General Ershad: The Brutal Dictator or The Saviour of Democracy?

Noor Hossain:

It is ironic that I’m writing this piece on our Victory Day that marked the end of our quest for freedom in 1971 . This is the day we’ve achieved territorial freedom.  The history says, we have achieved our political freedom in 1990 when the autocratic regime of Ershad had fallen against years of mass movement.   After the fall of Ershad, we have achieved  freedom for democracy– the freedom of politics in Bangladesh.

Perhaps my narrative would hurt the memories of Noor Hossain or Dr. Milon, two iconic martyrs who were fallen in our struggle to democracy and freedom during the autocratic regime of Ershad.

However, the responsibility of insult, if any to the fallen martyrs, requires to be taken by Awami League, who in the name of democracy and freedom, confiscated freedom and democracy in Bangladesh, step by step, day by day, by force and by bullets –all in the name of freedom and democracy.

Ershad was brutal too. He ruled Bangladesh for about nine years. He curtailed freedom of media, picked up people, played with parliament and so forth. However, no body had seen Ershad or law enforcers were firing indiscriminately to the citizens of Bangladesh, months after months, with little care.

Indeed, Ershad did not declare war against the people of Bangladesh to save his regime. Not to the extent we’re seeing it today. This year, hundreds have been dead in political violence and more are to be dead as Awami League decided to crack down on the opponents with the help of law-enforcing agencies. They’re to launch the attack from December 17, according to reports by newspapers.

Yes you read it right, Awami League decided to crack down opponents. I suggest you to read that  Awami League would shoot down opponents with the help of law-enforcers in this case.

Imagine the picture, a group of civilians are going to kill civilians from opposition with support from state institutions of law enforcing agencies by subverting judicial procedures. It seems, we are in the dress rehearsal session for Afghanistan or Iraq in Bangladesh, where mercenaries are to join hands with militaries to counter oppositions. After all Chatroleagues are mercenaries, they are paid to avail socio-political privileges, in exchange of their dirty work to protect a monarchy or that type!

This means the judicial institution of the state is compromised. It has been done long ago but it is official now. Interestingly, extra-judicial killings of opponents by Awami League who are using state institutions to support its dirty agenda, is not without support from our public intellectuals as Facebook celebrity Zia Hassan or Prothom-Alo editorial member Sohrab Hosain, who publicly urged in separate forms, to support, ‘State Institution’ that  in reality  is compromised by a political party or ‘  Rab and Police to encounter opposition’ against the backdrop of mayhem and chaos, deliberately created by the ruling party to deviate public attention from election issue.

In this state when intellectuals are at their lowest ebb of morality and ethics and the government had pushed the country on the verge of a civil war with its agenda to go ahead with an  one sided election, surprisingly a man stood up in favour of political freedom and democracy–it was Generel Ershad.

As a repercussion of his decision,  Ershad was arrested for not supporting a sham election. He even divorced his wife in accusation of betraying for striking a dirty deal with the current government to support an one-sided election, at least publicly. Skeptics argue that Ershad is staging a soap opera to divert attention.

After 23 years of the fall of his tyrannical regime, it remains to be seen though how Ershad is to be evaluated in course of history.  Will we see him as a former autocrat who stood up against a present autocrat to save democracy in 2013?

Nevertheless, we need to agree that  Ershad is the rock n roll star of Bangladesh politics. Cause no body in the history of Bangladesh politics could rock and roll with the beat of political doldrums and sustain the way Ershad did.

Who represents the ‘people’?

by Zahedul Amin 

As the country gets increasingly mired in political crisis resulting in arson, destruction and death to innocent civilians, the general people seem to be running out of patience. Both PM and opposition leader have been claiming to represent the general mass, while at the same time, conveniently ignoring their views.  As made amply clear in recent opinion polls, a vast majority of people support a poll time caretaker government over a more partisan one. While people squarely reject hartals and it’s crippling impact on the economy. Responsibility for civilian deaths during recent strikes falls squarely on the opposition and their failure to apologize will prove costly in coming poll.

The current crisis emanated from the Supreme Court verdict which declared the caretaker government system as unconstitutional, allowing the government to amend constitution. Despite leeway in terms of undertaking two more polls under caretaker government, and initial opposition from senior leaders of the ruling party, the government went ahead with the amendment. The biggest irony is that AL, while in opposition in mid 90s had to force the BNP government to enact the caretaker government bill enforcing 183 days hartal.

Although almost all polls under the current AL government have been deemed fair, the upcoming national election has greater weight with far reaching ramifications inducing the AL government to possibly rig it. The crux of the matter boils down to the lack of trust between the two major parties which is unlikely to alter overnight. The recent phone conversation between the PM and opposition leader is the case in point for the non-existence of a proper working relationship.

The situation is expected to escalate beyond control if the status quo remains. A poll without the main opposition is unlikely to be credible, both nationally and internationally, and may suffer the fate of the Feb 15, 1996 poll government. The opposition is also likely to continue agitation post Jan 5 poll which will further devastate the economy.

The opposition, on its part, should make utmost effort to accommodate a compromise for ensuring participation. Recent opinion polls have given them an edge in terms of electoral support which may translate into a big majority. So far, Opposition have clearly failed to pay its cards well and had to resort to arson instead of engaging the general people in the anti-government movement.

 Government has a larger responsibility in the dialogue process and their highhanded behavior is totally uncalled for. Despite knowing about impending political turmoil from 2011 onwards, they haven’t taken any concrete steps to resolve the CTG issues keeping it for the last moment. The Bangladeshi constitution provides supreme authority to the PM subordinating the influence of other cabinet members. Hence the balance of power is unlikely to be evened out even if major opposition leaders were to accept crucial ministries in the ‘all-party’ government keeping PM at the helm.

The future dialogue (if any) will primarily hinge on the person heading the interim poll-time government. It will be naïve on the part of government to expect opposition to accept the AL chief as the head the interim government, while the opposition must not expect the government to go beyond the purview of the constitution.

Civil society leaders and constitution experts have suggested several solutions falling within the tenets of current constitution. Both parties have so far ignored these voices and are going ahead with their plans.

As the Game of Throne for the country’s Prime Minister-ship draws near, we find both leaders at loggerhead again. One is championing the constitution while the other wants the return of Caretaker/neutral government. Don’t be surprised if their roles change in five years time again claiming to represent peoples’ views.

