেখানে সরকার আলেমদের শহীদ করছে, তাদেরকে জেলে বন্দী করে রাখছে, নবী করিমকে (সা.) নিয়ে কটুক্তিকারীদের প্রশ্রয় দিচ্ছে, হাজার হাজার সাধারণ মুসলমানদেরকে শহীদ করা হচ্ছে।’’ [http://www.youtube.com/watch?v=2CryRD4OTb8]

ফলে  ‘র‍্যান্ড’ প্রজেক্ট এর মতো কোনোকিছু বাংলাদেশে করা সম্ভব হবে বলে মনে হয় না। তবে এই বিষয়ে আগাম কথা বলার কিছু নাই। মাঠের লড়াই তো আর সবসময় বইয়ে ত্তত্ব মেনে হয় না। গ্র্যান্ড ডিজাইনের সাথে পরিচয় থাকাটাই আমাদের জন্য প্রাথমিক কাজ। এই প্রজেক্ট যে কোনো কাজে আসবে না তা আল-জাজিরার সাথে এক সাক্ষাৎকারে ইউসুফ আল কারযাভী পরিষ্কারভাবে বলে দেন, “আমেরিকা তার সুবিধার জন্য একটা ইসলাম চায়। কিন্তু সেটা আর ইসলাম হবে না। সেটা হবে আমেরিকান ইসলাম।”

তিনি আরও বলেন, চরমপন্থা ৯/১১-র ঘটনার আগে থেকেই ছিল এবং ভবিষ্যতেও থাকবে। চরমপন্থীরা সর্বত্র ছড়িয়ে আছে। শুধু মুসলমানদের মধ্যে চরমপন্থা আছে, এটা মোটেও ঠিক নয়। চরমপন্থীরা ইহুদীদের মধ্যেও আছে। চরমপন্থীরা রবিনকে হত্যা করেছে। চরমপন্থার আরো বড় বড় উদাহরণ রয়েছে। যেমন, যুক্তরাষ্ট্রের ওকলাহোমা দুর্ঘটনা। ব্রিটেন, জাপান, ভারতসহ দেশে দেশে চরমপন্থীরা রয়েছে। তাহলে কেন মূলত ইসলামের সাথে চরমপন্থা ও সহিংসতার অপবাদ জুড়ে দেয়া হচ্ছে? এটি ভয়াবহ অবিচার” [আল-কারযাভী: আল-জাজিরা,বিন কিন্নাহ-এর সাথে আলাপ]

সেই দিক থেকে বিচার করলে বাংলাদেশের ব্যাপারে একটা নীতিগত অবস্থান আমেরিকার আছে। এটা বোঝা যায়, জামায়াতের সাথে তাঁদের সম্পর্কের ধরণ দেখলে। সাম্প্রতিক সময়ে হেফাজতের উত্থান এই সম্পর্কের ধরণে নতুন ডাইমেনশান তৈরি করেছে। ফলে বাংলাদেশের ইসলাম যখন রাজনৈতিক ময়দানে হাজির এবং গৃহযুদ্ধের অবস্থা বিরাজ করছে, এই অবস্থায় সাম্রাজ্যবাদের নীতি আমাদের ছেড়ে দিবে না তা হলফ করে বলতে পারি।

ইতিমধ্যে ২৫ নভেম্বরে তফসিল ঘোষণার পর থেকে ১১৫ জন নিহত হয়েছে। এদের বেশিরভাগ জামায়াত-বিএনপির রাজনীতির সাথে জড়িত। অন্যদিকে বাংলাদেশে ইসলামের কোনো ধরণের জাগরণ হলে এর প্রভাব পড়বে গোটা বিশ্ব-ব্যবস্থায়। সবচেয়ে হুমকিতে পড়বে ভারত। আমেরিকা ৯/১১ এর পরে মুসলমানদের ব্যাপারে কোনো একতরফা বিবেচনা আর বজায় রাখেনি। ইসলামের সেকুলার ধারাকে ক্ষমতার রাজনীতে সে বরাবরই উৎসাহিত করে আসছে। এখন কী ভুমিকা নেবে তা দেখবার জন্য আমাদের অপেক্ষা করতে হবে। তবে, বলা যায় দুইটা অপশন সামনে আছে, এক.হাসিনাকে যে কোন মূল্যে ক্ষমতা ছাড়তে বাধ্য করা এবং বিএনপি-জামায়াত জোটকে নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতায় ফিরিয়ে আনা। ২. শেখ হাসিনা যদি নির্মূলের পথ থেকে সরে না আসে তাহলে যে ইসলামী জাগরণের সৃষ্টি হবে তার সুযোগে ওয়ার আন টেররের প্রকল্পের আদলে বাংলাদেশে মার্কিন খবরদারি বৈধ করা। প্রথম সমাধানের দিকে এখনও পশ্চিমা দেশগুলো বেশি মনযোগী।

আর দ্বিতীয় ধাপটি চূড়ান্ত অ্যাকশন হিসেবে বিবেচনায় আসবে। কিন্তু কোনোভাবেই ভারতের হাতে দক্ষিণ এশিয়ার খবরদারি দেয়া যাবে না। ভারতের ব্যাপারে কঠোর মার্কিন মনোভাব পরিষ্কার হয়ে গেছে। দেবযানীকে উলঙ্গ (স্টিভ সার্চ) করা নিয়ে ভারতের প্রতিবাদের প্রতি ভ্রক্ষেপ করেনি আমেরিকা। ভারতের সব আপত্তি উড়িয়ে দিয়েছে। মার্কিনীদের এই কঠোর অবস্থান অনেককে অবাক করেছে। কিন্তু তাঁদের পররাষ্ট্রনীতির বৈশিষ্ট্যের দিকে তাকালে বিষয়টাকে আর অস্বাভাবিক মনে হবে না। বিখ্যাত মার্কিন পররাষ্ট্র ব্যাক্তিত্ব হেনরি কিসিঞ্জার তাঁর সুবিদিত ডিপ্লোমেসি বইতে বলেন, “Almost as if according to some natural law, in every centuty there seems to emerge a country with the power, the will, and the intellectual and moral impetus to shape the entire international sestem in accordance with its own values.”

[The New world Order, DIPLOMACY; Henry Kissinger: SIMON&SCHUSTER PAPERBACKS, NEWYORK edition]

এই শতাব্দী মার্কিন আধিপত্যের শতাব্দী এটা তাঁরা প্রাকৃতিক নিয়মের মতোই মনে করে। বলাই বাহুল্য এই শিক্ষা ইউরোসেন্ট্রিক শিক্ষা। পরে কিসিঞ্জার ইউরোপের অন্য দেশগুলোর আধিপত্যের ফিরিস্তি হাজির করে এখনকার মার্কিন আধিপত্য যে গোটা বিশ্বব্যবস্থার জন্য খুব স্বাভাবিক -এই আলোচনা করেন। এই সাম্রাজ্যিক বাসনার দিকে যদি আমরা খেয়াল রাখি তাহলে আমরা সহজেই বুঝতে পারব আগামী দিনে আমাদের সামনে যে লড়াই হাজির হচ্ছে তাতে মার্কিন হস্তক্ষেপ অবধারিত। এই লড়াইয়ে আমরা কী করব তাই দেখবার বিষয়। আরামপ্রিয় দ্বি-দলীয় ক্ষমতা বৃত্তের বাইরে এই প্রথম বাংলাদেশে নয়া বাস্তবতা বড়ই অসময়ে হাজির হচ্ছে।

ফলে এই জাতীয় প্রতিরোধ ইসলামের চেহারা যেমন নিবে, এর সাথে দুনিয়ার অন্য ইসলামী লড়াকু শক্তিও শামিল হবে। এটাকে থামাতে এবার পরাশক্তির হস্তক্ষেপের পথে আর কোনো বাঁধা থাকবে না। ফলে যতই মনে হোক জামায়াতের পক্ষে আমেরিকা আছে, বিএনপির পক্ষেও আছে। খোলা চোখে যতই মনে হোক এক ভারত ছাড়া আর সবাই তাদের পক্ষে আছে, ব্যাপারটা তেমন সরল না। মার্কিন আধিপত্য কোনো সুযোগকে হাতছাড়া করবে -এমনটা মনে করার কোন কারণ নাই। এটা আমি বলছি ইতিহাসের শিক্ষা থেকে। বাংলাদেশে হুবহু একই ঘটনা ঘটবে তা বলছি না। প্রত্যেক ঘটনার কিছু সৃষ্টিশীল ডাইমেনশান থাকে, যা আগাম বলে দেবার কিছু নাই। তারপরেও এখনকার ঘটনাসমূহ পর্যালোচনা করলে আমরা বিষয়গুলো পরিষ্কার ধরতে পারব।

ফাঁসি ও জাতীয় চেতনার ফাঁদ

একটা ছোট চায়ের দোকান। ১২.১২.১৩ ইং, রাত ১১টায় টিভিতে ইমরান এইচ সরকার কথা বলছিলেন নিউজ বাইটে। ফাঁসির খবরে তখন শাহবাগ আনন্দে ভাসছে। সেই আনন্দে দোকানের কিছু লোকও দেখলাম হাসতেছে। হঠাৎ দোকানদার বলতেছে- ‘হালারা কেমুন, জিন্দা একটা মানুষ মইরা গেল আর হালারা নিটকাইতেছে কেলাই দিয়া খবর দেখতাচে’ একটু আগেও মানুষটা জীবীত ছিল।‘ অবাক হইলাম, সে যে রাজাকার ছিল তা তো দোকানদার একবার বলতেছে না । এটা তো তার মনে আইল না। কেন? সমস্যা কী?

আর রাতে ফেসবুক-ব্লগে আনন্দ আর বেদনার পাল্টাপাল্টি জোয়ার ছিল। আর যারা একাত্তরকে ক্রিটিক্যালি দেখেন সেই সব মানুষের মধ্যে এক চাপা অস্বস্তি বিরাজ করছিল। জামায়াত কাদের মোল্লাকে সাইয়েদ কুতব অব বাংলাদেশ ঘোষণা করেছে ফাঁসির সাথে সাথে। তাঁরে ইসলামের জন্য শহীদ ঘোষণা করেছে। সেই মোতাবেক পরদিন জুমার নামাজের পর ঢাকার বিভিন্ন পয়েন্টে ব্যাপক সহিংসতা ঘটায় দলটির বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মিরা। এই আগুন ছড়িয়ে পরে সারা দেশে, শুরু হয় পাল্টাপাল্টি খুনাখুনি। খবরের কাগজ লাশের খবরে ভরে ওঠে।

অবাক হয়ে খেয়াল করি, কাদের মোল্লার ফাঁসি জনসমাজে একটা ভুতুড়ে অবস্থা তৈরি করেছে। সাধারণ পাবলিক প্রশ্ন করছে, আচ্ছা লোকটা না অপরাধী ছিল তাইলে তাঁর জন্য যে আবার আন্দোলন হচ্ছে? সে নাকি চিঠি দিয়ে কইছে কসাই কাদের আর সে এক না। মরার আগে মানুষ তো আর মশকারি করে না?

আমরা যদি এই জনমনোভাবকে বুঝবার চেষ্টা করি, তাইলে অনেকগুলো বিষয় বুঝতে সুবিধা হবে। এক. ৭১ এর ন্যারেশন কি আদতেই একটা মধ্যবিত্ত ন্যারেশনে পরিণত হয় নাই এত দিনে? কারণ কসাই ইমেজ তো মধ্যবিত্তের বাইরে খুব বেশি কমিউনিকেটিভ হচ্ছে না। দুই. এই চেতনার প্রতি তো সরকারের অবস্থানের কারণেই মানুষের আর আস্থা নাই। এই অবস্থায় শাহবাগ যদি প্রবল প্রতাপ গড়ে তুলতে না পারে তাইলে তো সরকার বিপদে পড়ে যাবে। তাই শাহবাগ আছে সরব ভুমিকায়।

স্কাইপে কেলেংকারি আর বিচারপতিদের খামখেয়ালি তো মানুষ জানে। আদালতের প্রতি কোন সুস্থ মানুষের তো আস্থা নাই। ফলে দুর্বল জাতীয়তাবাদী চেতনার ওপর দাঁড়িয়ে এই ধরণের একটা ফাঁসি আওয়ামী লীগের জন্য অনেক ঝুঁকির হয়েছে সন্দেহ নাই। এখন একাত্তরের ন্যারেশনকে খুব শক্তিশালীভাবে হাজির করতে হবে। কোনো গাফিলতি করা চলবে না।

এই হাজিরা বলাই বাহুল্য, একাত্তরের আকাঙ্খা মেটাতে পারবে না। এটা কাজ করবে সাংবিধানিক ফ্যাসিজম কায়েম করতে। এইটা বিনা মুশকিলে হলে সমস্যা ছিল না। কিন্তু ঝামেলা হয়ে গেছে, জামায়াত কাদের মোল্লাকে ইসলামের জন্য শহীদ ঘোষণা করে ফেলেছে। মোল্লাও বলে গেছেন তাঁর রক্তের বিনিময়ে যেন ইসলাম কায়েম করা হয়। ফলে ইসলামের ন্যারেশনের সাথে ‘৭১ এর আওয়ামী ন্যারেশনের লড়াই শুরু হয়ে গেল। জামায়াতের ইসলাম একমাত্র ইসলাম না, এটা আমরা সবাই জানি। জামায়াতের বাইরেই আছে ইসলামের মূল ধারা। কিন্তু জামায়াত ইসলামের নামে রাস্তায় যখন মার খাবে, তখন ধর্মযুদ্ধ শক্তিশালী ভিত্তির ওপর দাঁড়াবে।

লীগের বা বামদের ইসলামকে পশ্চাৎপদ মনে করার যে কালচারাল এটিচুড তা মানুষ এতদিনে মনেপ্রাণে বিশ্বাস করে ফেলেছে। ফলে এই অবস্থার মধ্যে লড়াইয়ে কালচারাল শক্তিটা যে প্রতিরোধের মুখে পড়বে তা এখনও আমরা পুরোপুরি বুঝে উঠতে পারিনি। যারা এখনও রাজাকারী ডিসকোর্স নিয়ে আছে, এটা তাদের বুঝবার কথাও না। রাজনীতি বহু আগেই রাজাকারের পরিমণ্ডল পার করে ফেলেছে।

ক্ষমতার ব্যবহারিক বা এখনকার বাস্তব প্রশ্নটাই মানুষ আগে বিচার করছে। শুধু বুদ্ধিজীবিরা স্মৃতি কাতর হয়ে আছেন এখনও। ফলে মানুষের মনে ফাঁসিকে কেন্দ্র করে ‘৭১-এর মতোই অস্বস্তি আবার ফিরে আসল। এতে সরকারের পক্ষে লোক থাকবে না বা সরকার ভ্যানিশ হয়ে যাবে -এটা মনে করার কোন কারণ নাই। আমি শুধু বলছি, এই গুমট মনোভাবের মধ্যে ভায়োলেন্সের যে সম্ভাবনা তৈরি হয়ে আছে তা নতুন রাজনীতি দিতে না পারলেও (নতুন রাজনীতির তো এজেন্সি হাজির নাই -এটাই সঙ্কট) এই প্রথম, সাংস্কৃতিক পরিচয়ের প্রশ্নে বাংলাদেশে রক্তারক্তি হতে যাচ্ছে।

আর এতে নানা কারণে ইসলাম ও বাঙ্গালী জাতীয়তাবাদ মুখোমুখি দাঁড়ানো। এই অবস্থায় কূটনৈতিক বুঝের সমাধান যে কোন কাজে আসছে না তা আমরা ধারাবাহিক ভাবে দেখছি। পিল্লাই সতর্ক করেছেন, তারানকো ব্যার্থ হয়ে ফিরে গেছেন। জাতিসংঘ ও বিভিন্ন মানবাধিকার সংগঠন, সবাই চরম উদ্বেগ প্রকাশ করে চলেছে বাংলাদেশের ব্যাপারে। আন্তর্জাতিক মিডিয়াতে বাংলাদেশ এখন গৃহযুদ্ধ কবলিত এমন খবরই ফলাও করে প্রচার করা হচ্ছে। এই অবস্থা আমাদের কোনো শুভ পরিণতির দিকে যে নিয়ে যাচ্ছে না তা পরিষ্কার বুঝা যায়।

এর কারণ হল, ৭১ এর চেতনাকে আমরা গণবিচ্ছিন্ন ক্ষমতার কাজে ব্যবহার করেছি। এই চেতনার প্রকৃত অর্থে কোন সামাজিকীকরণ করিনি। বরং উপনিবেশি সাংস্কৃতিক ও জীবনদৃষ্টি উচ্চ মধ্যবিত্ত শ্রেণীর মধ্যে এমন একটা ভাব পয়দা করেছে যে, মুক্তিযুদ্ধের চেতনার সাথে ভোগবাদী জীবনচর্চা মিশে একাকার হয়ে গেছে। এর সাথে আধুনিকতার উগ্র ইসলাম বিদ্বেষ যুক্ত হয়ে প্রগতিশীলতা ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বিপরীতে দাঁড় করিয়েছে ইসলামকে। এই একরোখা মুক্তিযুদ্ধের চেতনা এখন মরণ ফাঁদ হয়ে নেমে আসছে। মোহনায় দাঁড়িয়ে উৎসের দিকে ফিরে তাকাতে হয়-এটা আমরা স্বাধীনতার বেয়াল্লিশ বছরেও করিনি।

ইতিহাসকে দলীয় ক্ষমতার স্বার্থে ব্যবহার করে বিভাজন জিয়িয়ে রেখেছি। বিভাজনটা সমাজে পরিষ্কার হয়ে গেছে। শাহবাগ আর শাপলা। শাপলার ভাগে আছে সাধারণ ধর্মপ্রাণ মানুষ যারা সাংস্কৃতিক ও অর্থনৈতিকভাবে তথাকথিত মূলধারার চেতনার চেয়ে পিছিয়ে আছে। তাদের আমরা সমাজের বাইরে আলাদা রেখে নিজেরা একতরফা চেতনার অনুসারী হয়ে আধুনিকতার জীবনদৃষ্টিকে কবুল করে নিয়েছি। ওদের বলেছি মধ্যযুগীয়, বর্বর পশ্চাৎপদ। কারণ তিনারা আজও ধর্মতত্বের আদর্শকে জীবনের মূল আদর্শ মনে করে। আমরা ইসলামের সাথে বাংলার সামজিক বিকাশের সম্পর্কের আলোকে নতুন রাজনৈতিক জনগোষ্ঠী আকারে গড়ে উঠিনি। অতি ক্ষুদ্র শ্রেণীস্বার্থে ব্যবহার করেছি ‘৭১-এর চেতনাকে। মুক্তিযুদ্ধের তাবত অবদানকে স্বাধীনতার পরপরই কুক্ষিগত করেছি নিজ নিজ স্বার্থে। স্বাধীনতার সামাজিকীকরণ হয় নাই বাংলাদেশে। তাই সবার অংশ গ্রহণে ‘৭১ হলেও শেষ পর্যন্ত স্বাধীনতা হয়ে উঠেছে এলিটিস্ট মুক্তিযুদ্ধ। মুক্তিযুদ্ধকে আমরা গণচেতনা করে তুলতে পারিনি। কেন পারিনি তার হদিস খুব কঠিন কিছু না। নানা কারণের একটা হল সাংবিধানিক স্বৈরতন্ত্র কায়েম করেছি শুরু থেকেই।