Zahedul Amin is the director of Finance at LightCastle Partners, an emerging market specialized business planning and intelligence firm. (for details visit www.lightcastlebd.com)

 

 

বাংলাদেশে কলকাতার আনন্দবাজারের দাদাগিরি

anandabazar_patrika-400x400বলাই
নব্বইয়ের দশকের শুরুর দিকে কলকাতায় বাংলাদেশ হাইকমিশনের কার্যালয়ে বাংলাদেশের সাহিত্যের গতি-প্রকৃতির ওপর একটি সেমিনারের আয়োজন করা হয়েছিল। হাইকমিশনের উদ্যোগেই ছিল এ আয়োজন। বাংলাদেশের সুপরিচিত লেখকদের অনেকেই সেমিনারে অংশ নিয়েছিলেন। সেমিনারে আলোচ্যসূচীর মধ্যে অন্যতম ছিল বাংলাদেশের উপন্যাসের ভাষা কী রকম হবে।সেমিনারে সভাপতি ছিলেন সুনীল গঙ্গেপাধ্যায়। বাংলাদেশের লেখকরা একে একে তাদের বক্তব্য পেশ করার পর আখতারুজ্জামান ইলিয়াসের পালা এল। তিনি ডায়াসে দাড়িয়ে কাটা কাটা কথায় বলেছিলেন, বাংলাদেশের সাহিত্যের ভাষা হবে বাংলাদেশের জনগণের মুখের ভাষার কাছাকাছি, তাতে করে যদি পশ্চিম বাংলার ভাষার চাইতে বাংলাদেশের সাহিত্যের ভাষা, বিশেষ করে উপন্যাসের ভাষা যদি সম্পূর্ণ আলাদা খাতে প্রবাহিত হয়ে যায়, সেটা সকলের স্বাভাবিক বলেই ধরে নেওয়া উচিত।

ইলিয়াসের এই বলিষ্ঠ উচ্চারণ যে পশ্চিমবাংলার সাহিত্যের মোড়লদের অনেকেরই ভালো লাগেনি সেদিন সন্ধ্যাতেই তার প্রমাণ পাওয়া গিয়েছিল। কলকাতার সর্বাধিক প্রচারিত দৈনিক আনন্দবাজার গ্রান্ড হোটেলে বাংলাদেশের লেখকদের সম্মানে একটি ডিনারের আয়োজন করেছিল। বাংলাদেশ থেকে যাওয়া সব লেখককে সেখানে নিমন্ত্রণ করা হলেও ইলিয়াসকে ডাকা হয়নি। আনন্দবজারের এই অভদ্র আচরণে ইলিয়াস খুব ব্যাথিত হয়েছিলেন, অপমানিত বোধ করেছিলেন। দেশে ফিরে সমসাময়কি লেখকদের কাছে সে ক্ষোভের কথা গোপন করেননি তিনি। পরে তার জবাবটাও দিয়েছিলেন খাসা। বাংলাদেশের উপন্যাসের ভাষা কিভাবে বাংলাদেশের মানুষের মুখের ভাষার অনুবর্তী হয় খোয়াবনামা লিখে তার একটা দৃষ্টান্ত স্থাপন করে দেখিয়েছিলেন তিনি।

হিন্দুত্ববাদী রাষ্ট্রগঠনের গোপন বাসনা থেকে বঙ্কিম তার আনন্দমঠ উপন্যাসে যে সোশাল ডিসকোর্স তৈরি করেছিলেন ইলিয়াস তার খোয়াবনামায় সেটাকে ভেঙ্গে খান খান করে দেন। তবে ইলিয়াস আনন্দমঠের ডিসকোর্স ভাঙতে পারলেও আনন্দবাজার গোষ্ঠীর তাতে খুব সমস্যা হয়নি। কারণ এক ইলিয়াস প্রতিবাদ জানালেও বাংলাদেশের নামকরা অনেক জিনিয়াসই ততদিনে দাদাদের পকেটে ঢুকে গেছেন। আনন্দবাজার ভেতরে ভেতরে তার হিন্দুত্ববাদী আদর্শকে লালন করলেও উপরে উপরে অসাম্প্রদায়িকতার মিথ্যা বুলি আউড়ে যাচ্ছে। আসলে আনন্দবাজারের চোখে বাংলাদেশ কখনই স্বাধীন, সার্বভৌম রাষ্ট্রের মর্যাদা পায়নি। বরং তারা বাংলাদেশকে বরাবর ‘ছোটভাই’ হিসেবে দেখতেই অভ্যস্ত। প্রযোজনে একে ব্যবহার করে সর্বোচ্চ ব্যবসায়িক ফায়দা নেওয়ার চেষ্টায় ব্যস্ত থাকে তারা।

humayunsunil

হুমায়ূন আহমেদ বাংলা সাহিত্যের জনপ্রিয়তম লেখক। তার লেখার ধরন, মান নিয়ে প্রশ্ন থাকতে পারে, কিন্তু জনপ্রিয়তা নিয়ে প্রশ্ন কারোরই নেই। এপার-ওপার মিলিয়ে সমসাময়িক লেখকদের তুলনায় জনপ্রিয়তায় তার অবস্থান ছিল শীর্ষে, এ নিয়ে দ্বিমত করলে বাজিতে হারতে হবে। ২০১২ সালের ১৯ জুলাই হুমায়ূন আহমেদের মৃত্যুর পর বাংলাদেশের পত্র-পত্রিকাগুলো বিশেষ সংখ্যা বের করেছে। আর আনন্দবাজার হুমায়ূনের মৃত্যু সংবাদ ছেপেছে টুকরো খবরে। শিরোনাম ছিল ‘প্রয়াত কথাকার হুমায়ূন আহমেদ’। আনন্দবাজার গোষ্ঠী তাদের দেশ পত্রিকার শারদীয় সংখ্যায় হুমায়ূনের লেখা ছাপতে আগ্রহ প্রকাশ করলেও হুমায়ূনের মৃত্যু সংবাদ তাদের মনে শোকের ভাব জাগায়নি। কারণ জীবীত হুমায়ূনকে নিয়ে ব্যবসায় সুযোগ থাকলেও মৃত হুমায়ূনে তাদের কোনো আগ্রহ ছিল না।

অথচ একই বছরের ২৩ অক্টোবর সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়ের মৃত্যুর পর আনন্দবাজার আট কলামে ব্যানার শিরোনামে সংবাদ ছেপেছিল। স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন ওঠতে পারে, একই অঙ্গনের জনপ্রিয় দুই ব্যক্তিত্বকে নিয়ে পত্রিকায় কাভারেজ দেওয়ার ক্ষেত্রে এ বৈষম্য কেন? এক কথায় এর উত্তর হলো, ব্যবসায়িক স্বার্থ। সঙ্গে সাম্প্রদায়িক চেতনা। সাহিত্যের ক্ষেত্রে আনন্দবাজার এমন একটি ভাব দেখায় যেন তারা বাংলা সাহিত্যের একমাত্র ধারক ও বাহক। অভিভাবকও। তাই বাংলাদেশের সাহিত্যের বাজারটাও তাদের দখলে থাকাটাই বাংলা সাহিত্যের জন্যই মঙ্গলজনক। এ বাজারটি নিজেদের নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য তারা নানারকম কূটকৌশল নিয়ে থাকে। সেগুলোর প্রকাশও নানারকম। কখনো বাংলাদেশের কোনো লেখক-লেখিকার বই ছেপে বিতর্ক সৃষ্টি করে পয়সা রোজগারের নতুন নতুন সুযোগ সৃষ্টি করে, কখনো এ দেশের লেখকদের একাংশকে সম্মাননা দিয়ে নিজেদের স্বার্থরক্ষার খুঁটি হিসেবে ব্যবহার করে আনন্দবাজার গোষ্ঠী। আর কোনো ব্যক্তিকে নিজেদের বাণিজ্যিক স্বার্থ সিদ্ধির অন্তরায় মনে করলে তাকে সমূলে ধ্বংস করতেও কখনো কুণ্ঠিত হয় না তারা। আন্দবাজারের ষড়যন্ত্রের কারণে বিশ্বে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি লাঞ্ছিত হয়েছে।