পাকিস্তানফোবিয়া

পাকিস্তান রাষ্ট্র হিসেবে আর্ন্তজাতিক মনযোগের কেন্দ্রে আছে গত কয়েক দশক ধরেই। সেনাবাহিনীর সাথে পাকিস্তানের জনগণ ও রাষ্ট্রের সম্পর্ক নিয়ে অনেক বড় বড় গবেষণা হয়েছে। পাকিস্তানের বিভিন্ন গোত্র ক্ষমতা কাঠামোর মধ্যে আলাদা আলাদা ডাইমেনশান নিয়ে হাজির আছে। পশতুন জাতীয়তাবাদের প্রভাবের কারণে আফগানিস্তানের সাথে পাকিস্তানের সম্পর্ক শুধুমাত্র কৌশলগত নয়। আমরা দেখেছি, পাকিস্তান একই সাথে আলকায়েদা, তালেবান ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে জটিল সম্পর্ক বজায় রেখে নিজের তৎপরতা জারি রেখেছে ওয়ার অন টেরর প্রকল্পে। বিশ্বরাজনীতিতে পাকিস্তানের এখনকার ভূমিকা গ্লোবাল রাজনীতিতে অতি গুরুত্বের সাথে বিবেচিত হয়।

আমরা একাত্তরে যে ঘাতক সামরিক পাকিস্তানের বিরুদ্ধে লড়াই করেছি। সেই পাকিস্তান আর আগের জায়গায় স্থির নেই। কিন্তু আমরা পাকিস্তানের জান্তা নিপীড়নের প্রতি যে ঘৃণা ধরে রেখেছি তা গোটা পাকিস্তান সম্পর্কে আমাদের চিন্তাকে বর্ণবাদি ক্ষুদ্র জায়গায় আটকে রেখেছে। চলমান বিশ্ব রাজনীতিতে পাকিস্তান এর ভূমিকাকে র্নিমোহভাবে দেখবার কোনো গরজ আমরা অনুভব করি না। এটা আমাদের জন্য খুবই অনুতাপের বিষয়।

এবারের ওআইসি সম্মেলনে ইসলামোফোবিয়া নিয়ে একটা রিপোর্ট পেশ করা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, পশ্চিমা বিশ্ব ইসলামোফোবিয়াকে প্রাতিষ্ঠানিক ও রাজনৈতিকভাবে এমন জায়গায় দাঁড় করিয়েছে যে, পশ্চিমা বিশ্বের সাথে ইসলামের বিভক্তিকে চরম পর্যায়ে নিয়ে গেছে। আর এই কাজের জন্য যে ভুমিকে পশ্চিমারা বর্তমানে সবচেয়ে বেশি ব্যবহার করছে তার নাম ‘পাকিস্তান’ / ফলে আামাদের এখানে পাকিস্তানফোবিয়া আর ইসালোমোফোবিয়া একই অর্থ বহন করে। আর এটাকে উস্কে দেবার জন্য আছে অতীত পৈশাচিক শাসকদের প্রতি ঘৃণাকে পাকিস্তানের নামে ছড়িয়ে দেয়ার কূট-রাজনীতি। পাকিস্তান নিয়া এখানে আলাপের অবসর নাই। আমি কয়েকটা পয়েন্টে বাংলাদেশে পাকিস্তান -সম্পর্কে দৃষ্টি ভঙ্গি ও সাম্প্রতিক পারিপার্শিকতা তুলে ধরব মাত্র।

এক. পাকিস্তান সম্পর্কে আমাদের দৃষ্টিভঙ্গিটা ছিল শ্রেণী ঘৃণার। ৯/১১ -এর পরে এর সাথে যুক্ত হয়েছে ইসলামোফোবিয়া। এখন পাকিস্তানফোবিয়ার দুই মৌল উপাদান হল : ১. একাত্তরের শাসকদের প্রতি ঘৃণা থেকে উৎসারিত ঘৃণা। পাকিস্তান মানেই বর্বর, অসভ্য, ধর্ষক ইত্যাদি রটনার রাজনীতি। ২. পাকিস্তান আধুনিক গণতন্ত্রের পথে কোনো সফলতা হাসিল করতে পারেনি। এটা তালেবানের ঘাঁটি। এরা আলকায়দার মদদদাতা। লাদেনকে এরা পালে। এরা জঙ্গি। এদের কোনো ভবিষ্যৎ নাই। ওরা নিকৃষ্ট।

এই দুইটা দৃষ্টিভঙ্গির মধ্যে প্রচারণার প্রভাব ছাড়া আর কিছু নাই। একাট্টা পাকিস্তান বলে কিছু নাই। সেখানে নানা শ্রেণীর মধ্যে সংঘাত আছে। ইসলাম প্রশ্নেও সমাজিক ও রাজনৈতিক নানা ধরণের দৃষ্টিভঙ্গি আছে। কিন্তু সমাজে ইসলামের একটা প্রভাব সেখানে বরাবরই ছিল। এবং এখনও আছে। যা হোক শাসক শ্রেণী আর পাকিস্তানের জনগণ এক না। এটা আমরা প্রায়ই ভুলে যাই। একাত্তরে পাকিস্তান সরকারের ভুমিকা আজকের সরকারের মতই ছিল। পাকিস্তান কী করেছে তা বুঝার জন্য একাত্তরে জন্ম নেবার দরকার নাই। লীগ ও যৌথবাহিনী এখন যা করছে পাকিস্তান ও তাদের অনুসারীরা একই কাজ করেছে। তবে তখন কিছু কিছু কাজের লক্ষ্য ছিল মানুষকে বাঁচানো। এখন একমাত্র লক্ষ্য হল মারা। হিংসার আগুনে জ্বলছে জনপদ।

দুই. ‘৭১-এ যাদের বিরুদ্ধে আমাদের লড়াই ছিল সেই পাকিস্তানি শাসক আর এখনকার পাকিস্তান রাষ্ট্র এক জিনিস নয়। এখনকার পাকিস্তান বিশ্ব-রাজনীতির গুরুত্বপূর্ণ অংশীদার। আমি বলি, আমেরিকা যদি হয় সন্ত্রাসের আব্বা, তাহলে পাকিস্তান তার পালক পিতা। ওয়ার অন টেরর প্রজেক্টে পাকিস্তান গুরুত্বপূর্ণ অংশীদার। এবং এই অংশীদারি গোলামীর মত নয়। সে মাঝে মাঝেই ডাবল স্ট্যান্ডার্ড শো করছে। যেটা আমলে নেবার মত বিষয়। ( এই প্রজেক্টে- র, সিআইএ, আইএসআই, গলায় গলায় ভাব বজায় রেখে বাংলাদেশে ফাংশন করেছে, এখন এজেন্সিগুলা আলাদা হয়ে যাচ্ছে। ভারতের একতরফা জবরদস্তির কারণে এটা ঘটছে। অলরেডি ভারত-আমেরিকা কূটনৈতিকভাবে মুখোমুখি অবস্থান নিয়েছে। নারী কূটনীতিক দেবযানিকে স্ট্রিপ সার্চ করে আমেরিকাই প্রচার করিয়েছে যে, ন্যাংটা করে তল্লাশি করা হয়েছে। আর ইন্ডিয়া তো আত্নপীড়ায় ভুগছে। পাল্টা পদক্ষেপও নেয়ার হুমকি দিয়েছে। আমাদের মিডিয়াও বেশ রসিয়ে এই খবর প্রচার করছে। এতে কূটনেতিকভাবে আমরিকা যে মেসেজ দিছে তার সরল মানে হল, ‘তুমি মাতবরি করলে ন্যাংটা কইরা ছাইড়া দিব’ যাহোক কূটনৈতিক লড়াইয়ে অনেক প্রতীকী ব্যাপার থাকে যার গুরুত্ব অপরিসীম। এখানেও তাই হইছে। আর দেবযানী আজ যে প্রতীকী অপমানের শিকার হয়েছেন তার জন্য বাংলাদেশ নিয়ে আমরিকার সাথে সুজাতার বেয়াদবী দায়ি -এটা ভারতের কূটনীতি বিশ্লেষকরা স্বীকার করেছেন। সূত্র: বিডিনিউজ)

তিন. মুক্তিযুদ্ধের চেতনার নামে বেহুদা পাকিস্তানফোবিয়া ছড়ানো হয়েছে। পাকিস্তানের মুক্তিকামী মানুষের সাথে আমাদের শত্রুতা থাকতে পারে না। হাসিনাও শাসক, ইয়াহিয়াও শাসক। ‘৭১ কইরা আমরা কী করলাম? বিদেশি লোক বাদ দিয়া দেশি বোনের অত্যাচার মেনে নিচ্ছি -এখন এই তো অবস্থা।

চার. যে প্রজন্ম আজ লীগের কূটনৈতিক গেইম না বুঝে পাকিস্তান বিদ্বেষ ছড়ানোকে চেতনার দায়িত্ব আকারে নিয়েছে, তাদের বলি পাকিস্তান কি চিজ তা যদি বুঝতা তাইলে আর এই আরামের দ্বিতীয় মুক্তিযুদ্ধ করতা না। পাকিস্তানকে জড়ানোর কূটনৈতিক তাৎপর্য অত্যন্ত গভীর। তার পুরোটা এখনই আমরা বলতে পারব না। তবে যে লক্ষণ হাজির হয়েছে তা ঘটনা কোন দিকে যাচ্ছে তা বুঝতে কাজে লাগে। এর মধ্য দিয়ে তালেবানের ইন্টারভেনশন নিশ্চিত হয়ে পড়ল। তালেবান হুমকি দিয়েছে গণজাগরণ বন্ধ না করলে পাকিস্তানে বাংলাদেশের দূতাবাস উড়িয়ে দেয়া হবে [সূত্র: পরির্বতন ডটকম]

যুদ্ধটা জাতীয় চেতনা বনাম ইসলামী চেতনার দিকে যাচ্ছে। এর সাথে বিদেশি অস্ত্রধারী সংগঠন যোগ হলে ঘটনা কোথায় যাবে তা আপনাদের অনুমান করতে পারার কথা। তালেবান যখন একে-৪৭ ধরে বলবে, ”গাওতো চেতনার গান”/ রবীন্দ্র সঙ্গীত কি আমাদের রক্ষা করতে পারবে? ফলে সাংস্কৃতিক ঘৃণার পার্ট আকারে যারা পাকিস্তান মানেই বর্বর আর খারাপ এই রকম রেসিস্ট দৃষ্টিভঙ্গি পালন করেন তাদের বলব, পশ্চিমা একাডেমিতে গিয়ে একটু খোঁজ নিয়ে দেখেন। পাকিস্তান একবাল আহমেদের মত দুনিয়া কাঁপানো তাত্ত্বিকদের জন্ম দিতে পারে, ইংরেজি সাহিত্যে হাল আমলের অনেক শক্তিশালী লেখক পাকিস্তানের জঙ্গিদশার মধ্যেই দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন। সেখানে বাংলাদেশ তো এখনও অনেক নবিশ।

আমি তুলনামূলক আলোচনার জন্য কথাটা বলিনি। বা এইগুলো করতে পারলেই জাতি মহান হয়ে যাবে, আমি তাও মনে করি না। যাস্ট অমূলক ঘৃণার চেতনাটা দেখাতে কথাটা বলা। এবং যারা পাকিস্তানকে ঘৃণা করেন, কিন্তু নিজেরা আবার পশ্চিমা দুনিয়ায় আসন পেতে চান, পাকিস্তান তাদের চেয়ে অনেক অনেক এগিয়ে আছে। এটা কেমনে সম্ভব হল বিবেচনা করবার বিষয় বটে।

পাঁচ. ক্ষমতার রাজনীতির দিক থেকে এখনকার এই কূটনীতিক গেইমের মর্ম হল, ইউএস লবিকে বুঝানো যে, যেই পাকিস্তান এত দিন র, সিআইএ’র সাথে একইতালে বাংলাদেশে কাজ করেছে তাকে তো আমি কিছু বলি নাই। এখন দেশে চেতনার জোয়ার চলছে। জনগণ ক্ষ্যাপা। আমি অসহায়। প্রতিদিন গণজাগরণের সমাবেশে ক্রমাগত লাঠিপেটা করেও তো থামানো যাচ্ছে না। দেশে তো মুক্তিযুদ্ধের চেতনার জোয়ার। আমি কী করব?

মানুষ আমারে চায়… দেখ দেখ দূতাবাস পর্যন্ত পাবলিক খায়া ফেলতে চাইতেছে। আমি জনগণের কাছে দায়বদ্ধ। -সরকারের ওপর ক্রমাগত বিদেশি চাপকে পাশকাটানোর জন্য এই গেইম সরকারের দিকে থেকে ভাল। আমি এর প্রশংসা করি। এতে লাভ দুইটা। ১. পাকিস্তানের প্রতি ঘৃণাটা উস্কে দেয়া চেতনার ফ্যান্টাসিটা আবার ছড়ানো। ২.আন্তর্জাতিক মহলকে নিজের পিপল বেইস যে মজবুত তা জানান দেয়া।

বলাই বাহুল্য, এই দুইটাই ফ্যাসিবাদের দামি কৌশল। ক্লাসিক কৌশল। কিন্তু ফ্যাসিবাদের জন্য যে ন্যাশনাল ভিত লাগে তা বাংলাদেশের নাই। বাংলাদেশের এই ফেনোমেনাকে আমি বরাবরই কালচারাল ফ্যাসিজম বলেছি। এই কালচারাল ফ্যাসিজম সাম্রাজ্যবাদি রাজনীতির কৌশলের বিরুদ্ধে লড়াই করতে অক্ষম। ফলে এই একরোখা গণবিচ্ছিন্ন ক্ষমতার জেদ শেষ পর্যন্ত বুশের ধর্মযুদ্ধকে দেশে ডেকে আনবে, এতে কোন সন্দেহ নাই। মজার ব্যাপার হল, গণজাগরণের কর্মিদের সরকারী এসাইনমেন্টে হেনস্থা করা হচ্ছে। গণজাগরণের কর্মি জাগরণকন্যা লাকী বলছিলেন, পুলিশ তাদের ওপর চড়াও হচ্ছে নাস্তিকের বাচ্চা, মালাউনের বাচ্চা বলে গালি দিতে দিতে। এই ঘৃণার আগুণ এখন সারা দেশে ছড়িয়ে আছে। হাসিনা কোনোভাবেই এই অবস্থায় জনগণের কাম্য নেতা হতে পারেন না।

ছয়. পাকিস্তানের প্রতি বর্ণবাদি আচরণের কোন মানে হয় না। আমাদের বুদ্ধিজীবিরা পাকিস্তানকে একটা দানব আকারে হাজির করছেন তাদের বলা দরকার, এটা ‘৭১ সাল না। এখন পাকিস্তান অনেক কমপ্লেক্স গেইমে নিজেরে শামিল রাখছে। রিজিওনাল গেইমে পাকিস্তানরে কোনোদিন হম্বিতম্বি করতে দেখবেন না। কিন্তু সে আছে, তার ভুমিকা সমেত আছে। আইএসআই আর সিআইএর দোস্তি তো সুবিদিত। এখন কাদের মোল্লার ব্যাপারে অন্য দেশগুলা যা করছে, পাকিস্তান তাঁর চেয়ে বেশি কিছু করেছে বলে মনে হয় না।

তুরষ্ক বাংলাদেশের সরকারকে দ্বিতীয় ইসরায়েল বলেছে। কেরিও ক্ষেপছেন। তাহলে পাকিস্তানের দোষটা এত বেশি কেন হইছে? কারণ এই তথাকথিত প্রজন্মকে তো পাকিস্তান আক্রমণের স্বাদ দেয়া যাবে না। তাই দূতাবাসমুখি ক্ষিপ্র গমনের মধ্যে একটা যুদ্ধের স্বাদ দেয়া। এটা নগদ লাভ। কিন্তু সাম্রজ্যবাদী চাল তো নগদ লাভে চলে না। তার পরিকল্পনা সুদূর প্রসারী। ‘১৪ সাল এর পরে আফগানিস্তান মিশন শেষ করতে হবে। দক্ষিণ এশিয়ায় মার্কিন উপস্থিতির জন্য বাংলাদেশ অতি গুরুত্বপূর্ণ। কয়েক দিন আগে খবরে প্রকাশ হাতিয়া দ্বীপ এলাকায় যৌথ সামরিক উপস্থিতির জন্য বিশাল ভূমি নির্বাচন করা হয়েছে। এটা নিয়ে পরে আর কোনো ফলোআপ দেখিনি।

সাত. আমরা বলতে চাই, খামাখা পাকিস্তানঘৃণার কোনো কারণ দেখি না। বরং পাকিস্তানের নিপীড়িত মানুষের সংগ্রামের সাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে শামিল হবার জন্য আমাদের প্রস্তুতি দরকার। জালেম শাসক তা যত মহান চেতনারই হোক, তার বিরুদ্ধে আমি মজলুম জনগোষ্ঠির ঐক্যের পক্ষে। আমাদের অবস্থান পরিষ্কার করা দরকার।

শ্রেণী ঘৃণা..জাতি ঘৃণা আমাদের অমানুষে পরিণত করে ফেলবে। মানবিক সত্তার মর্যাদা রক্ষার লড়াইয়ে জাত-পাত শ্রেণী দৃষ্টিভঙ্গির বাইরে নিজেদের চৈতন্যকে বিকশিত করতে না পারলে আগামী দিনের বিপ্লবী লড়াইয়ে বাংলাদেশ কোনো ভূমিকা রাখতে পারবে না। নিজেদের জনগোষ্ঠীর রাজনৈতিক উত্থানের সাথে এই উদার মানসিকতার চর্চাও অতিজরুরি।

ভারতের এনডিটিভি খবরে জানিয়েছে, ২০১৪ সালের টি টুয়েন্টি বিশ্বকাপে পাকিস্তানের বাংলাদেশে আসা নিয়ে বিতর্ক শুরু হয়েছে। ভারত-পাকিস্তান উদ্বোধনী ম্যাচ বাংলাদেশে না হলে ২৫ ভাগ আয় থেকে বঞ্চিত হবে কর্পোরেট প্রতিষ্ঠানগুলো। খেলাকে কেন্দ্র করে বিশ্ব পুঁজির যে প্রসার, তাতে বাঁধ সাধল রাজনৈতিক কারণে উস্কে দেয়া পাকিস্তান বিদ্বেষ। এর ফলে বাংলাদেশ যে রাজনৈতিক ভাবে জঙ্গি অবস্থায় নিপতিত হয়েছে, বিশ্ব মিডিয়ায় সেই খবর ঘটা করে প্রচার করা হবে। এটা আমাদের ইমেজের জন্য ভয়াবহ সংঙ্কট সন্দেহ নাই।

এখনকার সংকট

বাংলাদেশের রাজনৈতিক সংকটকে এতদিন যারা হাসিনা খালেদার ক্ষমতার লড়াই আকারে দেখেছেন, তাদের গণধিক্কার দিতে হবে। এই ধারা বিচার-বিশ্লেষণের ঐতিহ্য আমাদের রাজনৈতিক পর্যালোচনার পরিমণ্ডলকে যথেষ্ট সংকীর্ণ করে রেখেছে। আমরা গ্লোবালাইজড কথাটা মুখে বলি বটে কিন্তু এর সাথে আমাদের সম্পর্কের ধরণ ও নিজেদের অবস্থানকে কখনও বিচার করে দেখি না। ফলে বাংলাদেশ কিভাবে বিশ্বরাজনীতির সাথে সম্পর্কিত তার সমগ্র পরিচয়টি আমাদের সামনে ধরা পড়ে না। কিছু মুখস্ত কথাবার্তা শুনেই আমরা কাজ চালিয়ে নেই।