এখানে প্রসঙ্গক্রমেই এসে যাবে তসলিমা নাসরিনের কথাও। ভারতে মৌলবাদীরা যখন বাবরি মসজিদ ভাঙলো এবং তার জেরে ধরে সৃষ্ট সাম্প্রদায়িক দাঙ্গায় সপ্তাহখানেক সময়ের মধ্যে প্রায় এক হাজার মানুষ খুন হয়ে গেল তখন পৃথিবীজুড়ে মানুষ ভারতের দিকে সমালোচনার আঙ্গুল তুলেছিল। তারা বলেছিল ভারত একটি নিপীড়নকারী রাষ্ট্র, সেখানে সংখ্যালঘুদের জানমালের নিরাপত্তা নেই। এ নিয়ে ভারতীয় বুদ্ধিজীবীমহল যখন চরম দুশ্চিন্তাগ্রস্ত ছিল, ঠিক তখনই তাদের সামনে ‘আলোর রেখা’ হয়ে হাজির হয়েছিল তসলিমা নাসরিনের ‘লজ্জা’। ‘লজ্জা’ দিয়ে নিজেদের অপরাধবোধ চাপা দেওয়ার মস্ত সুযোগ পেয়েছিলেন তারা। আনন্দবাজার তসলিমার একটি ভাবমূর্তি তৈরি করতে টানা তিন বছর ধরে ক্রমাগত চেষ্টা করে গেছে। এপার-ওপার বাংলায় তাদের পোষা বুদ্ধিজীবীরা তসলিমাকে নিয়ে অব্যাহতভাবে কলম চালিয়ে গেছেন। লজ্জাকে কেন্দ্র করে বাংলাদেশে যে সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা সৃষ্টি হয়েছিল সেদিকে বিশ্বের নজর ঘুরিয়ে দেওয়াই ছিল তাদের মূল কাজ। যাতে ভারতের সংঘটিত দাঙ্গার ওপর থেকে বিশ্ববাসীর নজর ঘুরে যায়। বাস্তবে তা হয়েছিলও বৈকি! বাংলাদেশে বৈদেশিক সাহায্য বন্ধ করে দেওয়ার দাবি উঠেছিল।লক্ষণীয় বিষয় হলো প্রয়োজন শেষে আনন্দবাজার কিন্তু তসলিমাকে ঠিকই ছুড়ে ফেলেছে।

সাহিত্য ছেড়ে খেলার মাঠের দিকে এগুলেও একই চিত্র পাওয়া যাবে। ক্রিকেটে আজ বাংলাদেশকে প্রতিষ্ঠিত শক্তিই বলা যায়। আজ এ খেলায় বাংলাদেশকে বলে-কয়ে হারানোর দিন শেষ। কিন্তু ক্রিকেটে বাংলাদেশের কোনো সাফল্যই আনন্দবাজার গোষ্ঠীর বাহবা পায় না। গত ৪ নভেম্বরে এক-দিবসী ক্রিকেটে নিউজিল্যান্ডকে হোয়াইট ওয়াশ করেছিল বাংলাদেশ। পরদিন বাংলাদেশের পত্রিকাগুলো এ নিয়ে প্রধান বা দ্বিতীয় শিরোনামে খবর ছাপলেও আন্দবাজারে একটি লাইনও লেখা হয়নি। ২০১১ সালে বিশ্বকাপ ক্রিকেটের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান হয়েছিল ঢাকায়। টেলিগ্রাফ, বিবিসি, ক্রিকইনফো, সিডনি মর্নিং হেরাল্ডের রিপোর্টে বলা হল, ঢাকায় দুর্দান্ত অনুষ্ঠান হয়েছে। অথচ একই অনুষ্ঠান কাভার করে আনন্দবাজারের গৌতম ভট্টচার্য্য যে লেখা লিখলেন তাতে মূল বিষয় বাদ দিয়ে সাংবাদিকদের একটু হেটে প্রেসবক্সে ঢোকার কষ্টটাকে ফুটিয়ে তোলাতেই নজর ছিল বেশি। অথচ গৌতমরা ভুলে যান, ১৯৯৬ সালে কলকাতা বিশ্বকাপ ক্রিকেটের ওপেনিং করতে গিয়ে লেজার শোর নামে কেলেঙ্কারি করে ফেলেছিল। সেদিন সারা পৃথিবীতে ‘ছি ছি’ পড়ে গিয়েছিল। টেস্ট ক্রিকেটে বাংলাদেশ একযুগ পার করলেও আজ পর্যন্ত ভারত বাংলাদেশকে তাদের দেশে খেলার আমন্ত্রণ জানায়নি। এ নিয়ে কিন্তু আনন্দবাজারের কোনো রা নেই।

সাহিত্য, খেলা ছাপিয়ে যদি রাজনীতির কথা ওঠে তো দেখা যাবে সেখানে আরেক কাঠি এগিয়ে আছে আনন্দবাজার গোষ্ঠী। যে পত্রিকায় হুমায়ূনের মৃত্যু সংবাদ ছাপা হয় টুকরো খবরে, নিউজিল্যান্ডকে হোয়াইট ওয়াশের খবরই ছাপা হয় না, সেই একই পত্রিকায় বাংলাদেশের রাজনীতি নিয়ে খবর ছাপা হয় হর-হামেশা। যেন বাংলাদেশের রাজনীতি নিয়ে তাদের আগ্রহ অসীম। যদিও সংবাদ প্রচারের ক্ষেত্রে তারা বেশিরভাগ খবরেই বস্তুনিষ্ঠতার ধার ধারে না। বরং নিজেদের মতো করে একপাক্ষিকভাবে খবর প্রকাশের দিকেই মনোযোগ বেশি। সম্প্রতি প্রায় প্রতিদিনই আনন্দবাজারে বাংলাদেশ নিয়ে খবর থাকছে। খালেদা, হাসিনা, এরশাদ, জামায়াত কবে কখন কী করল, কী বলল তার সবই নিজেদের মতো ছাপছে তারা।কিছুদিন আগে যথাযথ তথ্য-প্রমাণ ছাড়াই তারেক রহমানকে আইএসআইয়ের সহযোগী বানিয়ে সংবাদ ছাপিয়ে ব্যাপক বিতর্কের সৃষ্টি করেছিল তারা। জামায়াত বাংলাদেশের অভ্যন্তরে গোপনে নাশকতার চেষ্টা করছে, জঙ্গি দল গঠন করছে বলে খবর ছড়াচ্ছে তারা। অথচ আগামী লোকসভা নির্বাচন ঘিরে বিজেপির মতো কট্টর হিন্দুত্ববাদী দল যে কংগ্রেসকে চোখ রাঙাচ্ছে সেদিকে যেন চোখ নেই আনন্দবাজার গোষ্ঠীর। বাংলাদেশে সংখ্যালঘুরা নির্যাতিত হচ্ছে বলে আনন্দবাজারের যে উদ্বেগ সেই একই উদ্বেগ ভারতের বেলায় দেখাচ্ছে না তারা। মূল কথা হলো বাজার দখলে রাখা। সেটা সাহিত্য-সংস্কৃতি থেকে শুরু করে, রাজনীতি, অর্থনীতি সবখানেই। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকলে তাদের বাজার দখলে রাখতে সুবিধা হয়, তাই বিএনপির উত্থান ঠেকাতে তারা মরিয়া।

জামাতের জঙ্গি আচরণেকে ইঙ্গিত করে আসলে তারা বিএনপিকে দমিয়ে রাখতে চায়। তাই আওয়ামী লীগ আমলে ফেলানি হত্যা, তিস্তার পানি বন্টন চুক্তি না হওয়া কিংবা স্থল সীমান্ত চুক্তি নিয়ে মমতার অনাগ্রহ নিয়ে তারা উদ্দেশ্যপ্রণোদিত হয়ে নীরব ভূমিকা পালন করে।তবে বাজার দখলে রাখার ক্ষেত্রে বিএনপি বেশি সুবিধা দিলে আওয়ামী লীগকে ছুড়ে ফেলতে এক মুহূর্তও ভাববে না তারা। যে বাঙালী জাতিয়তাবাদের কথা আনন্দবাজার বলে বেড়ায় সেটা আসলে সাম্প্রদায়িক চেতনায় ধারণ করা জাতীয়তাবাদ। বস্তুত আমাদের অসাম্প্রদায়িক ভাবনার সঙ্গে তাদের জাতিয়তাবাদের ধরন মেলে না। ব্রিটিশ আমলে দ্রুত ইংরেজী শিখে ইংরেজের দালালি করে কাচা পয়সা রোজগার করে যে মধ্যবিত্ত বাঙালী হিন্দু শ্রেণী বিকাশ লাভ করেছিল সেই শ্রেণীর বানানো হিন্দুত্ববাদী জাতিয়তাবাদেকই ধারণ করছে আনন্দবাজার।

এখনো মুসলমানদের পিছিয়ে পড়া আতরাফ জনগোষ্ঠীর অংশ ভাবতেই পছন্দ করে তারা। আর নিজেদের ভাবে আশরাফ। নিজের অঞ্চলে নিজেদের ভাবনা প্রতিষ্ঠা করলে সমস্যা ছিল না, সমস্যা তখনই বাধে যখন তাদের ভাবনা তারা জোর করে আমাদের উপর চাপিয়ে দিয়ে বাণিজ্য করে যায়।

Bangladesh’s Pro-Government Supporters : Are they Intellectually defendable?

1

https://www.facebook.com/photo.php?v=657179600971982

By Shafquat Rabbee:

Although decreasing in number, openly enthusiastic defenders of the current Bangladesh government should find their defense of the government intellectually un-defendable. The ruling Awami League, which traditionally have been a center-left political party, with a massive organization from the cities to the rural towns, is behaving more like a cult of delusional suicide-teens, following an increasingly demented leader.

Gone are the concerns for ever having to contest in a democratic election or care for human rights and dignity. Even self-interest driven concern for preservation of wealth accumulated during the last 5 years seems to be missing among the ruling class. With ever increasing political brinkmanship, which defies popular and global will (excluding that of India’s), the Awami League supporters are now running the risk of losing both their “tangibles” and “intangibles”, if/when Sheikh Hasina, leaves the scene — willingly or unwillingly.

In this write-up, a few key examples of intellectual bankruptcy of the Awami League supporters will be highlighted. It is to be noted that, by Awami League supporters, one has to take into consideration its coalition partners, most of who are from a number of communist parties. Besides the communists, there are the new kids-in-town: the Shahabag movement youth– popularly known as the Shahbagis. All of these elements of the Bangladeshi political spectrum are now can safely be deemed as “pro-government”.

Tricky waters of Caretaker:

Pakistan, the country from which Bangladesh earned its independence only 42 years ago, has just held its general election using a Caretaker government in 2013. It is to be noted, Bangladesh’s political disharmony is almost as chaotic as that of Pakistan; absent just the car-bombs and the Talebans. Another South-Asian country Nepal, which is almost equal in land size as Bangladesh, is using a Caretaker administration to fix its constitution. And of course, Bangladesh, one of the laboratories of the Caretaker system for poll time administration, had held 4 of its last 23 years’ general elections using caretaker administrations. Yet, fully knowing the South Asian and Bangladeshi realities, the government supporters and intellectuals, are now supporting complete abolition of the caretaker system based on a court verdict.

One has to remember that only 7 years ago, the Awami League did not accept a university professor and another retired Chief Justice, both with solid professional track records, as the head of caretaker/poll time administration, accusing them of being partisan. Yet, the same Awami League now has no qualms forcing its own leader, Sheikh Hasina, as the head of the poll time administration, as both a player and a referee in the upcoming national election!

“Fetish” over the constitution:

Several scientific polls conducted by globally respected polling firms have shown solid 80% support for the caretaker government system in Bangladesh. Even Awami League’s own poll, conducted by party sympathizer Aly Zaker / Iresh Zaker’s polling firm MRC Mode showed more than 70% support for the caretaker government. Yet, the Awami League and its supporters defend the abolition of the caretaker system, taking their fetish-like adherence to the constitution.

It has become a habit of the government supporters to state that the election will be held “as per the constitution”. However, no one ever states the fact that the very constitution in question was changed only a year ago. And comically, the same people who changed the constitution are now defending tooth-n-nail the amended constitution, clearly defying more than 70% of the popular will!

The government’s handling of the constitution have become so farcical, that Sheikh Hasina, herself has now become the constitution! Often time several key senior leaders and eminent pro-government scholars have been noticed saying sentences as follows: “Things will happen as per the constitution, but if Sheikh Hasina wants, she can decide to entertain opposition demands … …!!” Translation: Sheikh Hasina can always find her preferred way, as long as the constitution is concerned.