যা হোক সেনাবাহিনী নামবে এই রব অনেক আগেই জারি হয়েছে। সেনা নেমেছে ঘোষণা দিয়েই। খবরে প্রকাশ, ‘নির্বাচন কমিশন সূত্র জানিয়েছে, নির্বাচনের সময় আইনশৃঙ্খলা রক্ষার জন্য এবার সশস্ত্র বাহিনীর ৫০ হাজার সদস্য মোতায়েন করা হবে। এরা ভোটগ্রহণের পরও বেশ কয়েক দিন মাঠে থাকবেন। এ কারণে সশস্ত্র বাহিনীর জন্য নির্বাচন কমিশনের প্রস্তাবিত বাজেটও দ্বিগুণ করা হচ্ছে। [প্রথম আলো ২১-১২-২০১৩]

সেনাবাহিনী এখন পুলিশি ভুমিকায় নামল। এতে যে আমাদের দেশের মানুষের কাছে সৈনিকের মর্যাদা আর আগের জায়গায় থাকল না তা আমাদের জন্য অনুতাপের বিষয়। আমাদের সেনাদের সৈনিক মর্যাদা অক্ষুন্ন রাখা নাগরিক হিসেবে আমাদের দায়িত্বের মধ্যেই পড়ে। এ ব্যাপারে গণসচেতনতার খামতি অপরীসীম। এটা নিয়ে আলাদা লিখব।

বাংলাদেশের এখনকার পরিস্থিতি নিয়ে পশ্চিমা মিডিয়ার রিপোর্টিংয়ের ধরণ খুব মনযোগ দিয়ে খেয়াল করবার বিষয়। ফাঁকে বলে নিই, এর আগে এক লেখায় (বিচার নিয়ে রাজনীতি ও রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসের আর্বিভাব : আমার দেশ) বলেছিলাম, মার্কিন দেশের সাথে জামায়াতের মিত্রতার কৌশলগত দিক খতিয়ে দেখা দরকার। তাঁরা একদিকে যুদ্ধাপরাধীর বিচার চায়, আর অন্যদিকে মানবাধিকারের দাবি তুলে জামায়াতকে উস্কে দিচ্ছে। জে র‍্যাপের সফরের সময়ই ব্যাপারটা আঁচ করা গিয়েছে। এখন এই সহিংস পরিস্থিতির মধ্যে পশ্চিমা মিডিয়া যে স্টাইলে বাংলাদেশ নিয়ে রিপোর্টিং করছে তা দেখলে পরিষ্কার হবে যে আমি কোনো ষড়যন্ত্র তত্ত্বের কথা বলছি না।

শাহবাগ উত্থানের পরে প্রথম যে লেখাটি লেখি তার শিরোনাম ছিল-গণহত্যার রাজনীতি ধর্মযুদ্ধে প্রবেশ (চিন্তা ডটকম, ৬ মার্চ ২০১৩)/  তাতে জামায়াতের রাজনীতিকে জঙ্গিবাদি রাজনীতি আকারে হাজির করে নির্মূলের তাৎপর্য ব্যাখ্য করার চেষ্টা করেছিলাম। পরে ঘটনাটা সেই দিকে ধিরে ধিরে বাঁক নিলে বিষয়গুলো আরও পরিষ্কার হতে শুরু করেছে। ক্ষমতাধর সাময়িকী ইকোনোমিস্ট সাম্প্রতিক প্রতিবেদনে লিখেছে,

“আওয়ামী লীগ জিতবে, তবে বাংলাদেশ হেরে যাবে। ইকোনোমিস্টের অনলাইনে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘নিজের শাসনকাল বাড়িয়ে নেওয়ার জন্য বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যেসব পদক্ষেপ নিচ্ছেন, সেগুলোকে একজন ইউরোপীয় কূটনীতিক ‘ধাপে ধাপে চলা অভ্যুত্থান’ বলে অভিহিত করেছেন। প্রধান বিরোধী দল ৫ জানুয়ারির জাতীয় সংসদ নির্বাচন বর্জন করেছে। এ সুযোগে নিশ্চিত জয়ের পথে চলছে শেখ হাসিনার দল। বৈধতার প্রশ্ন এখানে বাহুল্যমাত্র।”

[www.economist.com/news/asia/21591887-ruling-party-will-win-bangladeshs-election-country-will-los]

এই অভ্যুত্থান কে করছে? সরকারের বিরুদ্ধে অভ্যুত্থানের লাইনে বিএনপি তো নাই। বিএনপি টেবিল রাজনীতির সমাধানে অনেক বেশি আগ্রহী। সাথে চাপ প্রয়োগের জন্য ধারাবাহিক অবরোধ চলছে। গণঅভ্যুত্থান তাইলে কে ঘটাবে? বলাই বাহুল্য, জামায়াত জীবন-মরণ লড়াইয়ে নিপতিত হয়েছে। গ্রামে গ্রামে যেভাবে লীগ-যৌথবাহিনী ও জামায়াত যুদ্ধে লিপ্ত হচ্ছে তাতে ‘মর না হয় মারো’ এমন পরিস্থিতি তৈয়ার হয়েছে। দেশে গৃহযুদ্ধ চলছে। সামনে এটা আরও বেগবান হবে নানা ডাইমেনশান তৈয়ার হবে তা সহজেই অনুমান করা যাচ্ছে। অভ্যুত্থান হবে সেটা গণ না কী তা বলা যাচ্ছে না।

গণঅভ্যুত্থান কল্পনার জিনিস না। তার জন্য সমাজে গণরাজনীতির ভিত মজবুত করতে হয়। এন্টি ইম্পেরিয়াল ও ভারতের আধিপত্যকে যারা সশস্ত্র পদ্ধতিতে মোকাবেলা করতে ভূমিকা রাখতে পারতো সেই সব বিপ্লবী রাজনীতির নেতাকর্মীদের গত বিএনপির সময় ক্রসফায়ার নাটকের মাধ্যমে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছে। সমূলে তাদের অস্তিত্ব বিনাশ করে দেয়া হয়েছে। এই কাজটি করার ফলে গৃহযুদ্ধের পরিস্থিতিতে সাম্রাজ্যবাদের নকশার বাইরে লড়াকু আর কোনো শক্তি সমাজে হাজির রইল না।

অন্যদিকে ইসলামের নামে যারা লড়াই করবে তাদের কারণে ধর্মযুদ্ধ দেশি পরিমন্ডল ছাড়িছে দ্রুতই এটা আন্তর্জাতিক রাজনীতির কেন্দ্রীয় বিষয়ে পরিণত হবে।

একই প্রতিবেদনে ইকোনোমিস্ট বলছে, “সংঘাতময় পরিস্থিতি যত খারাপ হচ্ছে, ভারতের মিত্র আওয়ামী লীগকে ইসলামবিরোধী হিসেবে দেখানোর সম্ভাবনাও তত বাড়ছে। শেখ হাসিনার ক্ষমতা কুক্ষিগত করাকে সমর্থন করলে তা ভারতের জন্য উল্টো ফল বয়ে আনতে পারে। তা হবে ‘অপেক্ষাকৃত উগ্র ও কম সেক্যুলার বাংলাদেশ।” (প্রাগুক্ত; ইকোনোমিস্ট)

এই অবস্থার মধ্যে দাঁড়িয়ে আমরা কোন কাগুজে আশার বালী শোনাতে পারছি না। বাস্তবত এটা সম্ভব না। আমরা দেখেছি, হেফাজতের উত্থানের সময় এখানকার তথাকথিত সুশীলরা বাংলাদেশে মার্কিন হস্তক্ষেপ কামনা করে বড় বড় সেমিনার সিম্পেজিয়াম করেছেন। বিশাল প্রবন্ধ লিখেছেন, ন্যাটোকে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন।

এই অবস্থায় বাংলাদেশের সংকট ত্রিমূখী রূপ নিয়েছে। একদিকে হাসিনা সরকারের ক্ষমতা ধরে রাখার জন্য হাস্যকর সব আয়োজন, ২. চেতনার ডামাডোলে বিচারিক মর্যাদা ক্ষুণ্ন করে ফাঁসির রাজনীতি। ৩. চলতি গণতান্ত্রিক নির্বাচন ব্যবস্থার মাধ্যমে প্রতিযোগিতার গ্রাউন্ড তৈরি করে সব দল মিলে নির্বাচন করে আবার কোন দলকে পাঁচ বছরের জন্য ক্ষমতায় আনা।

কিন্তু জনঅসন্তোষ যে চরম রূপ নিয়েছে তাতে শান্তিপ্রিয় সমাধানের পথ কঠিন হয়ে গেছে। সরকারী দলের নেতারা ঢাকার বাইরে যেতে পারছেন না। তাদের আচমকা আক্রমণের শিকার হতে হচ্ছে। সহিংস অবস্থার চরম বিস্তার ঘটেছে। এর মধ্যে সরকারের তরফে বিরোধীদের দমনের মাত্রাও নানাভাবে বাড়ানোর ঘোষণা আসছে ক্রমাগত। এই অবস্থায়ও শেষের পয়েন্টেই সুশীল প্রত্যাশার কেন্দ্রবিন্দু । কিন্তু এই পরিস্থিতির মধ্যে এমটি হওয়া কোনো সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে না।

সবচেয়ে বড় কথা হল এটা বাংলাদেশের জন্য কোন সমাধানও নয়। আমাদের রাজনৈতিক জনগোষ্ঠী আকারে গড়ে উঠবার জন্য ধর্ম, বিশ্বাস, জাত, শ্রেণী -নির্বিশেষে যে জনঐক্য ত্বরান্বিত করা দরকার সেটাই এখনকার রাজনৈতিক কাজ। পুরানা চালের সাংবিধানিক রাজনীতি বারবার সাংবিধানিক স্বৈরতন্ত্রই বয়ে আনছে। জনগণের মুক্তির আকাঙ্খা কাগজের পৃষ্ঠায় বন্দি করে গণতন্ত্রের নামে মুষ্টিমেয় কিছু লোকের লুটপাটের রাজনৈতিক বিধান উচ্ছেদ করেই বাংলাদেশ নতুন জন্মের গৌরব নিয়ে নিজ পায়ে দাঁড়াতে পারে। তার জন্য চাই জালেমের বিরুদ্ধে মজলুমের আপসহীন ঐক্য। আমরা যদি সর্বময় ঐক্য গড়ে তুলতে না পারি তাইলে জাতীয় আন্দোলনে ইসলামকে সামনে রেখে যারা লড়বেন তাদের ধর্মযুদ্ধের সৈনিক বা জঙ্গি যাই বলুন তাতে কিচ্ছু হেরফের হবে না। নতুন ক্ষমতা কাঠামো তৈরি হবে ধর্মের আশ্রয়েই। ফলে সাংস্কৃতিক ও শ্রেণী ঘৃণার ঘেরাটোপ পার হয়ে আমাদের দ্রুত ঐক্যের পথ খোঁজা ছাড়া উপায় নাই। দেশি-বিদেশী নিপীড়ন থেকে মুক্তির জন্য মজলুমর ঐক্যের বিকল্প নাই।

লেখক: কবি ও সাংবাদিক

অতি বড় ঘরনী না পায় ঘর আর অতি বড় সুন্দরী না পায় বর

by আতাহার হোসাইন
দীনের অতি বিশ্লেষণ করে দীনের প্রাণশক্তি বিনষ্ট করে দেওয়ার কাজটা নতুন নয়. আমাদের পণ্ডিতরাই শুধু এ কাজ করেন নি। পূর্ববর্ত্তী দীনগুলোতেও অতি-ধার্মিকরা গজিয়েছেন ও পাণ্ডিত্য জাহির করে তাদের দীনগুলোকে ধ্বংস করে দিয়েছেন। এ ব্যাপারে আল্লাহ কোর’আনে একটি উদাহরণ দিয়ে আমাদের বুঝিয়ে দিচ্ছেন তার নবী মূসার (আ) জীবনী থেকে যেখানে আল্লাহ বনী ইসরাইলদের একটি গরু কোর’বানী করতে আদেশ দিলেন। মূসা (আ) যখন এই কোর’বানীর আদেশ বনী ইসরাইলদের জানিয়ে দিলেন তখন যদি তারা মোটামুটি ভাল একটি গরু এনে কোর’বানী করে দিতো তাহলে তাতেই কাজ হয়ে যেতো। কারণ কোরবানীর গরুটা কেমন হবে সে সম্বন্ধে আল্লাহ কোন শর্ত্ত দেন নি। কিন্তু আল্লাহ কোর’আনে বলছেন- বনী ইসরাইল তা করে নি। তারা মুসার (আ) মাধ্যমে আল্লাহকে প্রশ্ন করতে লাগলো- গরুটার বয়স কত হবে, গায়ের রং কি হবে, সেটা জমি চাষের জন্য শিক্ষিত কিনা, জমিতে পানি দেয়ার জন্য শিক্ষিত কিনা, ওটার গায়ে কোন খুঁত থাকতে পারবে কিনা, ইত্যাদি ইত্যাদি। তারা প্রশ্ন করে যেতে লাগলো আর আল্লাহ তাদের প্রত্যেক প্রশ্নের জবাব দিতে লাগলেন। তারপর যখন প্রশ্ন করার মত আর কিছুই রইলো না তখন স্বভাবতঃই ঠিক অমন একটি গরু পাওয়া দূরুহ ব্যাপার হয়ে দাঁড়ালো। একটা সহজ সরল আদেশ- “একটা গরু কোরবানী কর” এটাকে খুচিয়ে খুচিয়ে এমন কঠিন করে ফেলা হলো যে, অমন গরু আর পাওয়া যায় না। এই জাতির মহা পণ্ডিতরাও বিশ্বনবীর (দ) ওফাতের ৬০/৭০ বছর পর ঠিক ঐ কাজটাই মহা ধুমধামের সাথে আরম্ভ করলেন। দু’টি মাত্র আদেশ- আমাকে ছাড়া কাউকে মানবে না আমার দেয়া জীবন-বিধান ছাড়া আর কোন বিধান মানবে না, আর এই জীবন-বিধানকে সংগ্রামের মাধ্যমে সমস্ত পৃথিবীতে প্রতিষ্ঠা করবে। সহজ, সরল দু’টি আদেশ। বিশ্বনবীর (দ) উম্মাহ ইস্পাতের মত কঠিন ঐক্য নিয়ে ঐ কাজ করতে আরব থেকে বের হয়ে অবিশ্বাস্য ইতিহাস সৃষ্টি করেছিলেন। পূর্ববর্ত্তী দীনের পণ্ডিতদের মত এ উম্মাহর পণ্ডিতরাও একে ধ্বংস করে দিলেন।
 
এখানে একটা কথা পরিষ্কার করা দরকার। আমি ফিকাহ বা ফকিহদের বিরুদ্ধে বলছি না। কারণ কোর’আন ও হাদীস থেকে জীবন বিধানের নির্দেশগুলি একত্র ও বিন্যাস করলে যা দাঁড়ায় তাই ফিকাহ- অর্থাৎ ফিকাহ ছাড়া কোন মুসলিমের জীবনব্যবস্থা অনুসরন অসম্ভব। আমার বক্তব্য ঐ ফিকাহর অতি বিশ্লেষণ, সুক্ষ্মাতিসুক্ষ্ম বিশ্লেষণ যা আল্লাহ ও তার রসুল (দ) কঠোরভাবে নিষেধ করে দিয়েছেন। আমাদের ফকিহরা যদি কোর’আন-হাদীসের মৌলিক আদেশ নিষেধগুলিকে সুন্দরভাবে শ্রেণী বিন্যাস করেই ক্ষান্ত হতেন এবং লিখতেন যে এই-ই যথেষ্ট- এরপর আর অতিরিক্ত বিশ্লেষণে যেও না, কারণ আল্লাহ বলেছেন দীন নিয়ে বাড়াবাড়ি করো না এবং রসুলাল্লাহও (দ) নিষেধ করেছেন, তাহলে তাদের কাজ হতো অতি সুন্দর। ইসলামকে প্রকৃতভাবে সেবা করা হতো এবং আল্লাহর কাছ থেকে তারা পেতেন প্রচুর পুরস্কার। কিন্তু দুর্ভাগ্য হোচ্ছে তারা তা করেন নি। তারা আজীবন কঠিন পরিশ্রম করে আল্লাহর আদেশ নিষেধগুলি ও বিশ্বনবীর (দ) কাজ ও কথাগুলিকে সুক্ষ্ম থেকে সুক্ষ্মতম বিশ্লেষণ করতে করতে এমন পর্যায়ে নিয়ে গেছেন যে, সাধারণ মানুষের পক্ষে তা পূর্ণভাবে পালন করা প্রায় অসম্ভব এবং কেউ চেষ্টা করলে তার জীবনে অন্য আর কোন কাজ করা সম্ভব হবে না, এ দীনকে পৃথিবীতে প্রতিষ্ঠার সংগ্রামের তো প্রশ্নই আসে না। কারণ ফকিহরা তাদের ক্ষুরধার প্রতিভাকে কাজে লাগিয়ে প্রত্যেকে হাজার হাজার মসলা-মাসয়েল সৃষ্টি করেছেন। প্রধান প্রধানগণের এক এক জনের সিদ্ধান্তের সংখ্যা কয়েক লক্ষ। জাতি ঐ মসলা-মাসায়েলের মাকড়সার জালে জড়িয়ে পক্ষাঘাতগ্রস্থ হয়ে গেছে, স্থবির হয়ে গেছে।
 
এই পঙ্গুত্ব, স্থবিরত্ব থেকে জাতিকে রক্ষা করার জন্য আল্লাহ এই দীনকে করলেন অতি সহজ ও সরল, সেরাতুল মোস্তাকীম, দীনুল কাইয়্যেমা। কোন বিষয়েই আল্লাহ ছাড়া কারো বিধান, কারো নিয়ম-কানুন মানি না, শুধু এইটুকুমাত্র। এ যে কত গুরুত্বপূর্ণ, কত জরুরী তা বোঝাবার জন্য বললেন, এর বেশী তো আমি তোমাদের কাছে চাইনি। এতেও সন্তুষ্ট না হয়ে তিনি সেরাতুল মোস্তাকীমকে প্রতি রাকাতে অবশ্য পাঠ্য করে দিলেন, যাতে প্রতিটি মুসলিম মনে রাখে যে, আমার দীন অতি সহজ, অতি সরল, আমি যেন কখনও একে জটিল না করে ফেলি, জটিল করে ফেললে আমার দীনের সর্বনাশ হয়ে যাবে। এই সেরাতুল মোস্তাকীমের সহজতার, সরলতার মহা গুরুত্ব উপলব্ধি করে রসুলাল্লাহ (দ) এক হাদীসে বললেন- দীন সহজ, সরল (সেরাতুল মোস্তাকীম) একে নিয়ে যারা বাড়াবাড়ি করবে তারা পরাজিত হবে। অন্য হাদীসে বললেন, জাতি ধ্বংস হয়ে যাবে । এই সাবধান বাণীতেও আশ্বস্থ না হোতে পেরে বিশ্বনবী (দ) আরও ভয়ংকর শাস্তির কথা শোনালেন। বললেন- কোর’আনের কোন আয়াতের অর্থ নিয়ে বিতর্ক কুফর। এবং কোন অর্থ নিয়ে মতান্তর উপস্থিত হোলে আমাদেরকে কি করতে হবে তারও নির্দেশ তিনি আমাদের দিচ্ছেন। বলছেন, কোন মতান্তর উপস্থিত হোলে তা আল্লাহর উপর ছেড়ে দাও । অর্থাৎ দীনের ব্যাপারে যখনই মতান্তর উদ্ভব হবে তখনই চুপ হয়ে যাবে, কোন তর্ক-বিতর্ক করবে না। অর্থাৎ বিতর্কে যেয়ে কুফরি করবে না, এবং যে বিষয়ে বিতর্কের অবকাশ নেই সেই সেরাতুল মোস্তাকীম, দীনুল কাইয়্যেমাকে আকড়ে ধোরে থাক, এখানে লক্ষ্য করার একটা বিষয় আছে, দীনের ব্যাপার নিয়ে বিতর্ককে আল্লাহর রসুল (দ) কোন পর্যায়ের গুনাহ, পাপ বোলে আখ্যায়িত করছেন। চুরি নয়, হত্যা নয়, ব্যভিচার নয়, বলছেন- কুফর। যার চেয়ে বড় আর গোনাহ নেই, শুধু তাই নয় যা একজনকে এই দীন থেকেই বহিষ্কৃত করে দেয়।
 