Hindu minority oppression by the government goons:

The Awami League, as a party is known to be popular among the Hindu population of the country. Yet, they pro-government supporters go silent when there were glaring evidences suggesting that the Hindu minority population of the country were victims of heinous crimes committed by the local leaders of the Awami League. Case in point, there were clear evidence of involvement of a Minister’s supporters in burning of several Hindu houses in Pabna. Several venerable dailies, including the Daily Star, published photos of goons responsible for the Hindu house burning incidence, standing right behind a Minister in a political procession. Yet, the pro-government supporters remained quiet in general.

There are several other instances of Hindu minority oppressions in the hands of the government party operatives. For example, an eminent TV journalist Anjan Roy’s ancestral land was illegally taken away by pro-government goons. Anjan Roy, himself being deemed as a pro-government intellectual, eventually took up his pen to write Op-editorials detailing his sad situation. Such land related issues between Hindu minority and the pro-government goons are widespread across Bangladesh at the moment. Yet, very few pro-government supporters have been seen voicing the issue, despite the fact that the Awami League often claims itself to be the protector of the Hindu minority,

Super-partial defense of human rights:

It started with the arrest of four bloggers who were victims of the government’s uncivilized detentions according to international standards, after they published religiously offensive rants. The pro-government supporters voiced strong oppositions and protested those arrests citing those very standards. However, these same supporters then became ecstatic when another writer cum Editor of a national daily, Mahmudur Rahman, was not only illegally detained, but also remanded and tortured by the government forces, violating all internationally accepted standards.

Then came the night of 5th May, where the government supporters logically and validly criticized some of the violence orchestrated by the Hefajot activists. However, these same individuals became ecstatic when the government very clearly violated international norms of crowd control and used excessive force on that fatal night of May 5th, for which the death toll is still a matter of serious contention.

Defying all international norms and protests, these same government supporters were happy when the government arrested Bangladesh’s leading Human Rights activist Adilur Rahman for merely carrying out and providing an estimate of the death toll on the night of May 5th.

Currently the government supporters are validly and reasonably concerned about the bus-arsons and countrywide violence during the days of anti-government protests. However, these same folks are not questioning the excessive use of force, i.e., rubber bullets, metal bullets, which are being randomly shot by the police all across the country to disperse even the most regular of street protests. Point to note, direct firing of bullets was never a common occurrence in Bangladesh before the current government. In fact, there was even a myth among the political activists in Bangladesh that “a minister’s signature is necessary before police can open fire”. No such myth exists no more!

Making matters even more horrific, plain clothed gun-men (as seen in the picture above), are shooting unarmed protesters from point-blank distance. Many of the guns are allegedly from the legitimate government forces, but their bearers are often not known,. Government party leaders have been seen wearing government forces uniforms, according to eye witnesses. Yet, no government supporting intellectual questions such wanton violation of police norms and human rights!

Disregard for almost every international institution:

The situation has become so reckless and unprofessional, that the government supporters and party operatives ridicule and question the credibility of almost every international organization; let that be Human Rights Watch, Amnesty International, The Economist, The Guardian, The New York Times, The House of Lords or The European Parliament. Almost any observer that voices any concern about issues that the pro-government folks care, gets the accusation that it was bought by money! There are no qualms about professional dignity or concerns.

The latest episode of such delusion was visible when The New York Times published a very direct editorial criticizing the Bangladesh government for its blatant abuse of human rights. The pro-government folks immediately accused The New York Times for being bought with money!

In this delusional state of affairs, the pro-government supporters appear almost like a group of paranoid schizophrenics, who believe that a global web of conspiracy is buying-off everything to destroy what the Awami League finds near and dear!

Emotional and intellectual bankruptcy of the pro-government supporters, intellectuals, and media personnel have created a situation where the most legitimate of grievances of the opposition camp is being suppressed in the crudest of manners. Such humiliating disregard for human rights and dignity can only result in radicalization and irreparable division among the population, where the moderate and the centrists will take the side line, and only the extremists will collide.

We are sitting on a ticking time bomb, and all relevant parties should be strongly warned.

আধুনিকাদের আড্ডায় নারী অধিকার

Image

অস্ট্রেলিয়ানদের প্রিয় বিনোদন হোল স্পোর্টস, বাঙালিদের কী বলুন তো? আড্ডা।
বহুদিন পরে দেশে বেড়াতে গিয়ে দিনে রাতে জমজমাট আড্ডা দিচ্ছি। হরেকরকম বিষয়ে বাগযুদ্ধ। বয়স, স্থান ও জেন্ডার ভেদে আড্ডার বিষয়ও বদলে যায় মাঝে মাঝে। “নারী অধিকার” বিষয়টি ভীষণ জনপ্রিয় এসব আড্ডায় । নারী অধিকারে আমার বন্ধুদের আগ্রহ আমাকে চমৎকৃত করেছে, করেছে আশান্বিত। তবে আমার শিক্ষিত, সুবিধাপ্রাপ্তা বন্ধুরা/আত্মীয়ারা নারী অধিকারের/স্বাধীনতার যে আকাঙ্ক্ষাটা করেন, তা আমাকে বিস্মিত করেছে কিছু সুনির্দিষ্ট কারণেই। পাঠকদের সাথে ভাগ করে নিচ্ছি নারী অধিকার বিষয়ক কিছু আড্ডা, বিস্ময় জাগানিয়া সুনির্দিষ্ট কয়েকটি কারণ এবং আমার নিজস্ব ভাবনাগুলো !

এক:
ডিনার পরবর্তী এক আড্ডায় হঠাৎ এক আত্মীয়া চোখ-মুখ ভয়ঙ্কর করে বলে বসলেন “খেয়াল করেছ তুমি? ইদানীং যে ঢাকায় হিজাবি মেয়ে বেড়ে গেছে”!? প্রবীণ প্রগতিশীল এই মহিলার ত্বক খুব চকচকে, দামি শাড়ী পড়নে, থাকেন গুলশানে, নিজেদের ফ্ল্যাটে। বিয়ে, শপিং, রূপচর্চা, বন্ধু-দর্শন ছাড়া বাসা থেকে বেরন না বললেই চলে। দারুণ রান্না করেন এবং হিন্দি সিরিয়ালে সামান্য আসক্তি আছে। একটু থতমত হলাম প্রশ্নটা শুনে, বুঝে উঠতে পারছিলাম না, তিনি কি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর পুত্রসন্তানের সেই বিখ্যাত লেখাটির কোনো রেফারেন্স দিচ্ছেন? নাকি আমিনী এফেক্ট? “অর্থ কী?” প্রশ্ন করাতে জবাব পেলাম “মানে বাংলাদেশে পর্দানশীন মেয়ে অনেক বেড়ে গেছে, কী যে হবে দেশটার, নারী স্বাধীনতা সব গোল্লায় গেলো!” দীর্ঘশ্বাস ফেললেন আত্মীয়া।