এতবড় শাস্তি কেন? শেষ নবীর (দ) হাদীস থেকেই এর উত্তর পাওয়া যাবে। তিনি বলছেন- তোমরা কি জান, ইসলামকে কিসে ধ্বংস করবে? এই প্রশ্ন করে তিনি নিজেই জবাব দিচ্ছেন- শিক্ষিতদের ভুল, মোনাফেকদের বিতর্ক এবং নেতাদের ভুল ফতোয়া । যে কাজ ইসলামকেই ধ্বংস করে দেয় সে কাজের চেয়ে বড় গোনাহ আর কি হোতে পারে! তাই বিশ্বনবী (দ) এই কাজকে কুফ্রি বোলে সঠিক কথাই বলেছেন।
 
এই জাতির মহাদুর্ভাগ্য। আল্লাহর ও তার রসূলের (দ) এতসব কঠোর সতর্কবাণী এই উম্মাহর পণ্ডিতদের কিছুই মনে রইল না। তারা সারা জীবন অক্লান্ত পরিশ্রম করে কোর’আন-হাদীসের সুক্ষ্মাতিসুক্ষ্ম বিশ্লেষণ করে এক বিরাট ফিকাহ শাস্ত্র গড়ে তুললেন। এদের মণীষার, প্রতিভার, অধ্যবসায়ের কথা চিন্তা করলে শ্রদ্ধায় মাথা নত হয়ে আসে, কিন্তু তাদের ঐ কাজের ফলে এই উম্মাহ ছিন্ন-বিছিন্ন হয়ে ধ্বংস হয়ে গেলো। শত্র“র কাছে পরাজিত হয়ে গেলো।
 
ফিকাহর যে অতি বিশ্লেষণ করা হয়েছে তার পক্ষে একটি যুক্তি আছে এবং সে যুক্তি আমি সম্পূর্ণ স্বীকার করি। সেটা হোচ্ছে ইসলামের আইন-কানুনের বিচারালয়ে ব্যবহার। অর্থাৎ বিচারালয়ে এই আইনের সুক্ষ্ম প্রয়োগ যাতে কোন নিরপরাধ শাস্তি না পায়। অনৈসলামিক যেসব আইন বর্ত্তমানে পৃথিবীতে চালু আছে, অর্থাৎ মানুষ রচিত আইনগুলি, এগুলিও সুক্ষ্মভাবে বিশ্লেষণ করেই বিচরালয়গুলিতে বিচার করা হয়- উদ্দেশ্য সেই একই- সুবিচার। কিন্তু সে জন্য কোন দেশেই জ্ঞানের অন্যান্য সমস্ত শাখাকে অপ্রয়োজনীয় ঘোষণা করে সেই দেশের সংবিধানের এবং আইনের সুক্ষ্ম বিশ্লেষণকে সকলের জন্য বাধ্যতামূলক করে দেয়া হয় নি। শুধু যারা আইনজ্ঞ হোতে চান, আইনজীবি হোতে চান তারা স্ব-ইচ্ছায় ঐ বিষয় নিয়ে পড়াশুনা করেন, ডিগ্রী নেন এবং তারপর আদালতে যোগ দেন। অর্থাৎ চিকিৎসা, প্রকৌশল, স্থাপত্য, শিক্ষা, সাংবাদিকতা ইত্যাদির মত আইনকেও একটি বিশেষ (special) জ্ঞান হিসাবে শিক্ষা করেন। কিন্তু আমাদের ধর্মীয় পণ্ডিতরা তা না করে জাতির মধ্যে এমন একটা ধারণা সৃষ্টি করে দিলেন যে আইনজ্ঞ হওয়াই মানুষের একমাত্র লক্ষ্য হওয়া উচিৎ, জ্ঞানের অন্যান্য শাখা শিক্ষা করার কোন প্রয়োজন এ জাতির নেই। এই কাজের অবশ্যম্ভাবী পরিণতি যা হবার তাই হলো, জাতি জ্ঞানের অন্যান্য শাখাসমূহে যে বিস্ময়কর জ্ঞান চর্চা করে পৃথিবীর শিক্ষকের আসন লাভ করেছিলো তা ছেড়ে দিয়ে একটি মুর্খ, অশিক্ষিত জাতিতে পরিণত হলো। উদাহরণরূপে বলা যায় যে, আজকের কোন রাষ্ট্রে যদি শিক্ষা নীতি এই করা হয় যে, সেই রাষ্ট্রের সংবিধান ও ঐ সংবিধান নিসৃতঃ আইন-কানুন ও তার ব্যাখ্যা-বিশ্লেষনই একমাত্র শিক্ষার বিষয়বস্তু হবে, বর্ত্তমানের মাদ্রাসা শিক্ষার মত, তবে কি হবে? নিশ্চিতভাবে বলা যায় যে, তাহলে বিদ্যালয়গুলিতে নিচু ও প্রাথমিক শ্রেণী থেকেই ঐ বিষয় একমাত্র পাঠ্যবিষয় করা হবে। দু’এক প্রজন্মের মধ্যেই ঐ রাষ্ট্রের লোকজন শুধু তাদের দেশের সংবিধান ও আইন-কানুনের সুক্ষাতিসুক্ষ্ম ব্যাখ্যা-বিশ্লেষণ ছাড়া আর কিছুই জানবে না, অন্যান্য সব বিষয়ে অজ্ঞ হয়ে যাবে। জাতির যা ভাগ্য হওয়া উচিত তাই হলো- অন্য জাতির কাছে পরাজিত হয়ে যে সংবিধান ও আইন-কানুন নিয়ে এত বিশ্লেষণ করা, সেই আইন-কানুন বাদ দিয়ে বিজয়ী জাতির আইন-কানুন গ্রহণ করা হলো। নিজেদের আইন-কানুন সংবিধান শুধু ব্যক্তিগত পর্যায়ে কোন রকমে টিকে রোইলো। যে আইন শিক্ষাকেই একমাত্র শিক্ষণীয় বোলে ঘোষণা করা হলো, মুসলিম দুনিয়াতে আজ সেই আইনে বিচার হয় না, বিচার হয় পাশ্চাত্যের মানুষের তৈরী, গায়রুল্লাহর আইনে, দণ্ড হয় পাশ্চাত্যের দণ্ডবিধি মোতাবেক অর্থনীতি পরিচালিত হয় পাশ্চাত্যের সুদভিত্তিক অর্থনীতি মোতাবেক। অথচ এ সবই ফিকাহ শাস্ত্রের আওতাধীন। তবুও এদের মাদ্রাসগুলিতে অন্ধের মত এগুলো পড়িয়ে যাওয়া হাচ্ছ, শিক্ষা দেয়া হচ্ছে। যে আইনের প্রয়োগই নেই সেই আইনই শিক্ষা দেয়া হচ্ছে, পরীক্ষা নেয়া হচ্ছে। কী নিষ্ঠুর পরিহাস। অতি বড় সুন্দরী না পায় বর, অতি বড় ঘরনী না পায় ঘর। তাই আল্লাহ ও তার রসুল (দ) বারবার সতর্ক করে দিয়েছেন দীন নিয়ে বাড়াবাড়ি না করার জন্য। কাউকে বাড়াবাড়ি করতে দেখলেই রাগে বিশ্বনবীর (দ) পবিত্র মুখ লাল হয়ে যেতো। কারণ তিনি জানতেন যে, অতি বড় সুন্দরী ও অতি বড় ঘরণীর মত অতি বড় মুসলিম না পায় দুনিয়া না পায় জান্নাত।
আতাহার হোসাইন, বার্তা সম্পাদক, দৈনিক দেশেরপত্র।

নতুন বাংলাদেশের সন্ধানে… আমিও থাকবো এ কাফেলায়!

1

by Watchdog BD

ঠিক আছে মেনে নিলাম ৭১’এর যুদ্ধাপরাধী ও রাজাকারের দলই আমাদের আসল সমস্যা। চারিদকে রব উঠছে এদের নির্মূল করলেই নাকি দেশের সব সমস্যায় ম্যাজিকেল চেঞ্জ আসবে। আসুন এবার এ সমস্যরা স্থায়ী সমাধানের দিকে চোখ ফেরাই। যুদ্ধাপরাধীদের নির্মুল এখন সময়ের ব্যপার মাত্র। এ নিয়ে নতুন কোন তেনা প্যাচানোর সুযোগ নেই। বাকি রইল রাজাকারের দল। এখানে আমাদের মূখ্যমন্ত্রীর বয়ান আমলে না নিলে দেশদ্রোহির খাতায় নাম লেখাতে হবে। এই যেমন তিনি বলেছিলেন ‘সব রাজাকারই যুদ্ধাপরাধী নয়’…বক্ত্যবের সাথে দ্বিমত করার কারণ দেখিনা। ৭১’সালে আমাদেরর বাড়ির কাজের ছেলে গিয়াস উদ্দিন নাম লিখিয়েছিল রাজাকারের খাতায়। সে বছর সেপ্টেম্বরের দিকে তার একটা ইন্টারভিউ নিয়েছিলাম। মূল উদ্দেশ্য ছিল বাড়ি হতে চুরি যাওয়া জিনিসগুলোর একটা হদিস করা। গিয়াস উদ্দিন গালভরা হাসি দিয়ে জানিয়েছিল চুরির ব্যপারটা তারই কাজ। তবে সে একা করেনি অপকর্মটা। সাথে জড়িত ছিল স্থানীয় রাজাকারের কমান্ডার। ডিসেম্বরের শেষ দিকে গেসুকে আটকায় স্থানীয় আওয়ামী লীগের লোকজন। বড় ধরনের চাঁদার দাবি মেটাতে না পারার কারণে তার গলা কেটে ঝুলিয়ে রাখা হয় শহরের মূল চত্বরে। গেসুর মত এমন অনেক রাজাকার ছিল যাদের যুদ্ধাপরাধী হিসাবে বিবেচনা করা যায়না। যেমন যায়না আমাদের মূখ্যমন্ত্রীর বেয়াইকে(এই বেচারা কেন রাজাকারে নাম লিখিয়েছিল তা এখনো পরিস্কার হয়নি)… ওদের অনেকে পেটের দায়ে অথবা দাও মেরে ঝটপট মাল কামানোর উদ্দেশ্যে নাম লিখিয়েছিল শত্রু ক্যাম্পে। তর্কের খাতিরে এবং দেশের সুশিল সমাজের দাবি মেটাতে ধরে নিলাম এরাও রাষ্ট্রদ্রোহি এবং গণনির্মুলের আওতায় আনা হবে। ভুলে গেলে চলবেনা আমরা সমস্যার স্থায়ী সমাধান নিয়ে কথা বলছি। এবার আসা যাক বাকিদের প্রসঙ্গে। ধরে নিলাম ৭১’এর পরে জন্ম নেয়া জামাত-শিবিরের সদস্যরাও রাজাকার অথবা দেশকে পাকিস্তান বানানোর এজেন্ডা বাস্তবায়নের অপরাধে রাষ্ট্রদ্রোহি। রাষ্ট্রদ্রোহিদের নির্মুল আইনের চোখে বৈধ। তালিকায় এদেরও নাম থাকবে।

এভাবে খুঁজতে থাকলে সংখ্যাটা কত দাঁড়াবে? অনেকে বলেন প্রায় ১ কোটি। মাদ্রাসার ছাত্র হতে শুরু করে মসজিদের ইমাম, মুয়াজ্জিনদেরও বাদ দেয়া যাবেনা। কারণ তারাও রাজাকার তৈরীর ফ্যাক্টরীর সক্রিয় সদস্য। এবার আসুন এদের সবাইকে সমাজ হতে আলাদা করি। দ্ধিতীয় বিশ্বযুদ্ধে হিটলারের সৃষ্ট কনসেনষ্ট্রেশন ক্যাম্পের আদেলে ক্যাম্প বানাই। মাসের পর মাস অনাহারের অর্ধাহারে রেখে দুর্বল করার মাধ্যমে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দেই। দেশে গ্যাসের সমস্যা থাকলে কেন্দ্র (ভারত) হতে গ্যাস এনে গ্যাস চেম্বারে পুড়িয়ে মারি। এভাবে একদিন দেশ হতে রাজাকার, দেশদ্রোহি, রাজাকার তৈরীর মেশিনারীজ সহ সবকিছু নির্মুল হয়ে যাবে। ১ কোটি লাশ মাত্র ৫৫ হাজার বর্গমাইল এলাকায় কবর দিতে অসুবিধা হতে পারে। এ ক্ষেত্রে ওসামা বিন লাদেনের লাশ দাফন করায় ওবামা প্রশাসনের পথ অবলম্বন করলে কাংখিত ফল পাওয়ার সম্ভাবনা থাকবে। বঙ্গোপসাগরে ভাসিয়ে দিতে হবে এসব লাশ। হাঙ্গর, কুমির, কুকুর, বেড়াল, হিংস্র মাছের শিকার হয়ে একদিন পৃথিবী হতে মুছে যাবে এদের উপস্থিতি। সমস্যার পাকাপোক্ত সমাধান চাইলে দেশের অলিগলিতে গজিয়ে উঠা মসজিদ, মাদ্রাসা গুলোও গুড়িয়ে দিতে হবে। যারা ধার্মিক হয়ে বেঁচে থাকতে চাইবে তাদের জন্মনিয়ন্ত্রনের আওতায় এনে স্থায়ী বন্ধ্যাত্ব বাধ্যতামূলক করতে হবে। এবার আসুন কল্পনা করি এবং স্বপ্ন দেখি এমন একটা বাংলাদেশের। ধরে নেই বাংলাদেশ এখন শাহরিয়ার কবির ও গণজাগরন মঞ্চের স্বপ্নের দেশ।

এ এক নতুন বাংলাদেশ। এখানে মৌলবাদের খুটি হয়েছে উৎপাটিত। জঙ্গিবাদ এখানে ইতিহাস শিক্ষার অধ্যায়। তার বদলে এখানে প্রবাহিত হচ্ছে বাঙালি জাতীয়তাবাদের স্নিগ্ধ বাতাস। এখন মঙ্গল প্রদীপের আলোতে সন্ধ্যা নামে। সকাল বেলা আযানের ধ্বনিতে কলুষিত হয়না শহর, বন্দর, নগর, হাট, মাঠ, ঘাটের বাতাস। পাখিরাও কিচির মিচির শব্দে উচ্চারণ করেনা মৌলবাদী হামদ ও নাথ। বরং তাদের মুখে কবি গুরুর কবিতা ও গান। গৃহবধুদের জন্যও এখানে স্বামীর পাশাপাশি নাগর রাখার অধিকার নিশ্চিত করা হয়েছে। এমন একটা সুজলা, সুফলা সোনার বাংলাদেশের জন্য আমার একটাই প্রশ্ন থাকবে, এখানে লুটেরাদের স্থান কি হবে? যে নেতা নেত্রীরা চেক দিয়ে চাঁদাবাজি করলেন হবে কি তাদের বিচার? পদ্মাসেতু খেকো আবুল চোরা, রেলখেকো সুরঞ্জিত চোরা, হলমার্ক ও ডেসটিনি খেকো রাজনীতিবিদ, আমলাদের পরিচয় কি হবে? দিনের পর দিন বছরের পর ধরে যারা জনগনের পকেট কেটে নিজেদের ভাগ্য গড়েছেন তাদের কি আনা হবে বিচার আওতায়? যে হায়েনা দেশের প্রধানমন্ত্রী হয়ে মূখ্যমন্ত্রীর তকমা লাগালেন তার পরিণতিই বা কি হবে? বিচার হবে কি এসব অন্যায়, অনাচার আর কুকর্মের? যদি তা হওয়ার নিশ্চয়তা থাকে আমিও নাম লেখাতে চাই এ কাফেলায়। অন্যায় কেবল রাজাকাররাই করেনি, অন্যায় করেছে এ দেশের রাজনীতিবিদ, আমলা, ডাক্তার, ইঞ্জিনীয়ার, শিক্ষক, ব্যবসায়ী, উকিল, বিচারক সহ লাখ লাখ রক্তখেকো পশু। কাদের মোল্লার রুমমেট বানাতে তাদেরও কি পাঠানো হবে ম্যানিলা রশির দুয়ারে? যদি তা নিশ্চিত হয়, আমিও আছি জাতীয়তাবাদের কাতারে। তবু সুন্দর হউক আমাদের জন্মভূমি। কলংকমুক্ত হউক এ দেশের মাটি, আকাশ, বাতাস…
http://www.amibangladeshi.org/blog/01-14-2014/1437.html

Fascist Entropy of an once-Democratic Politics in Bangladesh

M. Aktaruzzaman (Zaman)

“Fascism denies, in democracy, the absurd conventional untruth of political equality dressed out in the garb of collective responsibility ….” Benito Mussolini.

 

Even after a decade of Mussolini’s pronouncement as to the basic reactionary tenets of fascism, the word rapidly suffered a massive interpretative inflection, that George Orwell in his 1944-essay “What is Fascism” could not come up with a good definition of what fascism is and wrote in desperation: “all one can do for the moment is to use the word with a certain amount of circumspection and not, as is usually done, degrade it to a level of a swearword.” In the today’s miasmic milieu of Bangladeshi Politics, in addition to the swearword “razakar”, the word “fascist” is also being thrown around in random both by BNP and its perpetual nemesis AL. It may not have poignancy right at this point, but it certainly is very important to examine the issue further for the future politics of our country. In this write up I would like expound the situation a little further.

 

What is Fascism?

“Fascis” (an Italian word) means bundle or unit, while “fasces” (a Latin word) is a symbol of bound sticks used as a totem of power in ancient Rome. These two roots aptly describes the basic tenets of fascism: unity and power. However, the nature of fascism espoused by Hitler in Germany, Mussolini in Italy or Franco in Spain is not exactly the same, still there are some basic features than characterizes any fascist movement:

Authoritarian leadership: A fascist state requires a single leader with absolute authority who is all-powerful and lords over the totality of the state affairs with no limits whatsoever. There also can be a cult of personality around the leader.

Absolute power of state: “the fascist state organizes the nation, but leaves a sufficient margin of liberty to the individual; the latter is deprived of all useless and possibly harmful freedom, but retains what is essential; the deciding power in this question can not be the individual, but the state alone” – thus goes Mussolini to encapsulate the fact that there is no law or other power that can limit the authority of the state. This is an antithesis of liberal doctrines of individual autonomy and rights, political pluralism and representative government as espoused by the likes of Rousseau – yet it envisions broad popular support.

Strict social order: To eliminate the possibility of chaos than can undermine state authority, fascism maintains a social order in which every individual has a specific place that can not be altered. This “new order” often is in clash with traditional institution and hierarchies

Nationalism and super-patriotism: Fascism digs into the past with unreal romanticism and espouses an historic mission and national rebirth.

Jingoism: Aggression is felt to be a virtue while pacifism a cowardice. This is how Mussolini writes – “fascism ….. believes neither in the possibility nor the utility of perpetual peace….. war alone brings up to its highest tension all human energy and puts the stamp of nobility upon the people who have the courage to meet it.”

Dehumanization and scapegoating of the enemy: Typically every fascist regime seek out certain group or groups of people – ethnic or religious or ideological as enemy.

 

Is the Current Bangladesh Regime Fascist?

With the above features of fascism in mind, let’s see how our current regime in Bangladesh fares:

Leadership: In democratic states, power of state is kept in check by constitutional provisions whereby the stately business is run, usually, by three co-equal branches of government, namely, executive, legislative and judicial. In Bangladesh, the legislative wing is clipped by article 70 for many years. Its integrity also is jeopardized by a lack of intra-mural democracy in most of the political parties including the ruling Awami League. Coupled with the prevailing trickle-down politics, where leadership is bestowed upon as a blessing from the party chief for nonpolitical reasons that at times can be plainly nefarious, has brewed a miasma where the party chief enjoys a demi-God status.  Judiciary independence, in addition, is a total sham as evidenced by open executive intervention in judicial matters. In fact, the current regime abetted by its myriad of political outfits, has shown a keen interest in using judiciary for the sole purpose of harassment, intimidation and silencing of opposing voices. Thus all the three branches of government has now morphed into a single behemoth bent to serve the wish one single person who is none but the all-powerful Prime Minister – Sheikh Hasina Wajed.

 

She wields extraordinary power beyond her constitutional ambit. Borrowing a certain amount of mana from her slain father, she also has cultivated a cult where, even her ministers kisses her feet with no shame whatsoever. It is widely reported that even the Awami League leadership was not in favor of the 15th. amendment, and it was not part of her election pledges in 2008, yet it happened only because of the singular wish of Sheikh Hasina. The eventual entropy that has befallen on today’s Bangladesh thus falls squarely on her shoulder. Now after a flawed election on 01/2014, even though her electoral popularity is at nadir, she continues to remain the only person whose opinion matters. With over 3/4th majority in the 10th. parliament, and with Article 70 in place, she still has the capacity to rule by further amendment in constitution, if she chooses.

Although the Prime Minister continues to chant the popular democratic slogans, actually she has become a hindrance by disenfranchising more than 50% of voting population by cunning political games.

State Power: Power of state is on the rise for more than a decade in Bangladesh. Although there is no declared state of emergency at over the past years, the case Limon vs Government is not only a forme fruste, but a routine daily fact of national life. State outfits like Rapid Action Battalian, Police etc. can trample individual rights with impunity. Slapping of a national pride – Shohag Gazi is a daily happenstance. State can now put political leaders behind bar even without prima facie evidence of any wrongdoing. Given the prevailing politicization of Judiciary, individual rights almost to the point of forfeiture. Benito Mussolini conceptualized the process as “all within the state, nothing outside the sate, nothing against the sate.”

Social Order: By introducing three hundred fiefdoms, each headed by a member of the parliament; by nominating non-politician businessmen and thugs for member of parliament; by decapitating the law-making power of the MPs; and by clipping the wings of the elected local governing bodies – the government has instituted a social order where the cadres of government-affiliated outfits (“leagues” and “porishods” of variegate Awami shades and colors) rule over the commoners with impunity. On top on that, there are governmental outfits like police, RAB etc. also continue to be used as enforcers of governmental whims. At the same time, traditional non-political institutions and hierarchies are being decapitated by rampant politicization (both by the ruling Awami League and by its perpetual nemesis Bangladesh Nationalist Party).

Nationalism and Superpatriotism and dehumanization and/or scapegoating of enemies: The government, instead of promoting quiet inclusive nationalism, is bent on promoting a super-patriotism at the expense of non-Bengali Bangladesh nationals. Denial of existence of indigenous ethnic population by our ex-foreign minister is just a naked example. It also is curious, how blatantly the ruling party labels every opposing voice as “rajakar-sympathizer”. It has divided the nation two camps; pro-Liberation and anti-Liberation. Even valiant and decorated heroes of liberation war are not being spared.

Jingoism: Well, militarily, Bangladesh is not powerful enough to consider military expansion, yet it’s portrayal of simple wining of a legal battle as “somudra-bijoy” talks of its mental makeup. But, yes, they are in a permanent war against those whose voice are not in sync with the ideas and ideals of the ruling Awami League.

How about BNP?

Authoritarian leadership is a staple in BNP-politics since its inception. This has now morphed into a family-owned enterprise of the “lesser Rahman” – I mean General Ziaur Rahman. Their intolerance to opposing (or even neutral) view is amply exemplified by the way the treated one of their founder member – Dr. B. Chowdhury. Despite a disastrous leadership during “2006 to 2008-debacle” Khaleda Zia continues to rule over the party with an authority that is unheard of in any any democracy sans Bangladesh. Her heir apparent, Tareq Zia, despite his reprehensible Hawa-Vobon activities during the last BNP-regime, still welds more power than the any senior party leaders. It is a widely reported story that Khaleda once forfeited all the cellular devices from her senior leadership during a meeting, is just an example of her crude power that overwhelms the collective power of the party leaders. Just like in Awami League, they also a slain leader who has become more like a cult-leader in BNP-culture.

The consolidation of the state power to the verge of tyranny, in fact, began during the previous BNP-regime by introducing the now-infamous Operation Clean Heart that rapidly degenerated into an Operation Heart Attack! And the origin of RAB and the the concept of extra-judicial execution by “cross-fire” is of BNP-origin.

Just like AL, BNP also is guilty of promoting the gradual degeneration of traditional social order by empowering parliament members at the expense of local government. Pan-politicization of every sphere of national life is also a staple of BNP.

However, BNP did not had a jingoistic attitude, however, their favorite scapegoat, under the leadership of Khaleda Zia, remained India.

 

Conclusion:

Yes, definition of fascism fluid, but is definitely not democracy as its biggest proponent Mussolini once said, “democracy is beautiful in theory; in practice it is a fallacy”. And it will not be an untrue statement if one posits that the state of democracy in Bangladesh, currently in a state of total shamble. Election occurred where voter participation was an all-time low and where more than fifty percent voters were disenfranchised to begin with. As per an eminent Bangladeshi jurist – Shahdin Malik, it was more negotiated and predetermined than was competitive.

 

Given the reasons and the facts in ground, it is very easy to label a regime with characteristics of the current Awami League regime as fascist. There can be arguments both pro and con, but certain facts are undeniable. BNP right now, is not in power. However, the history of BNP under the leadership of Khaleda Zia is not very kosher either.

In a previous op-ed in the daily start (December 19th, 2013) I hoped for sanity to prevail. But the leadership of our God-forsaken homeland, apparently, has a bigger saint to heed to:

history of saints is a history of insane people”. (Benito Mussolini

M. Aktaruzzaman (Zaman)

জিয়াউলের সুখী জীবনঃ সরকারী ধর্ষণ ট্রিলজি পার্ট টু

 

–          আমান আবদুহু

 

ঘুম ভেঙ্গে গেছে কর্ণেল জিয়াউলের, চোখ দুটো অবশ্য এখনো বন্ধ। নাসিমার কথা শোনা যাচ্ছে, সম্ভবত ফোনে কথা বলছে কারো সাথে। মেজাজটা খিচড়ে গেলো। দুপুরের কথা মনে পড়ে গেছে, তখনও মেজাজ চরম খারাপ ছিলো। শরীরটা ভেঙ্গে আসছিলো, ইউনিফর্ম না খুলেই বেহুশের মতো ঘুমিয়ে পড়েছিলো সে।

 

রাতে সাতক্ষীরায় অপারেশন ছিলো। এরপর ঢাকা পৌছতে পৌছতে বিকেল। র‍্যাবের পাজেরো গাড়ি গুলো অনেক কমফোর্টেবল, তবু জিয়াউলের অনেক ক্লান্তি লাগছিলো। গাড়ি বা ট্রেনে তার ঘুম আসে না। এমনকি বিমানভ্রমণের সময়ও সে ঘুমাতে পারেনা। সারা রাতের দৌড়াদৌড়ি আর দীর্ঘ দশ বারো ঘন্টার জার্নি শেষে বিকেলে বাসায় ঢুকে যদি দেখে জাফর সোফায় বসে আছে, তখন কেমন লাগে?

 

ছেলে আর মেয়ে দুটাই তখন কলেজ ভার্সিটিতে থাকে। বাসায় আর কেউ নেই। জাফরকে দেখে মেজাজ সামলে রাখা মুশকিল হয়ে পড়েছিলো তার জন্য। একবার ভেবেছিলো সার্ভিস রিভলবারটা দিয়ে গুলি করে দিলে কেমন হয়! কিন্তু গুলি করা হয়নি। জাফরের সাথে কোন কথাও বলেনি। তার মুখটা হাসি হাসি হয়ে উঠছিলো, সম্ভবত কুশল বিনিময় করতে যাচ্ছিলো। কিন্তু জিয়াউল তাকে ঐ সুযোগ দেয়নি। বেডরুমে এসে সোজা শুয়ে পড়েছিলো।

 

এখন ঘুম ভেঙ্গেছে। নাসিমার গলার স্বর আবারও আবছা শোনা যাচ্ছে। কতক্ষণ হলো? এক চোখ খানিকটা খুলে হাতটা টেনে চোখের সামনে আনলো। বিএনপির এক নেতা রিষ্টওয়াচটা এনেছে সুইজারল্যান্ড থেকে। প্রায় নয়টা বাজে। উত্তরা হেডকোয়ার্টারে বারোটার ভেতরে যাওয়া দরকার।

 

হাতটা বাড়িয়ে জিয়াউল দু’পায়ের মাঝে পুরুষাঙ্গটা ধরলো, শক্ত হয়ে আছে। গোসল করতে হবে। গতকাল রাতের ঘটনা মনে পড়াতে মেজাজ খারাপ ভাবটা একটু দূর হয়েছে। মেয়েটার শরীর খুবই ফ্লেক্সিবল ছিলো, বহুদিন এতো বেশি উপভোগ করেনি জিয়াউল। এজন্যই বোধহয় শরীরটা একদম ক্লান্তিতে ছেড়ে দিয়েছিলো।

 

জিয়াউলের বন্ধ চোখের ভেতর মেয়েটা চলে এসেছে। সাতক্ষীরা শহরের বাইরে প্রায় বিশ কিলোমিটার দূরের এক গ্রামে এমন সারপ্রাইজ থাকবে জিয়াউল স্বপ্নেও ভাবেনি। এমনকি গতকাল ঢাকা থেকে রওনা হওয়ার পর রাস্তায় সে একবার চিন্তা করছিলো, ফিরে এসে ধানমন্ডিতে মিথিলার বাসায় যেতে হবে।

 

রাত দুইটার দিকে সে ছিলো শহরের এক বাড়িতে। অপারেশন তখনও শেষ হয়নি, তবে তার বিরক্ত লাগছিলো কিছু না পেয়ে। তেমন কোন টাকাপয়সা বা স্বর্ণ নেই, সোর্স ভুল ইনফর্মেশন দিয়েছে। বাড়ীর লোকগুলো তো নেইই। সে বাইরে এসে জীপে বসে ছিলো। প্লাটুনের কয়েকজন বাড়ির ভেতরে থেকে গিয়েছিলো, কিন্তু জিয়াউলের নজর উঁচু। সবজায়গায় সে নিজে সরাসরি ইনভলভ হয়না।

 

একটু পরে স্থানীয় লীগের লোকজন সহ গ্রুপের সবাই বেরিয়ে এসেছিলো। বুলডোজার মাত্রই বাড়ির সামনের দেয়াল ভাংতে শুরু করেছে। জিয়াউল একটা সিগারেট ধরিয়ে অলস চোখে তাকিয়ে আছে। ছাত্রলীগ সভাপতি ছেলেটা গাড়ির আশেপাশে ঘুরঘুর করছে, হয়তো কিছু বলতে চায়। অথবা এমনিই হয়তো খাতির জমাতে চায়। এমন সময় রাশেদের ফোনটা আসলো।

 

কর্ণেল রাশেদ তার দীর্ঘদিনের বন্ধু, সত্যিকার একটা বন্ধু। একসাথে ক্যাডেট কলেজে পড়া থেকে শুরু। এখনও দুজনে একসাথে র‍্যাবে আছে। জিয়াউল ভালো কিছু পেলে সাথে সাথে রাশেদকে জানায়। রাশেদও সবসময় বন্ধুর কথা মনে রাখে। রাশেদ জানালো রাজাপুর নামে একটা গ্রামে আছে সে। বাড়ির মালিক আমেরিকান সিটিজেন। অনেক স্বর্ণ আছে, জিয়াউল যদি আসতে পারে তাহলে তা ওয়ার্থ করে।

 

সাথে একজন কনষ্টেবলকে দিয়েছিলো ঐ থানার ওসি, রাজাপুরের রাস্তা চেনে সে। প্রায় আধাঘন্টা পর যখন জিয়াউল ঐ গ্রামে পৌছলো, বাড়িটা পেতে কোন সমস্যা হলো না। রাশেদ বলে দিয়েছিলো পাকা দু’তলা বাড়ি। পুরো গ্রামে এমন বাড়ি একটাই। ছোট বাজারটার কয়েকশ গজ দূরে, রাস্তার উপরে। তার জন্য আসল সারপ্রাইজ অপেক্ষা করছিলো একটা রুমে, রাশেদ তাকে ঐ রুমে নিয়ে গেলো। আমেরিকা থেকে ক্রিসমাসের ছুটিতে বেড়াতে এসেছে পরিবারটা, বড় মেয়েটার বিয়ে দেবে। প্রচুর স্বর্ণ আর দামী দামী জিনিসপাতি। সবাইকে অন্য একটা রুমে আটকে রাখা হয়েছে। পুরো বাড়িতে র‍্যাবের সেপাইরা ঘুরাঘুরি করছে, জিনিসপত্র নেড়েচেড়ে দেখছে। মেয়েটা ঐ রুমে ছিলো। প্রথমে অনেক ঝামেলা করেছিলো, রেগুলার ইয়োগা করা দুধে মাখনে বড় হওয়া চমৎকার একটা শরীর। আর জিয়াউল ভালো করেই জানে কিভাবে এসব ঝামেলা সামলাতে হয়।

 

জিয়াউলের অনেক ভালো লেগেছে। পরে বাইরে বের হয়ে দেখলো রাশেদ দাড়িয়ে সিগারেট টানছে। গেটের ভেতর দেয়ালের পাশে তিনজন লোক হাত পা বাঁধা হয়ে পড়ে আছে। জিয়াউল হেসে বন্ধুর হাত থেকে সিগারেট নিতে নিতে বললো, তুই শালা একটা স্যাডিষ্ট। এভাবে ফেলে রেখেছিস কেন? কি করবি?

 

রাশেদ বললো এরা হিন্দু, গুলি করা যাবেনা। বাড়িতে আগুন দিয়ে ওখানে ফেলে দিবো। প্রথম আলোর সাংবাদিক আছে বাইরে। ঘটনা হবে এলাকা থেকে যৌথ বাহিনী চলে যাওয়ার পর অপজিশনের লোকজন এসে এদের পুড়িয়ে সরকারের উপর প্রতিশোধ নিয়েছে।

 

জিয়াউল অবাক হয়ে গেলো, বলিস কি? হিন্দু? বুঝতেও পারিনি দোস্ত। হাহাহাহাহা আল্লা বা ভগবান কিছু ডাকেনি। খালি ওহ গড ওহ বলছিলো। রাশেদও বন্ধুর সাথে অট্টহাসি দিয়ে উঠলো।

 

এতো খাটাখাটানির অপারেশন, তার উপর আবার দীর্ঘ রাস্তা ভ্রমণের পর জিয়াউল ভালোই ক্লান্ত ছিলো। কিন্তু বাসায় ঢুকেই যদি দেখে জাফর, কেমন লাগে? মনে পড়াতে মেজাজটা আবার খারাপ হলো।

 

নাসিমার এই খালাতো ভাইটা একটা চরিত্রহীন লোক। সমস্যা হলো তার পোষ্টিং এসএসএফ এ। জিয়াউল কিছু করতে পারছে না, কিন্তু তার মন বলছে কোন একটা ঘাপলা আছে। আগেও সে দুইতিনবার জাফরকে অসময়ে তার বাসায় আসতে দেখেছে। আর গত কিছুদিন থেকে নিজের অফিসের কাজ এতো বেড়ে গেছে, মাঝে মাঝে জিয়াউল একটানা কয়েকদিনও বাসায় আসতে পারেনা।

 

নাসিমার কণ্ঠ আবারও কানে আসছে। চোখ না খুলেই জিয়াউল ভাবলো, কার সাথে কথা বলছে সে? শুনতে চেষ্টা করলো কান পেতে, জিয়াউলের নামটা একবার বললো মনে হয়। নাসিমা কি ফোনে কথা বলার সময় খিলখিল করে হাসছে?

 

স্যারের ফোনকলঃ সরকারী ধর্ষণ ট্রিলজি পার্ট ওয়ান

by – আমান আবদুহু

 

সিলেটে পড়ার সময় আরিফ ছিলো ভার্সিটির পরিচিত মুখ। গণিত অলিম্পিয়াড, বিতর্ক, বই পাঠ প্রতিযোগিতা সব কিছুতে প্রথম সারির অংশগ্রহণকারী, পরে সে হয়ে গেলো আয়োজনকারীদের একজন। জাফর ইকবাল স্যারের ক্লোজ সার্কেলটার অল্প কয়েকজন ছাত্রের একজন। স্যারের এক ভক্তের সুবাদেইতো গ্রামীণফোনে মোটা বেতনের চাকরীটা হয়ে গেলো, মাষ্টার্সের থিসিস সাবমিট করার আগেই।

এখন আরিফ সারাদিন অপেক্ষা করে কখন অফিস শেষ হবে। সারাদিনই নাদিয়ার কথা ভাবে সে। রুপনগরে নতুন উঠা এপার্টমেন্টের বাসাটা তাকে সারাদিন চুম্বকের মতো টানে। অফিসের গাড়ি যখন তাকে বাসার সামনে নামিয়ে দেয় তখন লিফটের জন্য অপেক্ষা করতেও তর সয় না। অসহ্য মনে হয়। অবশ্য সপ্তাহের কোন কোন দিন তার বউ নাদিয়া দেরী করে অফিস থেকে ফেরে, ঐসব দিনে সে বাইরের কাপড় না খুলেই বসে বসে টিভি দেখে।

টিভিটা তার খুব প্রিয়। আটচল্লিশ ইঞ্চি প্লাজমা টিভিতে একাত্তর টিভি এতো পরিস্কার দেখায়, জীবন্ত হাই ডেফিনিশন! পরদিন শনিবার ছুটি, তাই অনেক রাত হয়ে গেলেও ওরা দুজনে টিভি দেখছিলা। জামাত শিবিরের তান্ডব, বাসে বিএনপির লোকজনের দেয়া আগুন।

এমন সময় দরজায় জোরে জোরে নক করার শব্দ শুনে আরিফ একটু অবাক হয়, সিকিউরিটি তো ফোন করে কিছু জানায়নি। দরজা খুলে দেখে এমদাদ সাহেব এবং তার সাথে দুইজন মোটাসোটা পুলিশ অফিসার দাড়ানো। একজনের দিকে প্রথমেই চোখ চলে যায়, জঘন্য রকমের হোতকা ও কালো। চেহারাটা ভাবলেশহীন, কিন্তু নোংরা ভাব চোখেমুখে। ভয় লাগে, ঘৃণাও লাগে।

এমদাদ সাহেব একই এপার্টমেন্টের আটতলায় থাকেন। স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা ও ব্যাবসায়ী। মাঝে মাঝে লিফটে অথবা নিচের পার্কিং এ দেখা হয়। আরিফ খেয়াল করেছে লোকটা সুযোগ পেলেই নাদিয়ার শরীরে চোখ বুলিয়ে নেয়।

ভেতরে ঢুকে এমদাদ সাহেব আর একজন পুলিশ অফিসার সোফায় বসে, মোটকা অফিসারটা বুকশেলফের বইগুলো দেখতে থাকে। এমদাদ সাহেব পরিচয় করিয়ে দেন, ইনি সালাউদ্দিন সাহেব আমাদের মীরপুর থানার ওসি। আর উনি ফখরুল ভাই, সেকেন্ড অফিসার।

ভোটকা সেকেন্ড অফিসার ফখরুল ততক্ষণে বুকশেলফ থেকে কোরআন, মকসুদুল মোমেনীন আর বেহেশতি জেওর তিনচারটা বই নামিয়ে টেবিলের উপর রাখে। মোটা ভুড়ির জন্য ঝুঁকতে তার একটু কষ্ট হয়। ওসি সাহেব একবার নাদিয়া আরেকবার আরিফের দিকে তাকিয়ে মুচকি হাসেন। পুরুষ্ট গোঁফে হাত বুলাতে বুলাতে জিজ্ঞাসা করেন, তো আরিফ সাহেব কতদিন থেকে জামাত করেন?