ঢাকার রাস্তায় হিজাবি মেয়ে দেখা যায়, সত্য। তবে ডানাকাটা ব্লাউজ আর শিফনের ফিনফিনে শাড়ী পরিহিতা মেয়েদেরও দেখা যায়। সুন্দরী ও সুগঠিত নারী-পুরুষ অন্তরঙ্গ পরিবেশে, প্রায়ই দেখা যায় ক্যাফে অথবা লাউঞ্জগুলোতে। এ প্রসঙ্গে আমার এক বন্ধু, যিনি গুলশানের একটি লাউঞ্জের সত্ত্বাধিকারী – তার একটি উক্তি মনে পরছে ,“বাচ্চালোগ প্রেম না করলে তো লাউঞ্জের ব্যবসা সব চাঙ্গে উঠবে”/আবার উত্তরবঙ্গের পথে দেখেছি শাড়ীর ওপরে ছেলেদের ঢোলা শার্ট পড়া মহিলারা ধান শুকাচ্ছে রাস্তায় (অভিনব পদ্ধতি, চলন্ত গাড়ীর চাকায় ধান মাড়াই)। ক্ষেতে কাজ করছে মেয়েরা মাথায় কাপড় দিয়েই। ওড়নাটা মাথায় তুলে শত শত মেয়ে যাচ্ছে গার্মেন্টসে। জুতার কারখানায় ছেলে মেয়ে এক সাথে কাজ করছে, হাসছে। গ্রামের মসজিদের ভেতরে আমি নিজে গিয়েছি ইমাম সাহেবের সাথে । দেখেছি, মসজিদের সামনে দিয়ে হেঁটে যাচ্ছে ভাই-বোন এক সাথে, পিঠে স্কুলের ব্যাগ। দিগন্ত নামের একটি টিভি চ্যানেলে হিজাবি মেয়েদের চমৎকার শুদ্ধ বাংলায় খবর পড়তে শুনেছি। একই সাথে একুশে টিভিতে দেখেছি, পশ্চিমা পোশাকে দারুণ ফিগারের তরুণীরা উপস্থাপনা করছেন ইংরেজিতে। “ঢাকার রাস্তায় আমারও আছে হাঁটার অধিকার”- এই শ্লোগানে মুখরিত রাজপথে হাত ধরে হেঁটে যেতে দেখেছি হিজাবি এবং অহিজাবি মেয়েদের। চমৎকার সহাবস্থান দুই মেরুর- আমার অত্যন্ত পছন্দের।

Image

তবুও একটা অজানা জুজুর ভয় এই প্রগতিশীল মহিলাদের। গত এক দশকে বাংলাদেশে মধ্যবিত্ত শ্রেণী যখন প্রায় বিলুপ্ত, তখন নতুন উচ্চবিত্তের ধর্ম (ইসলাম!) বিষয়ে উন্নাসিকতা ও আতংক চোখে পড়ার মতো। মজার ব্যাপার হোল, উল্লেখ্য মহিলার বাবা কিন্তু একজন মধ্যবিত্ত সরকারী চাকুরে ছিলেন। মধ্যবিত্ত থেকে উচ্চ মধ্যবিত্তে উত্থান (স্বামীর বদৌলতে) তার চিন্তা, চেতনায় এনেছে ব্যাপক পরিবর্তন যাতে আরো একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে পশ্চিমা বিশ্ব, ভারতীয় মিডিয়া এবং লাদেন। তিনি নিজের অজান্তেই অপছন্দ করছেন নিরপরাধ হিজাবি মেয়েটিকে শুধু মাত্র তাঁর ধর্ম চর্চার কারণে, মনে করছেন নারী স্বাধীনতার প্রতিবন্ধক। আরো একটা কারণ আছে হয়তো: “এই মেয়েরা কেন আমার মতো না!” এটাকে কি “রেসিজম” বলা যায় ? বিস্মিত হই আমি। মহিলা পারিবারিক বন্ধু, তর্কে না যাওয়াই শ্রেয়। তার দীর্ঘশ্বাসের জবাব আর দেয়া হোল না।

দুই:
বন্ধুদের আরেক আড্ডায় এক বিখ্যাত ব্যবসায়ী-কাম-রাজনীতিবিদের মেয়ে বেশ তেজোদ্দীপ্ত হয়েই বলে বসলো; “শুধুমাত্র এই নারী-নীতির জন্যেই শেখ হাসিনাকে আমার ভোটটা দেব”/পশ্চিমে শিক্ষিত মেয়েটির ভোটাধিকার প্রয়োগের তুমুল ইচ্ছাকে শ্রদ্ধা না করে উপায় নাই। তাকে প্রশ্ন করা হোল, তো নারী-নীতির ঠিক কোন বিষয়টি তোমাকে এতটা মুগ্ধ করেছে? উত্তর পাওয়া গেল “ঐ যে উত্তরাধিকারের ব্যাপারটা” (প্রসঙ্গত বলে রাখি, মেয়েটির কেবল একটিই ভাই এবং লোকমুখে শুনি যে তার পিতার সম্পদের পরিমাণ টাকায় বললে কম হলেও কয়েক শ’কোটি)/ আচ্ছা, ব্যপারটা তাহলে অর্থনীতিক। আর কী ভালো লাগলো এই নীতিমালার? “আর কিছু লাগে? ঐ একটাই যথেষ্ট। বাবার সম্পত্তিতে ছেলে-মেয়ের সমান অধিকার ছাড়া সিভিলাইজেশান চলতে পারে”? তা বটে।

তার কিছুদিন আগেই হেনার মৃতদেহে দোররার দাগ নিয়ে হয়ে গেল মৌসুমী হইচই, বগুড়ার একটি মেয়ের মাথা কামিয়ে দিলো ফতোয়াবাজরা। মিজানুরের ওপর মোটর সাইকেল উঠিয়ে দিয়েছিল বখাটেরা, কেননা সে প্রতিবাদ করেছিল ইভ-টিজিং এর। এরই মাঝে আমিনীর মত লোকেরা রাজপথ কাঁপিয়ে তোলে, সরকার তেড়ে যায় আমিনীর দিকে, কেননা বান্ধবীর মতে, নারীর অধিকার রক্ষার ঝাণ্ডা তো তাদেরই হাতে, দায়িত্ব আছে না? ওদিকে গ্রামীণ ব্যাংকের ঋণ গ্রহীতা মহিলারা মানব বন্ধন গড়ে তোলে, ইউনূস সাহেবের মান রক্ষায়। কী আশ্চর্য! “সকল দেশের সেরা সে যে আমার জন্মভূমিতে” গণধর্ষিত হয়ে যেদিন একটি মেয়ে আত্মহত্যা করেছিলো, সেদিন, হ্যাঁ, ঠিক সেদিনই শ্বশুর এবং পিতার বিশাল সম্পদের প্রতিশ্রুতির তলে, “ নারী অধিকার” নিয়ে পরমা সুন্দরী বান্ধবীর আবেগভরা উচ্ছ্বাস রেস্টুরেন্টের শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত কক্ষে উপভোগ্যই হয়েছিলো।