আরিফ জোর প্রতিবাদ করতে যায়, অনেক কথা বলে উঠে। এমদাদ সাহেব তাকে থামিয়ে দিয়ে বলে, বুঝতেই পারছেন আরিফ সাহেব এইসব জিহাদী বই আপনার বাসায়, কি ডেঞ্জারাস সিচুয়েশনে পড়েছেন আপনি। এখন থানায় নিয়ে আপনাকে বিস্ফোরক আর ভাংচুর মামলায় আসামী করা হবে। রিমান্ড হবে জেল হবে, আপনার চাকরিও চলে যাবে। আপনার জন্য পুলিশ আদালত বিভিন্ন অফিসে দৌড়াদৌড়ি করতে করতে ভাবীর অবস্থা কি হবে ভেবে দেখেন। আপনাদের দুজনের পুরো জীবনটা তছনছ হয়ে যাবে। কিন্তু আপনি যদি কোঅপারেশন করেন তাহলে কোন সমস্যা হবে না। কেউ কিছু জানবেও না। ডিসিশন আপনার।

বলতে বলতে এমদাদ সাহেব আবারও নাদিয়ার উপর চোখ বুলান।

পরের ঘটনাগুলো যেন সিনেমার পর্দার মতো একেরপর এক ঘটে যায়। আরিফ সোফায় স্থবির দর্শক হয়ে বসে থাকে। কাঁপতে থাকা হাত দিয়ে সে ডাচ-বাংলার চেকে সাইন করে দেয়। এবং তারপর পুরোপুরি প্যারালাইজড হয়ে যায়। একটা কথা বলার শক্তিও সে জোগাড় করে উঠতে পারেনা। কয়েকবার তার বুঝে আসে না এসব কি বাস্তব, না স্বপ্ন দেখছে সে। নাদিয়ার হাত ধরে ওসি সালাউদ্দিন সাহেব বেডরুমে চলে যান। নাদিয়া যেতে চায়নি, কিন্তু ওসি সাহেব গাট্টাগোট্টা শক্তপোক্ত মানুষ। একহাত নাদিয়ার পেছনে রেখে তিনি অনেকটা ঠেলেই নিয়ে যান তাকে।

পরে ওসি সাহেব বেরিয়ে এলে এমদাদ সাহেব ও সেকেন্ড অফিসার ভোটকা ফখরুলও বেডরুমে যায় আর পরে বেরিয়ে আসে। আরিফ ও অন্যরা সবাই মিলে আটচল্লিশ ইঞ্চি এলসিডি স্ক্রীণে একাত্তর টিভি দেখতে থাকে। সেকেন্ড অফিসার ফখরুল ফ্রিজ থেকে একটা ঠান্ডা পানির বোতল এনে ওসি সাহেবের গ্লাসে পানি ঢেলে দেয়।

পরদিন অফিসে আরিফ অসহ্য রাগে দুঃখে ভেঙ্গে যেতে থাকে। এমন এক ঘটনা, কাউকে কিছু বলাও যায় না। দুপুরে সে জাফর ইকবাল স্যারকে ফোন করে। স্যার পুরো ঘটনা শুনে ক্ষোভে ফেটে পড়েন। বলেন, এই দেশে এটা অসম্ভব। যারা একাজ করেছে তারা মুক্তিযুদ্ধের দলটার ভেতরে লুকিয়ে থাকা সুযোগসন্ধানী শত্রু। আরিফ তুমি বিন্দুমাত্র চিন্তা করবে না আমি এখনই প্রধানমন্ত্রীর সাথে কথা বলছি। কালকের ভেতরে তুমি দেখবে তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হবে।

স্যার আরিফকে অনেক সান্তনা দেন।

নাদিয়া সেদিন অফিসে যায়নি। পরদিন থেকে অবশ্য আবার অফিস করা শুরু করে। তবে আরিফের দিকে তাকায় না, আরিফের সাথে কথা বলে না। একসপ্তাহ চলে যায় এভাবে, আরিফ কি করবে বুঝতে পারেনা। শেষপর্যন্ত শুক্রবার রাতে আরিফ চেষ্টা করে নাদিয়া কে বুঝাতে। নাদিয়াকে সে বলে, স্যার বিষয়টা দেখছেন। দেখবে ওদের কঠিন শাস্তি হবে। স্যার বলেছেন এরা জামাত শিবিরের গুপ্তচর। এসময় দরজায় জোরে জোরে ধাক্কার শব্দ!

আরিফের হার্টবিট যেন এক মুহুর্তের জন্য বন্ধ হয়ে যায়। সে জাফর ইকবাল স্যারকে কল করতে থাকে। স্যারের ফোন কেউ রিসিভ করেনা। আরিফ চিন্তায় পড়ে যায়, স্যার তো রাত জেগে পড়ালেখা করেন। কি হলো, স্যার ফোন ধরছেন না কেন? এদিকে দরজায় ধাক্বা বেড়ে যায়, দেরী হলে আশেপাশের ফ্লাটের মানুষজনও জেনে যাবে। কতক্ষণ আর দরজা বন্ধ করে রাখবে!!

পিপহোল দিয়ে সে দেখে আগের তিনজনই আন্তরিক বন্ধুর মতো দাড়িয়ে আছে। দরজা খোলার পর ওসি সালাহউদ্দিন সাহেব হেসে বলেন, কি খবর আরিফ সাহেব? কোথায় কোথায় ফোন করেছিলেন বলে হাহাহাহাহাহা শব্দে একটা আমুদে অট্টহাসি দেন। এরপর এমদাদ সাহেব আর সেকেন্ড অফিসার ফখরুল আরিফের সাথে বসে টিভি দেখে।

ভোটকা ফখরুল চ্যানেল বদলে এমটিভি চালিয়ে দেয়, ঐশ্বরিয়ার নাচ দেখাচ্ছে। নাচ দেখতে দেখতে আওয়ামী লীগ নেতা এমদাদ সাহেব উরুসন্ধিতে হাত দিয়ে অন্ডকোষের নিচের দিকটা চুলকান। ভোটকা ফখরুল সোফায় হেলান দিয়ে বসে নিজের ভুড়ির উপর হাত বুলায়। আরিফ ভাবতে থাকে, জাফর ইকবাল স্যারকে ফোন করতে হবে।

জনগণের নির্বাচন ও ‘সাংবিধানিক’ নির্বাচন

1

by মুহাম্মদ আব্দুল খালিক

 

১.

সমাজ বিবর্তনের ধারাবাহিকতায় ধাপে ধাপে মানুষ সমাজ থেকে রাষ্ট্রের পত্তন করেছে। প্রথমে ছোট ছোট নগর রাষ্ট্র, তারপর বিবর্তনের ধারাবাহিকতায় গড়ে ওঠেছে অধুনা রাষ্ট্রব্যবস্থা। সাম্য, সমানাধিকার, সমসুযোগ, স্বাধীনতা, মানবাধিকার রক্ষা ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠিতকরণকে সামনে রেখে উদ্ভব ঘটেছে রাষ্ট্রব্যবস্থার। আর রাষ্ট্র পরিচালনার জন্য ‘গণতন্ত্রকে’ বিবেচনা করা হয় সবচেয়ে ভারসাম্যপূর্ণ ও উত্তম ব্যবস্থা হিসেবে। এর মাধ্যমে নিজ নিজ রাষ্ট্রের জনগণ নির্ধারণ করে তাদের শাসক। নির্দিষ্ট সময় অন্তর নির্বাচনের মাধ্যমে সরকার গঠনের জন্য জনগণ নির্দিষ্ট রাজনৈতিক দলকে ‘ম্যান্ডেট’ দিয়ে থাকে। আর এসবই পরিচালনা করা হয় রাষ্ট্রের সংবিধানের আলোকে। প্রত্যেক রাষ্ট্রেই ঐ রাষ্ট্রের সংবিধান হচ্ছে সর্বোচ্চ আইন। আমরা জানি যে, রাষ্ট্র গঠনের মূল উপাদান ৪টি- ভূখণ্ড, জনসমষ্টি, সরকার ও সার্বভৌমত্ব। এখানে লক্ষণীয় যে, রাষ্ট্রের মূল উপাদানের মধ্যে ‘সংবিধানের’ উল্লেখ নেই, তবে ‘সংবিধান’ অবশ্যই রাষ্ট্রের একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান।

পৃথিবীব্যাপী যা কিছু আছে সবই মানুষকে কেন্দ্র করে আবর্তিত। রাষ্ট্রও গড়ে ওঠেছে মানুষের প্রয়োজনের তাগিদেই। মানুষ রাষ্ট্রকে গড়েছে তাদের জীবনযাত্রার মানকে উন্নত ও শৃঙ্খলার সাথে পরিচালনা করতে, সম্মিলিতভাবে উন্নয়নে ভূমিকা রাখতে। তাই সব ব্যবস্থাতে মানুষের কল্যাণই মুখ্য বিষয়। আর এ বিষয়টি পৃথিবীর সকল জাতিরাষ্ট্রের সংবিধানেই প্রতিধ্বনিত হয়েছে ‘জনগণই সকল ক্ষমতার উৎস’-এই নীতিটি সন্নিবেশিত করার মাধ্যমে। তাই আপাত দৃষ্টিতে কোনো বিষয় সংবিধানসম্মত মনে হলেও যদি তা ‘জনগণের ক্ষমতাকে’ অবজ্ঞা করে তাহলে অবশ্যই তা পরিবর্তনীয়।

 

২.

গণতন্ত্র বা ডেমোক্রেসী শব্দটি এসেছে গ্রীক শব্দ ডেমোক্রেসিয়া থেকে, যার অর্থ ‘জনগণের শাসন’/ শব্দটির উৎপত্তি ডেমোস (জনগণ) ও ক্রাটোস (ক্ষমতা) থেকে। খ্রিষ্টপূর্ব ৫ম শতকে এথেন্স ও অন্যান্য নগর রাষ্ট্রে বিদ্যমান রাজনৈতিক ব্যবস্থাকে বোঝাতে শব্দটির প্রথম ব্যবহার করা হয়। গণতন্ত্র হলো কোন জাতিরাষ্ট্রের (অথবা কোন সংগঠনের) এমন একটি শাসনব্যবস্থা যেখানে প্রত্যেক নাগরিকের নীতিনির্ধারণ বা সরকারি প্রতিনিধি নির্বাচনের ক্ষেত্রে সমান ভোট বা অধিকার আছে। গণতন্ত্রে আইন প্রস্তাবনা, প্রণয়ন ও তৈরির ক্ষেত্রে সকল নাগরিকের অংশগ্রহণের সমান সযোগ রয়েছে, যা সরাসরি বা নির্বাচিত প্রতিনিধির মাধ্যমে হয়ে থাকে।

 

৩.

আন্তর্জাতিকভাবে যে কোনো নির্বাচন গ্রহণযোগ্য মর্মে বিবেচিত হতে হলে তিনটি শর্ত পূরণের আবশ্যকতা রয়েছে। যথা- (ক) নির্বাচনটি অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ হতে হবে, (খ) নির্বাচনে ভোটার উপস্থিতি সন্তোষজনক হতে হবে এবং (গ) সর্বশেষ অনুষ্ঠিত নির্বাচনে বিরোধী দল হিসেবে স্বীকৃত দলটির নির্বাচনে অংশগ্রহণ নিশ্চিত হতে হবে। দশম সংসদ নির্বাচনের সার্বিক কার্যক্রম ও ব্যবস্থাপনা পর্যালোচনায় প্রতীয়মান হয়, এ তিনটি শর্তের কোনোটিই পূরণ হওয়ার মতো পরিস্থিতি বিদ্যমান নেই। তাই এ নির্বাচনটিকে কোনো বিবেচনাতেই গ্রহণযোগ্য ও ‘জনগণের নির্বাচন’ বলে যায় না এবং এটি গণতন্ত্রের মৌলিক শর্তাবলিও পূরণ করে না।

 

৪.

তবে সরকারদলীয় নেতা-নেত্রী ও বামপন্থী বুদ্ধিজীবীদের একটি অংশের মাঝে এই নির্বাচনকে সংবিধানসম্মত বলে প্রতিষ্ঠিত করার একটি প্রবণতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। তারা বলতে চাচ্ছেন যে, সংবিধানের বিধান মেনে নির্বাচনটি অনুষ্ঠিত হচ্ছে। তাই এটি সংবিধানসম্মত। এখানে কোনো দলের (এমনকি একমাত্র বিরোধী দল হলেও) অংশগ্রহণ করা না-করা তাদের নিজস্ব ব্যাপার। এতে নির্বাচনটি প্রশ্নবিদ্ধ হবে না। তারা এমনকি এটাও বলে থাকেন যে, গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় নির্বাচন হলো সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। তাই গণতন্ত্রের স্বার্থেই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়াটা জরুরি। তাদের কণ্ঠে কণ্ঠ মিলিয়ে বর্তমান প্রধান নির্বাচন কমিশনারও একই কথা বলেছেন।

তাদের এ সব যুক্তিগুলো পর্যালোচনা করলে খুবই বিস্মিত হতে হয়। লক্ষণীয় যে তারা খুবই খেলোভাবে এমন সব বিষয়ের মাধ্যমে দশম নির্বাচনকে ‘সংবিধানসম্মত’ বলার চেষ্টা করছেন যা সচেতন মানুষের কাছে গ্রহণযোগ্য হবার কথা নয়। তারা বলছেন যে, সংবিধানে সরকার মেয়াদ শেষে নির্দিষ্ট সময়ের শেষে নির্বাচন অনুষ্ঠানের কথা বলা আছে, তাই এর ব্যত্যয় ঘটাবার সুযোগ নেই; কিন্তু তারা এটা বলছেন না যে, সংবিধানের মূলনীতিতে জনগণের সমসুযোগ তৈরি, আইনের শাসন প্রতিষ্ঠিতকরণের কথা বলা হয়েছে। এছাড়া সংবিধানের ৭(১) অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে ‘প্রজাতন্ত্রের সকল ক্ষমতার মালিক জনগণ’।

 

৫.

যেখানে ১৫৪টি আসনে কোনো প্রতিদ্বন্দ্বিতা ছাড়াই নির্বাচন সম্পন্ন হয়ে গেল তাকে কি নির্বাচন বলা চলে? এছাড়া বাকী আসনগুলোতে ভোটারবিহীন নামমাত্র যে নির্বাচন হলো তা কি নির্বাচনের পর্যায়ভুক্ত? সেখানে কি যোগ্য কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী ছিল? ৫৩% ভোটার যেখানে তাদের ভোট প্রদানের সুযোগই পেল না তাকে কি গণতন্ত্র বলা যাবে? যেখানে কোনো আন্তর্জাতিক নির্বাচন পর্যবেক্ষক ছিল না সেটা কি সুষ্ঠু নির্বাচনের বৈধতা পাবে? বর্তমান সময়ের সবচেয়ে জনপ্রিয় দল যে নির্বাচনে অংশ নিল না সে নির্বাচন কি জনগণের প্রতিনিধিত্বকারী বলা যাবে?

বাংলাদেশের সরকারব্যবস্থাকে এমনিতেই বলা হয় সাংবিধানিক একনায়কতন্ত্র; যেখানে প্রধানমন্ত্রীকে সব রকমের ক্ষমতা অর্পণ করা হয়েছে (আইন বিভাগ, বিচার বিভাগ ও শাসন বিভাগ)। দশম নির্বাচনের মধ্য দিয়ে কি তা ১৯৭৪ সালের বাকশাল বা স্বৈরতন্ত্রের দিকে এগিয়ে গেল? একদলীয় এই নির্বাচন দেশকে কোন বিপর্যয়ের দিকে নিয়ে যায় তাই এখন দেখার পালা।

লেখক: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে এলএলএম অধ্যয়নরত।

সংখ্যালঘু নিপীড়ন, উদ্বাস্তুদের মিছিল ও মুক্তিযুদ্ধ

1

ফুয়াদ হাসান

হিন্দুরা আবারো আক্রমণের শিকার হলেন। এবার আর বিচারের কথা বলবনা। প্রমাণ হয়ে গেছে বিচার চেয়ে কোন লাভ নেই।

ফেসবুকপূর্ব যুগে আমাদের মিডিয়া আমাদেরকে বোঝাত যে, হিন্দুদেরকে শুধু বিএনপি আর জামায়াতই মারে। গত পাঁচ বছরে আমরা বুঝে গেছি আসলে তাদেরকে আওয়ামী লীগও মারে।

আমাদের দেশে সরকারী দলের লোকজনের অপরাধের সাধারণত বিচার হয়না। এমনকি বিরোধী দলের লোকদের যে অপরাধের বিচার করলে সেই একই অপরাধে সরকারী দলের লোকদেরও বিচারের দাবি জোরালো হওয়ার সম্ভাবনা থাকে তেমন অপরাধে সাধারণত বিরোধী দলকেও ছাড় দেয়া হয়। তাই সরকার হিন্দুদের ওপর কোন আক্রমণেরই বিচার করবেনা। এধরনের অপরাধে বিচার করার সংস্কৃতিই কেউ তৈরি করবেনা। কোথাও কোথাও বিচারে রাজনৈতিক ফায়দা থাকার সম্ভাবনা থাকলেও উপরে বলা কারণেই তা করবেনা। বরং, যাদের হাতে শক্তি ও ক্ষমতা আছে তারা এখন নতুন করে পরিত্যাক্ত জমি-জমা দখলের উৎসব করবে।

আমাদের এই সরকারের আপাদমস্তক ভারতের কাছে সমর্পিত হলেও ভারতীয়রা তাদের ধর্মের এই ভাইবোনদের জন্যও এমন কিছু করবেনা যাতে এই সরকার খুব বিব্রত হয় বা চাপে পড়ে। আর আমাদের মত তাদের দেশী ভাই-বন্ধুরা তাদের জন্য অকাজের সমবেদনা বোধ করা ছাড়া কিছু করার ক্ষমতাও রাখিনা।

সবচেয়ে সভ্য দেশে ধর্ম, বর্ণ, ভাষা, জাতীয়তা ইত্যাদি নির্বিশেষে যে কোন সংখ্যালঘু ব্যক্তি, গোষ্ঠীবদ্ধ থাকুক বা না থাকুক, সম্পূর্ণ নিরাপদ বোধ করে। এই মাণদন্ডই আমদেরকে বলে দেয় আজ আমরা কোথায় আছি।

ইতিমধ্যেই ভিটেছাড়া হিন্দুদের ছবি ফ্রেমবন্দী হয়েছে। এদের অনেকেই নিশ্চিতভাবে দেশছাড়া উদ্বাস্তুদের মিছিলে যোগ দেবেন।

গত কয়েক বছরে সংখ্যাগুরু সম্প্রদায়েরই অসংখ্য মানুষ দেশ ছাড়ার আয়োজন শুরু করেছেন। নিরাপত্তাহীনতা ও কার্যত দেশের উপর রাজনৈতিক অধিকার না থাকার অনুভূতি তাদের মধ্যে যে উদ্বাস্তু হওয়ার বিশাল অথচ বিক্ষিপ্ত এক নীরব মিছিল তৈরি করেছে সে মিছিলের ছবি ফ্রেমবন্দী করা সম্ভব হবেনা। সেটা নিয়ে কোন গুরুত্ববহ সংবাদও হয়ত প্রকাশিত হবেনা।

সংখ্যালঘুদের আর্তনাদ আমাদের চোখ ভিজিয়ে দেবে, এই “সংখ্যাগুরু”দের(!) আর্তনাদ আমরা কোনদিন শুনতেই পাবনা। এরাও শেষ পর্যন্ত “প্রেফারেবলি আনহার্ড” বা “ডেলিবারেটলি সাইলেন্সড” হয়ে যাবে। সেটা দেখে বা ভেবে অবশ্য সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের বুকের ভার হালকা করারও কিছু নেই।

গত নয়-দশ মাস ধরে খুব শুনছি দেশে ২য় মুক্তিযুদ্ধ চলছে। ১ম মুক্তিযুদ্ধের পরাজিত পক্ষের কতজন মরেছিল জানিনা। তারা শত্রুপক্ষের ও অন্য দেশের মানুষ ছিল। দেশের একজন শীর্ষস্থানীয় ইতিহাস গবেষক ও অধ্যাপক লিখিতভাবে জানিয়ে দিয়েছেন, ২য় মুক্তিযুদ্ধের পরাজিত পক্ষের প্রায় দুই লাখ লোককে মেরে ফেলতে হবে। হায়! আমরা মূর্খ-অশিক্ষিত মানুষেরা এই দুই লাখ লোককে এতদিন এদেশেরই মানুষ বলে জানতাম!!