তিন:
এক সদ্য বিবাহিতা আত্মীয়া বাসায় এলেন দেখা করতে। জানলাম, তিনি, দেশে ইংলিশ মিডিয়ামে পড়ে চলে গিয়েছিলেন পশ্চিমে উচ্চ শিক্ষার উদ্দেশ্যে। তার পড়নে ছিল ঢাকাই সূতী শাড়ি, স্লীভলেস ব্লাউজ, মাথায় সিঁদুর, হাতে শাঁখা। জানা গেল, খাঁটি বাঙালি সংস্কৃতির অনুরক্ত আমার এই আত্মীয়াটি শেকড়কে শ্রদ্ধা করে সিঁদুর এবং শাঁখা পড়েন। বিয়ের অনুষ্ঠানেও সিঁদুর পড়িয়ে দিয়েছিলো তার স্বামী। এর কারণ বাঙালি মুসলমান আগে সব হিন্দু ছিল, ইসলাম ধর্মপ্রচারকেরা এদেশে এসে জোড়-জবরদস্তি করে তাদের মুসলমান বানিয়েছে। তাই প্রতিটি হিন্দু ঐতিহ্যে আমাদের রয়েছে পূর্ণ অধিকার।

ঘটনাচক্রে কলকাতা থেকে আরেক পারিবারিক বন্ধু (আমার মা’র স্কুলবেলার বন্ধু) এবং তার স্বামী এসেছেন বাংলা নববর্ষ উদযাপন করতে, এই ঢাকায়। অঙ্কে গ্র্যাজুয়েট ভদ্রমহিলা হিন্দু, কিন্তু শাঁখা-সিঁদুর পড়েন না। তার ভাষ্য: শাঁখা-সিঁদুর হিন্দু মহিলাদের জন্য অত্যন্ত অপমানকর! এর সাথে বাঙ্গালিত্বের কোনো সম্পর্ক নেই! কী অদ্ভুত! আমার খাঁটি বাঙালি আত্মীয়াটিকে পরে একদিন পাকড়াও করে যখন ঘটনাটা বললাম, একটু বোধ হয় বিব্রতই হয়ে গেলেন। বললেন, আমরা কেন সব ধর্মের ভালোটা নিতে পারি না, কেন ধর্মে-ধর্মে এতো হানাহানি, কেন আমরা কেবল মানুষ এই পরিচয়টুকুই যথেষ্ট না, ইত্যাদি।

পাঠক! লক্ষ্য করুন, উপরের প্রতিটি আলাপের মূল চরিত্র একজন সচ্ছল শিক্ষিত নারী, সমাজে যাদের “ priviledged” অথবা সুবিধাপ্রাপ্তা বলা হয় । এদের অনেকেই নারীবাদ, আধুনিকতা, বাঙ্গালিত্ব নিয়ে যার পর নাই চিন্তিত যদিও, বাংলাদেশের মেয়েদের আসল সমস্যা উপলব্ধি করার সময় এবং সম্ভবত ইচ্ছেটাও কম। এরা যে অবস্থানে আছেন, ভোগবহুল সে অবস্থান থেকে তার সম্ভাবনাও কম, স্বীকার করছি। আমার আত্মীয়া, যিনি শাঁখা-সিঁদুর পরে মনে করছেন সত্যিকারের বাঙালি নারী হওয়া গেল, তিনি বুঝেই উঠতে পারছেন না, এই বাঙ্গালিত্ব তার নিজের বানানো, ঠিক অথেনটিক না। বাঙালি হতে গিয়ে তিনি কিছু বাঙালি হিন্দু নারীর বিরক্তির কারণ হয়ে দাঁড়াচ্ছেন যৌক্তিক কারণেই। ঠিক যেভাবে হিজাবি মেয়েটি বিরক্ত করছে আরেকটি গ্রুপকে! আবার হিজাবি মেয়েটির হিজাব পড়ার অধিকার/স্বাধীনতা নিয়ে প্রশ্ন তোলাটাও কি বিতর্কের অবতারণা করে দেয় না? এই বিচিত্র স্ববিরোধিতার একটি কারণ সম্ভবত আইডেন্টিটি ক্রাইসিস । সম্ভবত এ জন্যই বাংলাদেশী নারীর অশিক্ষা, দারিদ্র্য, বঞ্চনা লাঘবে সুবিধাপ্রাপ্তা শিক্ষিত নারীরা উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করতে পারছে না । নারী অধিকার প্রতিষ্ঠার আন্দোলন তাই সীমাবদ্ধ হয়ে পড়ছে সম্পত্তির সমান অধিকারে অথবা পোশাকের স্বাধীনতায় !

আধুনিকা এই সুবিধাপ্রাপ্তারা একটি সহজ ব্যাপার কি বুঝতে সক্ষম যে আজ তারা যে অবস্থানে আছেন, সেই একই অবস্থানে আসতে দেশের বাকি ৯০ ভাগ নারীর হয়তো কয়েক দশক অপেক্ষা করতে হতে পারে? ১৯৯৫ সালে চীনে আয়োজিত বিশ্ব নারী সম্মেলনে ইরানী নারীদের প্রতিনিধিদের যে দাবী দাওয়া ছিল (নারী স্বাধীনতার লক্ষ্যে), পশ্চিমা স্ট্যান্ডার্ডে সেটা তখনই ছিল অধীনস্ততার লক্ষণ। আমাদের দেশেও এই বাস্তবতাটি বর্তমান। সম্পত্তির সমান অধিকার নারী অধিকার প্রতিষ্ঠায় অত্যন্ত প্রয়োজন, তবে তার আগে আরও বেশি প্রয়োজন, সমাজের প্রতিটি স্তরে, প্রতিটি শ্রেণীতে বাকি ৯০ ভাগ নারীর শিক্ষা এবং উপার্জনের ক্ষমতা নিশ্চিত করা। এটা না করে, সুবিধাপ্রাপ্তারা নারী অধিকারের লঘু বিষয়গুলো নিয়ে চায়ের কাপে ঝড় তুললে সংখ্যালঘু নারীদের সাথে দেশের সংখ্যাগুরু নারীদের মাঝে একটা বিভেদ রেখা তৈরি হয়। এবং তখনি সমাজের ৯০ ভাগ নারীর কাছে এরা পরিণত হয় লাফিং স্টকে । যে “ Freedom of expression” নিয়ে আমার আত্মীয়াদ্বয় অত্যন্ত চিন্তিত ,“Freedom of choice” এবং “Economic freedom” না থাকায় দেশের বেশির ভাগ নারীর কাছে তা “ Cruel joke”।

Image

শুরুটা আসলে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড থেকেই হয়, সবখানেই হয়েছে। বাংলাদেশে তথাকথিত আধুনিকাদের ধারণাও নেই যে তারা নয়, বরং সাধারণ খেঁটে খাওয়া, মাথায় কাপড় দেয়া কিংবা না দেয়া, দ্রুত পায়ে হেঁটে চলা পারিপাট্যহীন কৃষ্ণকায় মেয়েরাই এদেশের নারী বিপ্লবের প্রকৃত নেতৃত্ব দিচ্ছে, এই সমাজটাকে বদলে দিচ্ছে। বুঝে হোক না বুঝে হোক তারা যে কাজটি শুরু করে দিয়েছে সেটিই আসল। “সমধিকার” যেখানে আরাধ্য সেখানে ধর্ম হোক, রেস হোক কিংবা জেন্ডার, কেউই ভারসাম্যের ভুল দিকটায় থাকলে আমন্ত্রিত হয় না যতক্ষণ না সে অর্থনৈতিকভাবে নিজেকে অপরিহার্য প্রমাণ করে। আমার পরিচিত কিছু আধুনিকাদের কাছে যে “নারী স্বাধীনতা” শুধুই অনুভব কিংবা আড্ডার বিষয়, বড় জোড় কুড়িয়ে নেওয়ার জিনিষ, সমাজের ৯০ ভাগ নারীর কাছে সেটা বাস্তবতা, খুব কঠিন বাস্তবতা এবং তার চেয়েও ভয়ঙ্কর – প্রতিদিনকার লড়াইয়ের বাস্তবতা। এই লড়াইয়ের কুশলীরা এতোটাই সুযোগ্য ও অসাধারণ যে আমি কিংবা আমার ওইসব আত্মীয়াদের কোনও আড্ডায় অংশগ্রহণ ছাড়াও তারা এগিয়ে যাবে সুনিশ্চিতভাবে। আমি কিংবা আমার আত্মীয়ারা শুদ্ধ বাংলায় নারী অধিকারের বিশাল বক্তৃতা দিয়ে নিজেরা জাতে উঠতে পারি, কিন্তু এদেশটাকে জাতে উঠিয়েছে ওইসব লড়াকু মেয়েরাই। তাঁদের ধন্যবাদ !

(লেখাটি পূর্বে বিডিনিউজ এ প্রকাশিত হয়েছে)

দেবতারা সব মর্ত্যে নামুক -২

Bangladesh

ঢাকা কেন্দ্রিক ক্রাউড আর প্রবাসীদের সেকি উচ্ছ্বাস দুই বৃদ্ধ মহিলার ফোনালাপ নিয়ে! যে যার ফ্রন্ট থেকে বিশ্লেষণ করে চলেছে এই আলাপ। কেউ বলছে, হাসিনা ছিলেন শান্ত। কেউ বলছে, নাহ, তিনি খুঁচিয়েছেন খালেদাকে বড্ড বেশি। কেউবা বলছে, খালেদা ছিলেন অফেন্সিভ। রেগে গিয়ে অনেক খোলামেলা কথা বলেছেন। ইত্যাদি। I was least interested to listen to the conversation. আমি আন্দোলিত হই না। আমি অপেক্ষা করছিলাম রেজাল্ট এর জন্য। কেননা, ওদিকে মানুষ মরতেই আছে গুলিতে, বোমায়। আবারও বলি, আমি অপেক্ষা করছিলাম রেজাল্ট এর জন্য। কেননা, আমি অস্থির হয়ে আছি আমার মা, বাবার নিরাপত্তার চিন্তায়।(দুদিন আগেই বাসার সামনের গলিতে ফেটেছে বোমা, মোটর সাইকেলে করে কারা যেন টহল দেয় বাসার সামনে)।
Continue Reading

A Bridge too far

Image

প্রথম কিস্তি
দ্বিমতের  অবকাশ নেই, বাংলাদেশীরা জাতি হিসেবে homogenous ! শ্যামলা গায়ের রঙ, উচ্চতা মাঝারী, চেহারা তেমন sharp নয়, চুল কালো। গড়ে শারীরিক অবয়বটা অনেকটা এরকম। সাধারনত  কমন জেনেটিক মেকআপ এর জন্যই এমনটি হয়।  আমি অনেকদিন ধরেই এ জাতির মানসিক দিকটি নিয়ে ভাবছি।  বিদেশী কিছু সার্ভেতে দেখা গেছে- এরা খুব সুখী। অত্যন্ত আনন্দের কথা। দারিদ্র, উষ্ণ জলবায়ু, রাজনৈতিক অস্থিরতা, ট্রাফিক জ্যাম, দুর্নীতি, বিশাল জনগোষ্ঠী ইত্যাদি সমস্যার পরেও এ জাতি কেন সুখী? আসলেই কি সুখী?  চাহিদা কম ?  জেনেটিক মেকআপের কথা আগেই বলেছি। জেনেটিক মেকআপ শুধু শারীরিক অবয়ব নির্ধারণ করে না, মানসিকতাও প্রভাবিত করে! এমনও  জিন ( Anger gene) আবিষ্কার হয়েছে, যার একটু “এদিক ওদিক” (gene mutation ) শুধু মাত্র রাগী মানুষদের শরীরে পাওয়া যায়।  কিছু gene mutation  হয়তো কাউকে করে অতিরিক্ত অভিমানী!
আচ্ছা, বাংলাদেশীদের কিছু exclusive  gene mutation তো হতেই পারে! একারণেই বোধ হয়, কেউ কেউ আমরা গাড়ি ভাঙ্গি, রাস্তাঘাটে গালি  গালাজ করি, কথা বেশি বলি, এবং এত সমস্যার পরেও নিজেদের সুখী ভাবি। আমরা কিছুটা পরশ্রীকাতরও  ( আমার জানামতে, পরশ্রীকাতরতার কোনো ইংরেজি নেই, শব্দটি একেবারেই বাঙালী জাতির উদ্ভাবন, এরকম আরেকটি শব্দ হলো অভিমান) ! সব সময় আবেগের তুঙ্গে অবস্থান আমাদের! আবার রানা প্লাজা ধসে পড়ে যখন, এ জাতির মানুষেরাই দিগ্বিদিক ভুলে ঝাপিয়ে পড়ে উদ্ধার কাজে, জীবনের তোয়াক্কা না করে! আমি ভাবছিলাম বাংলাদেশীদের  জেনেটিক মেকআপ নিয়ে। এদের জিনের “এদিক ওদিক” গুলো কেমন? কেন হলো? কিভাবে হলো? কবে হলো?Continue Reading