বোঝা যাচ্ছে, সংখ্যালঘু আর সংখ্যাগুরু উদ্বাস্তুদের এই মিছিল বড় হতেই থাকবে।

উদ্বাস্তুদের মিছিলের ছবি ছাড়া যুদ্ধের ছবি যে সম্পূর্ণ হয়না …

দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনঃ স্বাধীন বাংলাদেশের ইতিহাসে সবচেয়ে ঘৃণিত নাটক

২০১৩ সালে বাংলাদেশের মানুষকে অনেকগুলো নাটক উপহার দিয়েছিল ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগ।  এ ধরনের নাটক স্বাধীন বাংলাদেশে ইতিপূর্বে দেখা যায়নি। রেশমা নাটক, পদত্যাগ নাটক, এরশাদ চাচার গ্রেপ্তার নাটক, সর্বোপরি বছর জুড়েই ছিল শাহবাগিদের নাটক। সকল নাটকের মূল নাটক আজ ৫ই জানুয়ারি ২০১৪ তে মঞ্চস্থ হয়েছে সমগ্র দেশ জুড়ে। ২০১৩ সালের নাটকগুলো মঞ্চস্থিত হয়েছিল ২০১৪ সালের এই নির্বাচনী বৈতরণী পার হওয়ার জন্যই। আজকের নির্বাচনী নাটকের ব্যাকগ্রাউন্ড সকলেরই জানা। নাটক করে মাঠ ফাঁকা করা হয়েছে; তাতেও কাজ হয়নি। কি ধরনের হাস্যকর নির্বাচনী নাটক জাতিকে আওয়ামীলীগ উপহার দিল তার কিছু নমুনা আপনারা দেখতে পাবেন নিচের ভিডিও লিংকগুলোতে। ভিডিও লিংকগুলো গনমাধ্যমেই প্রকাশিত হয়েছে। সরকারের নিয়ন্ত্রিত মিডিয়া কাভারেজেও এই চিত্র ফুটে উঠেছে। বাস্তবতা কতটা ভয়াবহ হতে পারে তা আমরা সকলেই অবহিত।
১. ভোট দিয়েও আবার লাইনে আছেন ভোটার !
 ২. “মাঠ যেন ফাঁকা না থাকে, একশ ছেলে সবসময় লাইনে থাকবে।”

আওয়ামী লীগের নির্দেশনা মোতাবেক ভোটকেন্দ্রে ভোটার দেখাতে নিয়ে আসা হচ্ছে ভোটার তালিকায় নামই ওঠেনি এমন কিশোরদের। দাঁড় করিয়ে দেয়া হচ্ছে লাইনে।

একুশে টিভির ধরা পড়ে গেল এমনই কয়েকজন যারা ঘন্টাব্যাপী শুধু লাইনেই দাঁড়িয়ে আছে, ভোট দিচ্ছে না। বুথেও ঢুকছে না।

৩. সারাদেশের মধ্যে সবচেয়ে নিরাপদে ভোট হচ্ছে ঢাকায়… আর সেই ঢাকার একটি ভোটেকেন্দ্রের দৃশ্য দেখিয়েছেন চ্যানেল ২৪ এর রিপোর্টার সাহেদ আলম… ৩ ঘন্টায় কেন্দ্রটিতে ভোট পড়েছে মাত্র ১টি…. এমন রিপোর্ট দেখে হাসতে হাসতে পেট ব্যাথা…..
৪. ৬ ঘন্টায় ভোট পড়েছে ২টি…
সময় : দুপুর দেড়টা..
স্থান : রাজধানীর উত্তরার একটি ভোটকেন্দ্র…
রিপোর্টার : শাহেদ আলম, চ্যানেল ২৪..
৫. নবাবপুরে লাইনে লাইনে ভুয়া ভোটার।

বৈধ কাগজ-পত্র ছাড়াই আওয়ামী লীগের নির্দেশে দাঁড়িয়ে আছে সুযোগ পেলেই বুথে ঢোকার অপেক্ষায়। মিডিয়ার ক্যামেরা দেখেই কেঁটে পড়ে।

৬. খুলনায় প্রচুর জালভোট দেওয়া হচ্ছে। একসাথে ৫০ জন ঢুকে ভোট দিচ্ছেন। ৫ আঙ্গুলে কালির দাগ। ৫ জায়গায় ভোট দিয়েছেন এক ভোটার
৭. বিধ্বস্ত সাতক্ষীরাবাসীর নিরব প্রতিবাদ

ভোট পড়েনি একটিও। দলমত নির্বিশেষে ভোট দিতে যাননি কেউ।

৮. জাল ভোট দিয়ে দৌড়ে পালানোর সময় জাল ভোটকারীকে হাতেনাতে ধরলো একুশে রিপোর্টার । অনেক ক্ষণ দৌড়ানোর পর পিছন দিক থেকে তার কলার চেপে ধরে আটকি ফেলে সেই সাহসী রিপোর্টারটি। প্রচুর সংখ্যক পুলিশ সেখানে থাকলেও জালভোট প্রদানকারীদের বিরুদ্ধে তারা কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি বলে জানালো রিপোর্টারটি।
৯. ভোট চুরি কাকে বলে! ভিডিওটি দেখবেন আর বিচারের ভার আপনাদের।
১০. ৬৪৭টি ভোটের মধ্যে পড়েছে মাত্র ২২টি।
এছাড়াও কথিত নির্বাচনে কিছু লোক ভোট দিতে এসেও ভোট দিতে পারেনি আওয়ামী জালিয়াতির কারনে।
শেয়ার করে আ.লীগের এই ডিজিটাল শয়তানী মানুষকে জনান
১১. এজেন্টের কান্নার দৃশ্য
অনেকেই বলছেন আওয়ামীলীগ এই ভোট নাটক করে আরো ভয়ানকরূপে ক্ষমতা আঁকড়ে ধরবে। তারা ক্ষমতা আঁকড়ে ধরার জন্য অবশ্যই আরো বহু মানুষ কে মারবে; কিন্তু কোন ইন্সিডেন্টই তাদেরকে শক্তিশালী করবেনা, বরং আরো দুর্বল করবে। একটা মিথ্যাকে ঢাকার জন্য তারা হাজারটা মিথ্যা জন্ম দিচ্ছে। আর হাজারটা অন্যায়কে ঢাকার জন্য তারা লক্ষটি অন্যায় করে যাবে। কিন্তু কোন প্রচেষ্টাই তাদের এই প্যাঁচ থেকে উত্তরন করবেনা। তাই যারা হতাশ হচ্ছেন; তাদেরকে বলছি জালিম স্বৈরাচারের পতন অবশ্যম্ভাবী। ইটস নট কোয়েশ্চেন এবাউট হাউ, ইটস এবাউট হয়েন? যত তাড়াতাড়ি হবে তত ভালোভাবে আওয়ামীলীগ বিদায় নিবে। আর যত দেরিতে আওয়ামীলীগ বিদায় নিবে তত তারা রাজনৈতিক দল হিসেবে হারিয়ে যেতে থাকবে।

প্রহসনের নির্বাচন ও বাংলাদেশের সম্ভাব্য ভবিষ্যত নিয়ে কিছু ব্যাক্তিগত ভাবনা

by Sazzad Rahman

বাংলাদেশের স্বাধীনতাযুদ্ধের নেতৃত্বদানকারী শক্তি, মুক্তিযুদ্ধের চেতনার একমাত্র সোল এজেন্ট বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ। রাজনীতির মাঠের প্রাচীনতম ও দর্শকনন্দিত এই খেলোয়াড় এখন এতটাই জনবিছিন্ন হয়ে পড়েছে যে তাদের আহবানে দেশের সাধারণ ভোটারদের একশতাংশও আজকে ভোটকেন্দ্রে ভোট দিতে আসেনি। গণতান্ত্রিক ফ্যাসিবাদ, ভারতের আধিপত্যবাদ ও ধর্মনিরপেক্ষতার নামে ধর্মহীনতার বিরুদ্ধে এক নীরব বিপ্লব দেখলো আজকে বাংলাদেশ। সম্ভবত আমার এই কথার সাথে তারাই দ্বিমত পোষণ করবেন যারা বিটিভি, চ্যানেল আই, একাত্তর ইত্যাদি “নিরপেক্ষ” মিডিয়া ও রাকিবউদ্দিন গংদের “নিরপেক্ষ” কমিশনের একান্ত গুণমুগ্ধ বংশবদ। একপক্ষীয়ভাবে নগ্ন সমর্থন দিয়ে ভারত আওয়ামীলীগের মত একটি ঐতিহ্যবাহী দলকে একেবারে খাদের কিনারায় নিয়ে এসেছে।

 

ভারত নাকি সুপার পাওয়ার হওয়ার স্বপ্নে বিভোর। কিন্তু সুপার পাওয়ার হওয়ার স্বপ্ন দেখা একটি দলের ডিপ্লোমেসি এতটা অপরিপক্ক কিভাবে হয় তা আমার বুঝে আসেনা। ভারতেরই পত্র-পত্রিকারই ভাষ্য অনুযায়ী বাংলাদেশের মানুষের ভারতবিরোধী সেন্টিমেন্টে এখন সর্বোচ্চ পর্যায়ে। দীর্ঘদিনের সাংষ্কৃতিক আগ্রাসন চালিয়ে তারা দেশের মানুষের মাঝে যতটা আসন গেঁড়ে নিয়েছিল তার অনেকটাই তারা খুইয়েছে গণবিরোধী একটি দলকে অন্ধভাবে সমর্থন দিয়ে। বাংলাদেশের মানুষের মধ্যে ভারতবিরোধী সেন্টিমেন্ট এখন এতটাই প্রবল যে সম্ভবত সরাসরি সামরিক আগ্রাসন চালানো ছাড়া বাংলাদেশকে পুরোপুরিভাবে ভারতের নিয়ন্ত্রনে আনা কতটা সম্ভব তা প্রশ্নসাপেক্ষ। ভারত অনেক বড় সামরিক শক্তি সেটা যেমন বাস্তব তেমনি এটাও বাস্তব তাদের চেয়েও শতগুণ বড় সামরিক ও অর্থনৈতিক শক্তি যুক্তরাষ্ট্রকেও ইরাক-আফগানিস্তানে সামরিক আগ্রাসনের বোঝা বইতে গিয়ে প্রায় দেউলিয়া হতে হয়েছিল। যেখানে যুক্তরাষ্ট্রই হাবুড়ুবু খায় সেখানে ভারত কি সরাসরি সামরিক আগ্রাসন চালানোর মত দুঃসাহস দেখাবে? মনে রাখতে হবে ভারতের পঞ্চাশ শতাংশের বেশি মানুষ এখনোও খোলা আকাশের নিচে প্রকৃতির ডাকে সাড়া দেয়।

 

ভারতের সামনে দ্বিতীয় পথ যেটি খোলা থাকে তা হলো আওয়ামীলীগকে দীর্ঘমেয়াদে ক্ষমতায় রাখা। কিন্তু আওয়ামীলীগ ভারতের হাতের পুতুল হতে গিয়ে যেভাবে পশ্চিমাদের সাথে সম্পর্কের অবনতি ঘটিয়েছে তাতে পশ্চিমারা যদি একবার অর্থনৈতিক অবরোধ দেয় তাহলে ভারতের পক্ষে বাংলাদেশের ১৬ কোটি মানুষের বোঝা বহন করা কতটা সম্ভব তা ভাববার বিষয়। তার উপর ইসলাম বিদ্বেষী অবস্থান নেওয়ার কারণে মুসলিম বিশ্বের সাথেও আওয়ামীলীগের সম্পর্ক শীতল। আর বাংলাদেশের সাধারণ মানুষের জীবনামান ভারতের সাধারণ মানুষের জীবনমানের চেয়ে কোন অংশেই কম না, বরং অনেক ক্ষেত্রেই তা অনেক উন্নত।

 

এখনোও পর্যন্ত সাধারণ মানুষের মধ্যে আওয়ামীলীগের বিরুদ্ধে শুধুমাত্র গণক্ষোভ জমা হয়েছে। কিন্তু মানুষ যখন চলমান ব্যাবসায়িক অচলাবস্থা ও সম্ভবত আসন্ন অর্থনৈতিক অবরোধর কারণে না খেয়ে থাকবে তখন এই গণক্ষোভ গণবিষ্ফোরণে পরিণত হবে যা পুলিশ, র‌্যাব, বিজিবি, যৌথবাহিনী দিয়েও তা ঠেকানো যাবেনা। এমনকি ভারতের দাদাবাবুরাও তা সামাল দিতে পারবেনা, যেমনটা ইরানে শাহদের বিরুদ্ধে চলা গণবিষ্ফোরণকে সামলাতে পারেনি খোদ যুক্তরাষ্ট্রই।

তামাশার নির্বাচন ও আওয়ামীপন্থীদের উদ্দেশ্যে কিছু প্রশ্ন

 

আতিক হাসান
 

১. ২০০৬ সালে  সাংবিধানিকভাবে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করার কথা ছিল বিচারপতি কে এম হাসানের। কিন্তু জনাব হাসানকে ‘পক্ষপাতদুষ্ট’ আখ্যা দিয়ে সাংবিধানিক সেই বাধ্যবাধকতাকে আওয়ামীলীগ তখন মানেনি। তাহলে বলুন, শেখ হাসিনা নিজেই সরকারপ্রধান হিসেবে থেকে নির্বাচন করলে এবং সেই নির্বাচনকে ‘সাংবিধানিক ধারাবাহিকতা রক্ষা’ আখ্যা দিলে সেটা কি বিএনপির মেনে নেয়া উচিত? কে এম হাসানের অধীনে নির্বাচনে আস্থা রাখা না গেলে শেখ হাসিনার অধীনে আস্থা রাখা যায় কি?

২. আওয়ামীপন্থী সুশীলরা বলছেন, নির্বাচনে অংশ নেয়া যেমন অধিকার, ঠিক তেমনি নির্বাচনে অংশ না নেয়াও কোনো রাজনৈতিক দলের অধিকার। তাহলে বলুন, এরশাদকে জোর করে নির্বাচনে নিয়ে যাওয়ার অপচেষ্টা করল কেন আ’লীগ? মনোনয়ন প্রত্যাহার করা সত্ত্বেও জাপার বহু সদস্যের মনোনয়ন প্রত্যাহার করা হয়নি কেন? নির্বাচনে অংশ না নেয়া কি শুধু বিএনপিরই অধিকার? জাপার সেই অধিকার নেই???

৩. শেখ হাসিনার আমন্ত্রণে সংলাপে যোগ না দেয়ায় আওয়ামীপন্থী সুশীলরা বেগম জিয়াকে দোষী করেন এবং বলতে চান যে সেই সংলাপটি অনুষ্ঠিত হলেই বুঝি সব সমস্যার সমাধান হয়ে যেত! আসলেই কি বেগম জিয়া শেখ হাসিনার সংলাপে অংশ নিলেই সব কিছুর সমাধান হয়ে যেত? ধরলাম, বেগম জিয়া প্রধানমন্ত্রীর আহ্বানে সাড়া না দিয়ে খুব ভুল করেছেন। কিন্তু বিএনপির সিনিয়র নেতারা তো ঠিকই আ’লীগের ঊর্ধ্বতন নেতৃত্বের সঙ্গে তারানকোর মধ্যস্থতায় সংলাপে বসেছিলেন! সংলাপের মধ্য দিয়েই সমঝোতা হওয়ার কোনো সম্ভাবনা থাকলে সেই উদ্যোগ ব্যর্থ হলো কেন?

৪. আ’লীগ-বিএনপি উভয় দলকেই ছাড় দেয়া দরকার বলে সুশীলরা বলেছেন। কিন্তু বিএনপির কাছ থেকে কোন ধরনের ছাড় আশা করেন তারা? বিএনপি তো হুবহু ত্রয়োদশ সংশোধনীর আদলে একটি তত্ত্বাবধায়ক সরকার চায়নি, চেয়েছে যেকোনো ফরম্যাটের একটা নির্দলীয়-নিরপেক্ষ সরকার। রাষ্ট্রপতির অধীনে নির্বাচন করতে চাইলেও বিএনপি তা মেনে নিত বলে দলটির নেতৃস্থানীয়দের মধ্যে সেরকম নমনীয়তা দেখা গেছে। এমনকি প্রধানমন্ত্রীর ক্ষমতা খর্ব করে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে নির্বাচন করার প্রস্তাবও দিয়েছিলেন বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা ও বার কাউন্সিলের ভাইস প্রেসিডেন্ট এডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন। কিন্তু এরকম কোনো প্রস্তাবকেই গ্রাহ্য করেনি আ’লীগ।শেখ হাসিনার নেতৃত্বে, তার হাতে অসীম ক্ষমতা রেখেই নির্বাচন করতে চেয়েছে আ’লীগ। এমতাবস্থায় বিএনপির কি উচিত ছিল ৮০ থেকে ৯০ শতাংশ মানুষের সমর্থনপুষ্ট নির্দলীয় সরকারের দাবিতে ছাড় দেয়া?

৫. আ’লীগের অধীনে নির্বাচনে গেলে সেটা যে বিএনপির জন্য পায়ে কুড়াল মারা হতো, সেটা কি এই নির্বাচন কমিশনের আচরণ থেকে স্পষ্ট হয়নি? মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের পরও এই নির্বাচন কমিশন জাপার প্রাথীদের মনোনয়নপত্র গ্রহণ করেনি; আবার প্রত্যাহারের সময়সীমা পেরিয়ে গেলেও আওয়ামীপন্থীদের বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী করার জন্য বিপক্ষ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করা হয়েছে। আদালতের নির্দেশ অনুসারে প্রার্থীদের সম্পদ-বিবরণী প্রকাশ করবে নির্বাচন কমিশন কিন্তু আ’লীগের চাপে সেই তথ্য ওয়েবসাইট থেকে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। আওয়ামীলীগ আইন লঙ্ঘন করে প্রচার-প্রচারণা চালালেও নির্বাচন কমিশন আপত্তিটুকুও জানায়নি। সাবেক আওয়ামী মন্ত্রী আবু সাঈদ এবার স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করছেন। তিনি অভিযোগ করেছেন, তার প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী প্রার্থীর পক্ষে খোদ পুলিশ নির্বাচনী প্রচারণায় নেমেছে! এরকম ভূরি ভূরি নজিরের পরও কি আওয়ামীপন্থী সুশীলরা বলবেন যে এই সরকারের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানের মতো লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরি হওয়া সম্ভব ছিল?

৬. অনেকেই বলছেন, বিরোধী দল সরকারের বিরুদ্ধে শক্ত আন্দোলন তৈরি করতে পারেনি। কিন্তু একবার ভেবে দেখুন, আ’লীগ যে বন্দুকের শাসন কায়েম করেছে, শত শত মানুষ হত্যা-গুম করেছে, তার বিপরীতে সাধারণ নিরস্ত্র মানুষ যে প্রতিরোধ তৈরি করেছে, সেটা বাংলাদেশের ইতিহাসে নজিরবিহীন নয় কি? বঙ্গবন্ধুর মতো জনপ্রিয় ব্যক্তিত্বকে হত্যার পর তার প্রতিবাদ জানাতে বন্দুকের মুখে মানুষ রাস্তায় নামতে পারেনি। বাংলাদেশের ইতিহাসে পূর্বে কখনোই এবারের মতো বন্দুকের নলের শাসন কায়েম হয়নি। কখনোই আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী মানুষের ওপর এভাবে নির্বিচারে গুলি চালায়নি, গুম করেনি (আওয়ামীপন্থী আইন ও সালিস কেন্দ্র বলছে, কেবল ২০১২ সালের অর্ধেক পর্যন্ত এই সরকারের আমলে রাষ্ট্রীয় বাহিনীর হাতে একশরও বেশি মানুষ গুম হয়েছে)। সুতরাং, বন্দুকের শাসনের মুখে বঙ্গবন্ধুর খুনের বিরুদ্ধে যেখানে মানুষ প্রতিবাদ করতে পারেনি, সেখানে অসংখ্য রাজনৈতিক কর্মী ও সাধারণ মানুষকে হত্যা-গুমের পরও যে বিরোধী দলের কর্মীরা এখনো রাস্তায় নামছে, প্রতিরোধের চেষ্টা করছে, সেটা কম কিসে?

এই মুহূর্তে কেবল বিরোধী দলের সক্রিয় কর্মীরা মাঠে নামছে, সাধারণ মানুষ নীরবে আ’লীগের নির্যাতন প্রত্যক্ষ করছে, নির্বাচন হলে তারা ব্যালটের মধ্য দিয়ে আ’লীগকে শাস্তি দিত, যার আভাস পাওয়া গিয়েছিল সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচনগুলিতে। আগামীতে আওয়ামী সরকার জোর করে ক্ষমতায় টিকে থাকতে চাইলে নিশ্চয়ই সাধারণ মানুষও অতীষ্ঠ হয়ে একসময় মাঠে নামবে। ইতিহাস তেমনটাই বলে না কি?

গণতন্ত্র কতটা গণতান্ত্রিক

মুহাম্মদ আব্দুল খালিক

সামাজিক বৈষম্য নিরসন, জনগণের ক্ষমতায়ন, সাম্য ও শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য গণতন্ত্র রাজনৈতিক দলের ক্ষমতার পালাবদলের আধুনিক সংস্করণ। বিভিন্ন মনীষী একে সংজ্ঞায়িত করেছেন ভিন্ন ভিন্নভাবে। গ্রিক দার্শনিক প্লেটো একে আখ্যায়িত করেছেন মুর্খের শাসন হিসেবে। যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট আব্রাহাম লিংকন একে সংজ্ঞায়িত করেছেন ‘জনগণের জন্য জনগণের দ্বারা পরিচালিত সরকার’ হিসেবে। এছাড়াও গণতন্ত্রের পক্ষে বিপক্ষে নানা রকম বক্তব্য পেশ করেছেন মনীষীরা।

২.
এখন আমাদের সামনে যে মৌলিক প্রশ্নটি এসে দাঁড়িয়েছে সেটা হলো, গণতন্ত্র নিজে কতটা গণতান্ত্রিক? এটা কি অধিকাংশ মানুষের মতের বহিঃপ্রকাশ? এর মধ্য দিয়ে কি জনগণের ক্ষমতায়ন ঘটে? কিংবা এটা জনগণের জীবন-মান উন্নয়ন, সাম্য ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় কতটা ভূমিকা রাখে?
বাস্তব চিত্র হলো গণতন্ত্র স্থান-কাল-পাত্রভেদে বিভিন্ন রূপ পরিগ্রহ করে। কখনো পায় পরিবার তন্ত্রের আদল, কখনো কতিপয়তন্ত্রের, আবার কখনো বা একনায়কতন্ত্রের। কতিপয় কর্পোরেট শক্তির স্বার্থ হাসিলের হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহৃত হয় গোটা ব্যবস্থাটি। এরা বিশেষত প্রচার মাধ্যমকে ব্যবহার করে জনমত গঠন করে থাকে। এছাড়া এরা লালন করে ক্যাডার বাহিনী, যারা শক্তির জোরে স্বার্থোদ্ধারের পাশাপাশি সমাজে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে রাখে।

৩.
আমরা একটি উদাহরণের মাধ্যমে নির্বাচনে জনগণের মতামতের বাস্তব প্রতিফলন কতটা ঘটে তা বোঝার চেষ্টা করবো। ধরি, কোনো এক দেশে মোট ভোটারের সংখ্যা ১ কোটি, নির্বাচনে অংশগ্রহণকারী রাজনৈতিক দলের সংখ্যা ১০টি (এছাড়াও সতন্ত্র প্রার্থী রয়েছে)/  যদি নির্বাচনে কাস্টিং ভোটের সংখ্যা ৭০% হয়, তাহলে ভোট প্রদানকারী মোট ভোটারের সংখ্যা হবে ৭০ লাখ। এখন, প্রধান ৪টি দলের প্রাপ্ত ভোটের পার্সেন্টেজ যথাক্রমে ৪০%, ৩০%, ১২% ও ১০%/ অন্যান্য রাজনৈতিক দল ও সতন্ত্রপ্রার্থী মিলে প্রাপ্ত ভোটের পার্সেন্টেজ ৮%। সুতরাং ১ম দল পেল ৪০% = ২৮ লক্ষ ভোট, ২য় দল পেল ৩০% = ২১ লক্ষ ভোট, ৩য় দল পেল ১২% = ৮ লক্ষ ৪০ হাজার, ১০% = ৭ লাখ এবং অন্যান্য রাজনৈতিক দল ও সতন্ত্রপ্রার্থীরা পেল ৮% = ৫ লক্ষ ৬০ হাজার।
লক্ষণীয় যে, ১ম দল ২৮ লক্ষ ভোট পেয়ে সরকার গঠন করে। আর আমরা জানি যে, মোট ভোটারের সংখ্যা ১ কোটি। যার মধ্যে ১ম দল পায় ২৮ লক্ষ, আর তাদের না পাওয়া ভোটের পরিমাণ ৭২ লক্ষ। মাত্র ৪ ভাগের ১ ভাগ ভোট পেয়ে সরকার গঠন করে তারা সকল প্রকার ক্ষমতা ভোগ করে থাকে এবং তাদের বৈধ-অবৈধ সকল কাজের জবাব দেয় এ কথা বলে যে, তারা জনগণের ম্যান্ডেট নিয়ে এ ক্ষমতা প্রয়োগ করছে জনগণের স্বার্থে। মাত্র ১ ভাগ লোকের ম্যান্ডেট পাওয়া সরকারকে কি আমরা জনগণের সরকার বলতে পারি? কিংবা গণতন্ত্রের পরিভাষায় তাদেরকে বলতে পারি বৈধ সরকার? আইন প্রণয়নসহ সার্বিক ব্যাপারে তাদের হাতে কি ন্যস্ত করা যায় রাষ্ট্রের সব রকম ক্ষমতা?

৪.
গণতন্ত্র বলতে যদি অধিকাংশ লোকের মতামতের ভিত্তিতে রাষ্ট্র পরিচালনা বোঝানো হয়ে থাকে তাহলে আমাদের দেশে নির্বাচিত এমপিদের ক্ষেত্রে সে মতামত কতটা প্রযোজ্য হয়ে থাকে। যেখানে আমাদের দেশের ২৪ শতাংশেরও বেশি লোক দারিদ্রসীমার নিচে বাস করে, যেখানে আরও কমপক্ষে ২৬ শতাংশ লোক নিম্ন মধ্যবিত্তের অন্তর্ভুক্ত; সেখানে আমাদের দেশে নির্বাচিত সংসদ সদস্যের মধ্যে ১৬৯ জন ব্যবসার সাথে এবং আরো ৪৪ জন আইন পেশার সাথে জড়িত (রিপোর্ট, প্রথম আলো)/  বলার অপেক্ষা থাকে না যে, এদের সবাই কোটি কোটি টাকার সম্পত্তির অধিকারী। যদি সত্যিকার গণতন্ত্রই হত তাহলে এমপি হিসেবে নির্বাচিত হওয়ার কথা ছিল নিম্নবিত্ত ও নিম্ন-মধ্যবিত্ত শ্রেণী থেকে কিন্তু আমরা দেখতে পাই এখানে জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত হয় উচ্চবিত্ত থেকে। তাই গণতন্ত্র না বলে একে কি আমরা ধনিকতন্ত্র বলতে পারি না?

৫.
নির্বাচনে কালো টাকার ব্যবহার আমাদের দেশের সর্বজনবিদিত একটি বিষয়। এখানে যার যত কালো টাকা রয়েছে সেই তত নির্বাচনী দৌরাত্ম দেখিয়ে ভোটযুদ্ধে জয় লাভ করতে পারে। সামান্য একশ’ দু’শ টাকা দিয়ে এখানে ভোট কেনা যায়। সুতরাং যার টাকা রয়েছে সে-ই না নির্বাচিত হবে? তবে শুধু টাকা থাকলেই হবে না, প্রধান কোনো দলের মনোনয়নও পেতে হবে। আর সেজন্য আপনাকে ইনভেস্ট করতে হবে লাখ লাখ (ক্ষেত্র বিশেষে কোটি কোটি) টাকা। কারণ নেত্রীর সুনজর পাওয়া তো আর সহজ কথা নয়!

৬.
কোনো দলই এখানে কারো ওপর আস্থাশীল নয়। কারণ, সবাই এখানে ক্ষমতার মোহে হয়ে পড়েছে হিংস্র পশুর ন্যায়। ক্ষমতাকে কিভাবে পাকাপোক্ত করা যায়- এই হলো তাদের নিত্য দিনকার ভাবনা। যদিও তারা ক্ষমতায় থাকা অবস্থায় এ কথা জানে যে, তাদের বিবিধ কুকর্মের কারণে পরবর্তী টার্মে তারা ক্ষমতায় আসতে পারবে না তারপরও কিভাবে, কোন পেছনের দরজা ব্যবহার করে ক্ষমতায় আসা যাবে তা নিয়েই থাকে ব্যতিব্যস্ত। কারণ, গণতান্ত্রিক (?) এই সিস্টেমে ক্ষমতায় থাকলেই কেবল লাভ। ক্ষমতায় থাকলে দুর্নীতির মাধ্যমে অঢেল কালো টাকার অধিকারী হওয়া যায়, খোলা যায় সুইস ব্যাংকের লোভনীয় এ্যাকাউন্ট। ক্ষমতায় থাকলে চাঁদাবাজি করা যায়, করা যায় খুন-হত্যা-গুম; যার জন্য দিতে হবে না কারো কাছে জবাবদিহি। ক্ষমতায় থাকলে করা যায় ধর্ষণ, ব্যভিচার; কারণ এছাড়া কি আর এলিট ক্লাবে ঢোকা যাবে?

৭.
গণতন্ত্রকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দেয়ার জন্য অনেকগুলো শর্ত পূরণ করা জরুরী। যেমন, শিক্ষার আলো প্রতিটি মানুষের কাছে পৌঁছে দেয়া, জনগণকে মানবিক প্রশিক্ষণের আওতায় নিয়ে আসা ও সমাজের প্রতিটি স্তরে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করা। কিন্তু আমরা লক্ষ্য করি যে, দেশে শিক্ষার হার এখনো অনেক কম এবং সরকারীভাবে মানবিক শিক্ষা দেয়ার কোনো ব্যবস্থা নেই। শুধু তাই নয়, জনগণ যাতে সুশিক্ষায় শিক্ষিত হতে না পারে সেজন্যই যেন সব আয়োজন। কারণ, জনগণকে অজ্ঞতার মধ্যে রাখতে পারলেই রাজনীতিবিদদের স্বার্থদ্ধোর হতে পারে! তাছাড়া যেখানে দলীয় কর্মকাণ্ডেই গণতন্ত্রের কোনো ছোঁয়া নেই, সেখানে তারা কীভাবে রাষ্ট্রীয়ভাবে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করবে?

৮.
গণতান্ত্রিক এই ব্যবস্থা নিছক প্রহসনের নাটক ছাড়া আর কিছুই নয়। আপনি যদি বিদেশি আধিপত্যবাদীদের চাহিদা পূরণ করতে পারেন, যদি পারেন তাদের এজেন্ডা বাস্তবায়ন করতে। আপনি যদি বৈধ-অবৈধ উপায়ে কালো টাকার অধিকারী হতে পারেন, কিংবা পারেন দেশের প্রখ্যাত কোনো নেতার সন্তান হতে তাহলেই আপনি পারবেন জনপ্রতিনিধি হতে। আপনার মেধা বা সৃজশীলতা কখনোই এখানে নেতৃত্বের মাপকাঠি নয়।
কেউ কেউ বলে থাকেন পাশ্চাত্যেই একমাত্র গণতন্ত্র আছে। গণতন্ত্রের জন্য পাশ্চাত্যই হচ্ছে উত্তম মডেল। কিন্তু আপনি তো আর পাশ্চাত্য হতে পারবেন না। কারণ, আপনার নেই বিপুল ও অত্যাধুনিক অস্ত্র-শস্ত্রের অধিকারী সামরিক বাহিনী। আপনি পারবেন না গরিব কোনো দেশকে শোষণ করে তাদের সকল সম্পদ আপনার দেশে নিয়ে আসতে। আপনি পারবেন না তৃতীয় বিশ্বের দেশগুলোকে গোলামীর জিঞ্জিরে আবদ্ধ করতে। আর সেজন্যই আপনি পারবেন না আদর্শ গণতন্ত্রের মডেল হতে। কারণ শোষণ আপনাকে করতেই হবে। হয়তো নিজ দেশের লোককে, নয়তো ভিনদেশীদেরকে। এটাই গণতন্ত্রের অন্তরালের কথা!

 

লেখক: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে এলএলএম অধ্যয়নরত।

 

ফ্যাসিজম, একটি দাবী এবং আমাদের নিরপেক্ষতা by মোহাম্মাদ হাসান

#রাষ্ট্রযন্ত্র দখল রেখে ভোটের আগেই অর্ধেক পার্লামেন্টারিআন বাছাই  ছিল ভোটের অধিকার হরণ ও ক্ষমতার চিরস্থায়িত্ব প্রতিষ্ঠার একটি নির্লজ্জ উদাহরন। একটি রাষ্ট্রের কাঠামো  যখন তার সর্বশক্তি ও মেধা শুধু ক্ষমতা ধরে রাখা আর বিরুধী মত নিশ্চিহ্ন করায় ব্যাস্ত  থাকে তাকে  ফ্যাসিজম ছাড়া আর কিই বা  বলা যায়।এই ফ্যাসিস্ট শাসন ব্যবস্থার দুটি বড় মহীরুহ হল  মিডিয়া ও দলীয় আজ্ঞাবাহী দ্বিমুখীশাসন যন্ত্র প্রতিষ্ঠানসমূহ।

* বর্তমানে মিডিয়াতে বিরোধী মতের অপর নিপীড়নের সিকিভাগও উঠে আসছেনা।নিজস্ব মিডিয়া চ্যানেল, অনলাইন ও প্রিন্ট পত্রিকা দ্বারা হলুদ সাংবাদিকতার রাজত্ব প্রতিষ্ঠা বিপরীতে বিরধি মত প্রচারের জন্য চ্যানেল ১, দিগন্ত, ইসলামী টিভি বন্ধ এবং আমারদেশ পত্রিকার অফিস ও প্রকাশনা বন্ধ করা হয়েছে । *যেখানে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সামনে বিশ্বজিৎকে কুপিয়ে মারা হয়েছিল তার দম্ভোক্তি আমার কিছুই হবে না আর বিপরীতে সারা দেশের বিরুধী দলের নেতা পর্যায়ে যারা ছিলেন তারা হয় জেলে বন্দি নতুবা খুন হয়েছেন নতুবা  পালিয়ে বেড়াচ্ছেন অথবা গ্রেফতার আতঙ্কে গৃহবন্দি হয়ে আছেন।

#তারপরও বর্তমানে বিরুধী দলের নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের জন্য আন্দোলন থেমে নেই কেননা জনসমর্থন এই দলের প্রতি দিন দিন বাড়ছে যার প্রমান সর্বশেষ ৫ টি মেয়র নির্বাচন।এই নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবী মেনে নেয়া হয়েছিল আওয়ামীলীগের দাবীর  প্রেক্ষিতে ১৯৯৬ সালে এবং সেই তত্ত্বাবধায়ক সরকারের  অধীনে অনুষ্ঠিত ৩ টি নির্বাচনের দুটিতেই (গত নির্বাচন সহ) বিএনপি পরাজিত হয়েছে।অর্থাৎ বিএনপির এই আন্দোলন যে ক্ষমতার দখল নয় বরং আপনার আমার ভোটের প্রয়োগের ওপরই ভরসা করছে টা অনেক্তাই স্পষ্ট।আবার এই নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাংবিধানিক বৈধতা কেড়ে নিয়েছে এই আওামিলিগই সকল মতকে অগ্রাহ্য করে আর কেন করেছে সেই উদ্দেশ্য তো এখন পরিষ্কার।  আওয়ামীলীগ আজ যে সংবিধানের দোহাই দিচ্ছে তারা কি কখনো বিএনপির অধিনে নির্বাচনে যেত?  যে   বিষয়টা মাথায় রাখতে হবে তা হল তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থাটা পুরো দেশ মেনে নিয়েছিল আর এতে জবাবদিহিতা ও ক্ষমতার এক ধরনের চেক অ্যান্ড ব্যালেন্স হত। আমরা যারা নিজেদের নিরপেক্ষ দাবী করি তাদের উচিত সবার আগে  নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবী নিয়ে সোচ্চার হওয়া কেননা আমাদের নিরবতা  আওয়ামী ফ্যাসিজমের পক্ষালম্বনেরই সামিল।